বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > US Election- বাড়ছে বাইডেনের ব্যবধান, সুপ্রিম কোর্টের হস্তক্ষেপের আশায় ট্রাম্প
বাইডেন সমর্থকদের উচ্ছ্বাস (REUTERS)
বাইডেন সমর্থকদের উচ্ছ্বাস (REUTERS)

US Election- বাড়ছে বাইডেনের ব্যবধান, সুপ্রিম কোর্টের হস্তক্ষেপের আশায় ট্রাম্প

এই মুহূর্তে সুতোয় ঝুলছে ট্রাম্পের ভাগ্য

মার্কিন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে সাত রাজ্যে ফলাফল বাকি ছিল ভোটের রাতে গণনার শেষে। আস্তে আস্তে যেমন বিশেষজ্ঞরা পূর্বাভাস করেছিলেন, ট্রাম্পের লিড কমতে লাগল। উইসকনসিনে ইতিমধ্যেই হেরে গিয়েছেন তিনি। নর্থ ক্যারোলিনা ও আলাস্কা ছাড়া অন্য যে সব রাজ্যে ফলাফল ঘোষিত হয়নি, সব জায়গাতেই পিছিয়ে যাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। সব মিলিয়ে জো বাইডেনের নির্বাচন জেতা এখন নেহাতই সময়ের অপেক্ষা। কিন্তু খুব সহজে সেটা মেনে নেবেন ট্রাম্প, এমন ইঙ্গিত মিলছে না। 

অন্যদিকে সবাইকে ধৈর্য্য ধরার জন্য আপিল করেছেন জো বাইডেন। তিনি বলেন প্রক্রিয়ার ওপর আস্থা রাখুন, সবার ভোট গোনা হবে। নিজের জয়ের বিষয়েও আশাবাদী তিনি।  তিনি যে মার্কিন মানুষের ম্যানডেট পেয়ে গিয়েছেন এটাও বললেন তিনি। ইতিমধ্যেই রাষ্ট্রপতি হিসেবে কিভাবে কোভিড সামলাবেন, সেটা নিয়ে তিনি চিন্তাভাবনা শুরু করেছেন বলে জানান জো বাইডেন। 

এই মুহূর্তে বাইডেন পেয়েছেন ২৬৪ ইলেকটরাল কলেজ আসন, ট্রাম্প পেয়েছেন ২১৪। এখনও পর্যন্ত ট্রাম্পের চেয়ে ৪২ লাখ বেশি ভোট পেয়েছেন বাইডেন। বাইডেন এগিয়ে নেভেডায় (৬ আসন) ২২ হাজার ভোটে, পেনসেলভ্যানিয়ায় (২০ আসন) ২৭,১৩০ ভোটে ও জর্জিয়া (১৬ আসন) ৪৩৯৫ ভোটে।  এর মধ্যে কোনও একটিতে ফলাফল ঘোষিত হয়ে গেলেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়ে যাবেন বাইডেন। সেটা ভালো করে জানেন ট্রাম্পও। টুইটারে তাই তিনি যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন। বাইডেনকে জয় ঘোষণা না করার হুঁশিয়ারি দিচ্ছেন। 

ট্রাম্প বলছেন যে ৩ নভেম্বর রাতে সব গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যে তিনি এতটা এগিয়ে গিয়েছিলেন, তারপর সেগুলি সব উধাও হয়ে গেল, হয়তো কোর্টে গেলে আবার সেটি ফিরবে। কোর্ট যুদ্ধ সবে শুরু হয়েছে বলে বাইডেনকে হুঁশিয়ারি দিচ্ছেন তিনি। 

বাস্তব যদিও অনেকটা আলাদা বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের মতে, ট্রাম্প কোনও প্রমাণ দিতে পারেননি ভোটে কারচুপি হয়েছে। তাই আদালত তাঁর কথা শুনবে, এমন কোনও সম্ভাবনা কার্যত নেই। যদিও বর্তমান মার্কিন সুপ্রিম কোর্টে, মুখ্য বিচারপতি সহ নয়জনের মধ্যে ছয়জনকে ট্রাম্পের দল মনোনীত করেছে, কিন্তু তারাও রাষ্ট্রপতির বিনা প্রমাণের দাবিকে পাত্তা দেবেন, এমন সম্ভাবনা নেই বলেই মনে করা হচ্ছে। 

 

সব ভোট যাতে গোনা হয় তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যগুলিতেতে চাপ জারি রাখছে ডোমাক্র্যাটিক দলের প্রার্থীরা। অন্যদিকে ট্রাম্প সমর্থকরাও রাস্তায় নেমেছেন স্টপ দ্য স্টিল ব্যানার নিয়ে। সবমিলিয়ে উত্তেজনা রয়েছে বিভিন্ন রাজ্যে। 

অনেক রাজ্যেই যারা ডাক ব্যালটে ভোট দিয়েছিলেন, তাদের অধিকাংশই ডেমোক্র্যাট। সেই জন্য সেই ব্যালট যখন গোনা হচ্ছে, ধীরে ধীরে পিছিয়ে পড়ছেন ট্রাম্প। এটাকেই কারচুপি বলে অভিহিত করছেন তিনি। তবে তাঁর দলের অন্যান্য শীর্ষ নেতারা কিন্তু এখনও পর্যন্ত তাঁকে সমর্থন করেনি। হোয়াইট হাউস সূত্রে জানা যাচ্ছে,  এখনই হার মানতে রাজি নন ট্রাম্প, তিনি আদালতে যাবেনই। অন্যদিকে যেখানে খুব অল্প ব্যবধানে তিনি হারছেন, সেখানে পুনর্গণনার আবেদন করবে তাঁরা। 

২০০০ সালে কোর্টে গিয়ে নির্বাচন জিতেছিলেন জর্জ বুশ। সেখান থেকে মনোবল বৃদ্ধি করছেন তিনি। কিন্তু এখানে প্রেক্ষিততা অনেকটাই আলাদা। অনেক রাজ্যের ক্ষেত্রে সরাসরি সুপ্রিম কোর্টে যেতে পারবেন না ট্রাম্প। আগে তাঁকে রাজ্যের আদালতে যেতে হবে। এখনও পর্যন্ত যেই সব বিষয় নিয়ে মামলা ঠুকেছে ট্রাম্প ক্যাম্পেন, সেগুলি তেমন বড় কোনও অভিযোগ নিয়ে নয়। ছোটোখাটো প্রক্রিয়াগত ভুলত্রুটি নিয়ে অভিযোগ তাদের, যাদের সঙ্গে ট্রাম্পের ভোট কারচুপির অভিযোগের কোনও মিল নেই। সব মিলিয়ে কোনও মিরাকেল না হলে হোয়াইট হাউসের মসনদ ছাড়তেই হবে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে। 

বন্ধ করুন