বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Bikaji Foods IPO: জনপ্রিয় ভুজিয়া কোম্পানির শেয়ার আসছে বাজারে! টাকা করার সুযোগ?

Bikaji Foods IPO: জনপ্রিয় ভুজিয়া কোম্পানির শেয়ার আসছে বাজারে! টাকা করার সুযোগ?

ফাইল ছবি: বিকাজি (Bikaji)

Bikaji Foods IPO: বিকাজি ফুডস আইপিও-তে পাবলিক ইস্যুর মোট শেয়ারের পরিমাণ ২.৯৩ কোটি টাকা। এই আইপিও সম্পূর্ণরূপে সংস্থার বর্তমান শেয়ার হোল্ডার ও মালিকদের OFS(অফার ফর সেল)। আর সেই কারণেই এই ইস্যুর মাধ্যমে সংস্থার কোনও আয় হবে না।

Bikaji Foods IPO: বিকাজি ফুডস ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের IPO। পাবলিক সাবস্ক্রিপশন বৃহস্পতিবার ৩ নভেম্বর ২০২২ থেকে শুরু। মোট তিন দিনের ইস্যু। সোমবার ৭ নভেম্বর ২০২২-এ শেষ হবে। প্রাইস ব্যান্ড ২৮৫ টাকা থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে স্থির করা হয়েছে। মোট ৮৮১ কোটি টাকার ইনিশিয়াল শেয়ার বিক্রির লক্ষ্য।

বিকাজি ফুডস আইপিও-তে পাবলিক ইস্যুর মোট শেয়ারের পরিমাণ ২.৯৩ কোটি টাকা। এই আইপিও সম্পূর্ণরূপে সংস্থার বর্তমান শেয়ার হোল্ডার ও মালিকদের OFS(অফার ফর সেল)। আর সেই কারণেই এই ইস্যুর মাধ্যমে সংস্থার কোনও আয় হবে না।

বাজার পর্যবেক্ষকদের মতে, বিকাজি ফুডসের শেয়ার আজ গ্রে মার্কেটে ৫২ টাকার প্রিমিয়াম (GMP) দিয়েছে। কোম্পানির শেয়ার আগামী ১৬ নভেম্বর ২০২২ (বুধবার) BSE এবং NSE-তে তালিকাভুক্ত হবে বলে মনে করা হচ্ছে। আরও পড়ুন: IOCL: সরকারি সংস্থার শেয়ারে ১ লক্ষ টাকা রেখে এখন কোটিপতি বিনিয়োগকারীরা!

সংস্থার ক্রমাগত বৃদ্ধি, চাহিদা, ভবিষ্যত সম্প্রসারণের পরিকল্পনা, নতুন প্রোডাক্ট লঞ্চ, ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য বিনিয়োগ এবং প্যাকেজড ফুড ব্যবসার ভাল বাজার রয়েছে। আগামিদিনে এই ধরনের ব্যবসা নিয়ে আশাবাদী বিশেষজ্ঞরা। ব্রোকারেজ সংস্থা Geojit তার এক আইপিও নোটে এই শেয়ারে, স্বল্পমেয়াদী উচ্চ-ঝুঁকির ভিত্তিতে 'সাবস্ক্রাইব'-এর রেটিং দিয়েছে।

'বিকাজি ফুডস ভারতীয় স্ন্যাকসের বাজারে সুপরিচিত নাম। বিকাজির বিশাল প্যান ইন্ডিয়া ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক রয়েছে। বিক্রিবাটা দিন দিন বেড়েছে। তবে, মার্জিন নিয়ে চাপ রয়েছে। ভ্যালুয়েশনের ক্ষেত্রে আপার ব্যান্ডে আস্কিং p/e প্রায় ৯৫ গুণ এবং P/BV প্রায় ৯ গুণ। তাই প্রাইমারি ইস্যু হিসাবে অনেক বেশি দাম মনে হচ্ছে,' জানালেন UnlistedArena-র অভয় দোশি।

বিকাজি ফুডস ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড ভারতের সবচেয়ে বড় কনজিউমার ব্র্যান্ডগুলির মধ্যে অন্যতম। আন্তর্জাতিক বাজারেও সংস্থার উপস্থিতি রয়েছে। এই সেগমেন্টে সংস্থার সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দী হলদিরামস। এদিকে মজার বিষয় হল, বিকাজি ফুডস ইন্টারন্যাশনালের প্রতিষ্ঠাতা শিবরতন আগরওয়ালের একটি বিশেষ পরিচয় রয়েছে। তিনি হলদিরামের প্রতিষ্ঠাতা গঙ্গাবিষণ আগরওয়ালের নাতি। শিবরতন আগরওয়াল ১৯৮৬ সালে এই সংস্থার প্রতিষ্ঠা করেন। প্রথম দিকে এটি শিবদীপ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড নামে তালিকাভুক্ত ছিল। ১৯৯৩ সালে সংস্থার নাম পরিবর্তন করে বিকাজি ফুডস করা হয়। আরও পড়ুন: কন্ডোম কোম্পানির শেয়ার কিনতে পারবেন আপনিও! আসছে IPO

সংস্থার নানা ধরনের স্ন্যাক্স রয়েছে- ভুজিয়া, নমকিন, প্যাকেটজাত মিষ্টি, পাঁপড়, গিফট প্যাক (ভাণ্ডার)। বাজারের বিস্তৃতির লক্ষ্যে চিপস, ফ্রোজেন খাবার এবং কুকিজও এনেছে সংস্থা।

বিঃদ্রঃ- শেয়ার বাজার সংক্রান্ত মতামত স্বাধীন বিশেষজ্ঞদের প্রদত্ত। এগুলি সম্পাদকীয় পরামর্শ নয়। স্টক মার্কেটে বিনিয়োগ ঝুঁকিপূর্ণ। টাকা রাখার আগে বিভিন্ন দিক অবশ্যই খতিয়ে দেখুন।

বন্ধ করুন