বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > খুবলে নেওয়া চোখ, গাছে ঝুলছে দেহ, ‘ধর্ষণ’ করে বিজেপি নেতার মেয়েকে খুন
গাছের ডালের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় বিজেপি নেতার মেয়ের দেহ উদ্ধার (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
গাছের ডালের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় বিজেপি নেতার মেয়ের দেহ উদ্ধার (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

খুবলে নেওয়া চোখ, গাছে ঝুলছে দেহ, ‘ধর্ষণ’ করে বিজেপি নেতার মেয়েকে খুন

  • মৃতের পরিবারের অভিযোগ, তাঁদের মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে।

গাছের ডালের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় এক কিশোরীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল ঝাড়খণ্ডে। বুধবার ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়খণ্ডের পালামু জেলার লালিমাটি জঙ্গলে। পুলিশ ওই জঙ্গল থেকে স্থানীয় এক বিজেপি নেতার ১৬ বছরের মেয়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করেছে। মৃতের পরিবারের অভিযোগ, তাঁদের মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে। এদিন স্থানীয় বাসিন্দারাই ওই জঙ্গলে প্রথমে কিশোরীর দেহ ঝুলতে দেখেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, ওই কিশোরীর দেহ একটি গাছের ডালের সঙ্গে ঝুলছিল। সেই সময় তার ডান চোখ খুবলে বেরিয়ে এসেছিল। তদন্তে নেমে এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে প্রদীপকুমার সিং ধানুক (‌২৩)‌ নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, ওই কিশোরীকে খুন করার আগেই তাঁর ডান চোখ খুবলে নিয়েছে আততায়ী। তার পর তাঁকে গাছের সঙ্গে ঝোলানো হয়েছে। পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মেদিনী রায় মেডিক্যাল কলেজে পাঠায়। পুলিশ জানিয়েছে, খুন করার আগে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করা হয়েছিল কিনা, তা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে এলেই স্পষ্ট হবে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, পাঙ্কি থানা এলাকায় মৃত ওই কিশোরীর বাড়ি। তাঁর বাবা সেখানকার স্থানীয় বিজেপি নেতা। ৫ সন্তানের মধ্যে সব চেয়ে বড় ছিল সে। স্থানীয় স্কুলে দশম শ্রেণিতে পড়ত ওই কিশোরী। সন্ধ্যায় ওই কিশোরীর দেহ সৎকার করা হয়। মৃতের মোবাইল ফোন ঘেঁটে প্রদীপকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সন্দেভাজন ওই যুবক বিবাহিত। এই ঘটনার সঙ্গে আরও অভিযুক্তরা জড়িয়ে থাকতে পারে বলে সন্দেহ পুলিশের।

মৃতার পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, গত সোমবার বাড়ি থেকে বেরিয়ে নিখাঁজ হয়ে যায় ওই কিশোরী। স্থানীয় থানার এসআই অশোক কুমার জানিয়েছেন, মঙ্গলবার মেয়ের পরিবারের লোকেরা নিখোঁজ ডায়রি করে। তিনি আরও জানান, বুধবার গ্রামের কাছে ওই জঙ্গলের একটি গাছের সঙ্গে তাঁর দেহ ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের অনুমান, ঘটনাটি যাতে আত্মহত্যা বলে মনে হয় সেজন্য আততায়ী ওই কিশোরীকে খুন করে তাঁর দেহ গাছে ঝুলিয়ে দেয়। পালামু জেলার পুলিশ সুপার সঞ্জীব কুমার বলেন, ‘‌ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে এলে স্পষ্ট হবে যে, ওই কিশোরীকে আগে খুন করে তারপর ধর্ষণ করা হয়েছে কিনা।’‌ তিনি আরও বলেন, ‘‌ পুলিশ সমস্ত সম্ভাব্য দিক ক্ষতিয়ে দেখে তদন্ত করছে।’‌ প্রাথমিক তথ্য প্রমাণে স্পষ্ট হয়েছে যে, ওই কিশোরীর এক যুবকের সঙ্গে প্রণয়ের সম্পর্কে জড়িয়ে ছিল। ওই কিশোরীর পরিবার এর তীব্র বিরোধিতা করেছিল। কয়েক দিন আগে কিশোরীর পরিবার ও ওই যুবকের মধ্যে ঝগড়াও হয় বলে জানা গিয়েছে। এর পরেই ওই কিশোরী নিখোঁজ হয়ে যায়।

বন্ধ করুন