বাড়ি > ঘরে বাইরে > অর্ণব গোস্বামীকে জেরার জন্য ১০ জুন থানায় হাজিরার নির্দেশ বম্বে হাই কোর্টের
অর্ণব গোস্বামীর মন্তব্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে ঘৃণা উসকে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
অর্ণব গোস্বামীর মন্তব্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে ঘৃণা উসকে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

অর্ণব গোস্বামীকে জেরার জন্য ১০ জুন থানায় হাজিরার নির্দেশ বম্বে হাই কোর্টের

  • রিপাবলিক টিভি চ্যানেলের প্রধান অর্ণব গোস্বামীর মন্তব্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে ঘৃণা উসকে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

তাঁর বিরুদ্ধে দাখিল করা জোড়া এফআইআর সংক্রান্ত পুলিশের প্রশ্নের জবাব দিতে আগামী ১০ জুন রিপাবলিক টিভি চ্যানেল প্রধান অর্ণব গোস্বামীকে নির্দেশ দিল বম্বে হাই কোর্ট। 

অর্ণবের বিরুদ্ধে গত ২২ এপ্রিল ও ২ মে মুম্বইয়ের এন এম জোশি মার্গ থানা ও পাইধোনি থানায় এফআইআর দায়ের হয়। দু’টি এফআইআর বাতিল করার আবেদন নিয়ে বম্বে হাই কোর্টের দ্বারস্থ হন টিভি চ্যানেল কর্তা। ওই আবেদনের শুনানি শুক্রবার ধার্য করেছে আদালত।

মঙ্গলবার হাই কোর্টে বিচারপতি উজ্জ্বল ভুঁইয়া এবং বিচারপতি রিয়াজ চাগলার বেঞ্চকে অর্ণবের আইনজীবী মাধবী দোশি তাঁর মক্কেলের বিরুদ্ধে করা জোড়া এফআইআর বাতিলের আবেদন জানান। ১৪ এপ্রিল বান্দ্রা স্টেশনে পরিযায়ী শ্রমিকদের প্রতিবাদ সম্পর্কে করা ওই টিভি চ্যানেলের সংবাদ সংক্রান্ত অভিযোগ দায়ের হয় অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে। 

আদালতকে আইনজীবী দোশি বলেন, বিষয়টি বিচারাধীন থাকা সত্ত্বেও তাঁর মক্কেল পাইধোনি থানায় ১০ জুন সকাল ১১টায় তাঁর বিরুদ্ধে করা অভিযোগের জেরায় হাজিরা দেওয়ার জন্য নোটিশ পেয়েছেন। মামলার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত অর্ণব গোস্বামীকে থানায় হাজিরা দেওয়া থেকে অব্যাহতি দিতে আদালতের কাছে আর্জি জানান তাঁর আইনজীবী। 

অন্য দিকে সরকার পক্ষের কৌঁসুলি দীপক থ্যাকারে এবং অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর এস আর শিন্ডে জানান যে অর্ণবের বিরুদ্ধে করা দুটি অভিযোগই সংবেদনশীল এবং সেই কারণেই তাঁকে থানায় হাজিরা দিতে পাঠানো হোক। 

দুই পক্ষের আইনজীবীদের সওয়াল শোনার পরে হাই কোর্টের বেঞ্চ অর্ণব গোস্বামীকে পাইনি থানার পরিবর্তে এন এম জোশি থানায় জেরার জন্য হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেয়। এর পর মামলাটি আগামী ১২ জুন পরবর্তী শুনানির জন্য নির্ধারিত করে আদালত। 

বান্দ্রা রেল স্টেশনের বাইরে পরিযায়ী শ্রমিকদের প্রতিবাদ কেন্দ্র করে রিপাবলিক টিভি চ্যানেলের প্রধান অর্ণব গোস্বামীর মন্তব্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে ঘৃণা উসকে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। পাইধোনি থানায় দায়ের করা এফআইআর-এ বলা হয়েছে, ওই দিনের ঘটনায় উদ্দেশ্যপ্রণোদিত স্টেশনের বাইরে থাকা মসজিদকে নিশানা করেন এই সাংবাদিক। যদিও শ্রমিকদের প্রতিবাদের সঙ্গে মসজিদের কোনও যোগ ছিল না। 

এই বিষয়ে পরে হিন্দুস্তান টাইমস-এর তরফে আইনজীবী মাধবী দোশির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ব্যস্ততার কারণ দর্শিয়ে কথা বলতে রাজি হননি।  

বন্ধ করুন