বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > CAA: বাংলাদেশি হিন্দুদের 'সাহায্যে আসবে না' সিএএ! ঢাকার ধর্মীয়সভা থেকে বার্তা পূজা পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্টের
সিএএ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ বাংলাদেশের পূজা পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্টের। প্রতীকী ছবি।

CAA: বাংলাদেশি হিন্দুদের 'সাহায্যে আসবে না' সিএএ! ঢাকার ধর্মীয়সভা থেকে বার্তা পূজা পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্টের

  • বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলা মিলিয়ে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের বৈঠক ছিল সদ্য। সেখানে পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্ট মণীন্দ্র কুমার নাথ বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, শেখ হাসিনার সরকার সংখ্যালঘুদের প্রতি অনেকটাই দরদী। বাংলাদেশে যেভাবে মন্দিরের ওপর হামলা হয়েছে তার নিরিখে শেখ হসিনা সরকার অনেকটাই নিরাপত্তা দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন মণীন্দ্র কুমার নাথ।

রেজাউল এল লস্কর

ভারতে যখন ধর্মীয় কারণে চরম অশান্তি দেখা যাচ্ছে, তখন বাংলাদেশের বুকে ঢাকা থেকে সিএএ নিয়ে বক্তব্য রাখলেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্ট মণীন্দ্র কুমার নাথ। প্রসঙ্গত, পয়গম্বরকে নিয়ে নুপূর শর্মার বক্তব্য প্রসঙ্গে ইতিমধ্যেই উত্তেজনা দেখা গিয়েছে বাংলাদেশেও। সেখানেও জামাত-এ-ইসলামির তরফে বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ করা হয়েছে।

বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলা মিলিয়ে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের বৈঠক ছিল সদ্য। সেখানে পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্ট মণীন্দ্র কুমার নাথ বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, শেখ হাসিনার সরকার সংখ্যালঘুদের প্রতি অনেকটাই দরদী। বাংলাদেশে যেভাবে মন্দিরের ওপর হামলা হয়েছে তার নিরিখে শেখ হসিনা সরকার অনেকটাই নিরাপত্তা দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন মণীন্দ্র কুমার নাথ। বাংলাদেশে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে ভারতীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, 'আমরা সিএএকে স্বাগত জানাচ্ছি না। এমন আইনের পক্ষে আমরা নই। এতে বাংলাদেশি হিন্দুদের কোনও সাহায্য হবে না।' উল্লেখ্য, বাংলাদেশের হিন্দু-বুদ্ধিস্ট-খ্রিস্টান কমিউনিটি কাউন্সিলের যুগ্ম সম্পাদ মণীন্দ্র নাথ। তিনি বলছেন, 'বাংলাদেশের কূটনৈতিক মহলে হিন্দুদের প্রতিনিধিত্ব বেড়েছে। তবে আমাদের একটি সংখ্যালঘু মন্ত্রক প্রয়োজন।' এছাড়াও সিএএ প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, 'বাংলাদেশ আমাদের জন্মভূমি। আমরা এখানেই থাকব। আর আমাদের সমস্যাও এখানেই মিটিয়ে নেব।'

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে ধর্মীয় বিষয়গুলি সংক্রান্ত সংঘাত দেখভালের জন্য একটি বিশেষ মন্ত্রক রয়েছে। এমনকি সেখানে ধর্মীয় স্থান ভাঙচুরের ক্ষেত্রটিও দেখভাল করে এই মন্ত্রক। এদিকে, যে সিএএ নিয়ে এই বক্তব্য রাখেন মণীন্দ্র নাথ, তা ভারতেও একটা সময় প্রতিবাদের ঝড় বয়ে যায়। এই আইনের আওতায় বাংলাদেশ, আফগানিস্তান, পাকিস্তানের মতো দেশ থেকে আসা সেই দেশগুলির সংখ্যালঘু শরণার্থীদের নাহরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

বন্ধ করুন