বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > প্রধানমন্ত্রী মা–কে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য লাইভ শো–তে, কাঠগড়ায় বিবিসি
মা হীরাবেনের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ফাইল ছবি।
মা হীরাবেনের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ফাইল ছবি।

প্রধানমন্ত্রী মা–কে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য লাইভ শো–তে, কাঠগড়ায় বিবিসি

  • সেই অডিও ক্লিপ এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়েছে।

এবার সরাসরি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মা–কে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করলেন এক ব্যক্তি। সেই অডিও ক্লিপ এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়েছে। যার জেরে হই–হই কাণ্ড শুরু হয়ে গিয়েছে গোটা দেশে। তখন লাইভ অনুষ্ঠান চলছিল টিভি চ্যানেলে। সেখান থেকে অডিও ক্লিপটি সংগ্রহ করা হয়। তারপর তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানটি চলছিল জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম বিবিসি–তে। লাইভে অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মা সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করা হয়। বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে বিবিসি’‌র অনুষ্ঠান ‘‌বিগ ডিবেট’‌। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিবিসি’‌র এই ঘটনা দেখে সরব হয়েছেন নেটিজেনরা।

ওই অনুষ্ঠানে ব্রিটেনে বসবাসকারী শিখ ও ভারতীয়দের বিরুদ্ধে বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ নিয়ে আলোচনা হচ্ছিল। তিন ঘণ্টার ওই অনুষ্ঠানে সঞ্চালক প্রিয়া রাই একাধিক শ্রোতার কাছ থেকে প্রশ্ন করে উত্তর শুনছিলেন। এই প্রশ্নোত্তর পর্ব ফোনে চলছিল। তখনই সাইমন নামে জনৈক এক ব্যক্তি আপত্তিকর ভাষায় আক্রমণ করেন প্রধানমন্ত্রীর মা–কে। আলোচনার মোড় ঘুরে যায় দিল্লিতে গত তিন মাস ধরে চলা কৃষি আইন বিরোধী আন্দোলনের দিকে। যদি পরে এই অনুষ্ঠানটি থেকে বিতর্কিত অংশটুকু বাদ দেওয়া হয় বলে খবর।

বিবিসি’‌র বিগ ডিবেট অনুষ্ঠানের লাইভ শোয়ের মধ্যে সাইমন নামে ওই ব্যক্তি ফোন করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মা সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করতে থাকেন। তবে অভিযোগ উঠেছে, সঞ্চালক ওই ব্যক্তির কথার প্রতিবাদ করেননি। এমনকী তাঁকে থামাননি। যা নিয়ে বিস্তর বিতর্ক দেখা দিয়েছে। এই পরিস্থিতির ড্যামেজ কন্ট্রোল করা যাচ্ছে না। তারপরই ওই অনুষ্ঠানের অডিও ক্লিপ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট হতেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন ওই ফোনটি কেন কেটে দেওয়া হল না?‌ যদিও পরে অনুষ্ঠানের সঞ্চালিকা এই ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন।

সঞ্চালিকা ক্ষমা চেয়ে বলেন, ‘‌আমরা ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি যে, এমন আপত্তিকর মন্তব্য একজন অতিথি করেছেন বলে। তখন লাইভ শো চলছিল। আর আমরা বিতর্কিত বিষয় নিয়ে আলোচনা করছিলাম। তবে যে ভাষা ব্যবহার করা হয়েছিল তার জন্য আমি দুঃখিত।’‌ টুইটারে এই অডিও ক্লিপটি দেওয়া হয় ব্রিটিশ ইন্ডিয়া ভয়েস বলে। আর তা ছড়িয়ে পড়তেই টুইটারে হ্যাশট্যাগ দিয়ে ব্যান বিবিসি, বয়কট বিবিসি বলে তোলপাড় হয়ে যায়।

বন্ধ করুন