বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল যে আত্মসমর্পণ করা ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না পাকিস্তানের'
বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী বর্ষ উদযাপিত হচ্ছে আজ। ১৯৭১ সালের সেই ঐতিহাসিক চুক্তি স্বাক্ষর (সৌজন্য টুইটার)। ইনসেটে ক্যাপ্টেন (আইএন) তাপস সান্যাল।

'এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল যে আত্মসমর্পণ করা ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না পাকিস্তানের'

  • ক্যাপ্টেন (আইএন) তাপস সান্যালের কথায়, “এই যুদ্ধ আমাদের কাছে খুব ইন্সপায়ারিং। যখন সেনাবাহিনীর কাজ শিখলাম তখন বুঝতে পেরেছিলাম কি অসাধারণ কাজ করেছিলেন আমাদের সেনাবাহিনীরা।”

অরুণাভ রাহারায়: আজ সেই ঐতিহাসিক দিন, যেদিন পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধে লড়াই করে জয়ী হয়েছিল ভারত। অনেকে শহিদ হন। অনেক রক্তের বিনিময়ে জয় এসেছিল ভারতের। পাশাপাশি আজই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। পূর্ববঙ্গের মাটিতে উড়েছিল স্বাধীন পতাকা। অনেক বছর পরেও সেই যুদ্ধ আজও স্মরণীয় হয়ে আছে।

ক্যাপ্টেন (আইএন) তাপস সান্যাল হিন্দুস্তান টাইমস বাংলাকে বলেন, "১৯৭১ সালের ইন্দো-পাক যুদ্ধ আমাদের কাছে এখনও একটা স্বপ্নের মতো হয়ে আছে। যখন যুদ্ধের খবর পাই আমারা তখন স্কুলে। অল ইন্ডিয়া রেডিয়োতে খবর শুনতাম। ১৯৭১-এর যুদ্ধে নেভির অবদান খুবই গুরুত্বপূর্ণ। করাচি হারবারে গিয়ে বোম্বিং করে পাকিস্তানের নেভিকে অকেজো করে দেওয়া হয়েছিল।"

তিনি আরও বলেন, "মিসাইল দিয়ে অ্যাটাক করা হয়েছিল। এটা একটা অভূতপূর্ব ব্যাপার। তখন কেউ চিন্তাও করতে পারেনি যে, ছোট ছোট জাহাজ নিয়ে গিয়ে অ্যাটাক করা যায়! ইস্ট জোন একেবারে শত্রুহীন করে দেওয়া হয়েছিল। এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল যে আত্মসমর্পণ করা ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না পাকিস্তানের।"

ক্যাপ্টেন (আইএন) তাপস সান্যালের কথায়, "এই যুদ্ধ আমাদের কাছে খুব ইন্সপায়ারিং। যখন সেনাবাহিনীর কাজ শিখলাম তখন বুঝতে পেরেছিলাম কি অসাধারণ কাজ করেছিলেন আমাদের সেনাবাহিনীরা। ৭১-এর যুদ্ধ আজকের দিনেও আমাদের কাছে একটা গর্বের বিষয়। প্রত্যেক বছর এই দিনটিকে আমরা বিজয় দিবস হিসেবে পালন করি।"

বন্ধ করুন