বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > হোয়াটসঅ্যাপকে ১৪ প্রশ্নের বাউন্সার, নয়া প্রাইভেসি নীতি প্রত্যাহার করতে বলল সরকার
ফাইল ছবি (REUTERS)
ফাইল ছবি (REUTERS)

হোয়াটসঅ্যাপকে ১৪ প্রশ্নের বাউন্সার, নয়া প্রাইভেসি নীতি প্রত্যাহার করতে বলল সরকার

  • কেন ভারতীয়দের জন্য এক নীতি, ইউরোপীয়দের জন্য আলাদা, সেই প্রশ্নও করেছে ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি মন্ত্রক

হোয়াটসঅ্যাপের নতুন প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে এবার সংস্থাকে চিঠি লিখল ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি মন্ত্রক। মার্ক জুকারবার্গের সংস্থা যে নতুন গোপনীয়তা নীতি নিয়ে এসেছে সেই নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে কেন্দ্র। এই নীতিকে প্রত্যাহার করার আর্জি জানিয়েছে সরকার। 

তথ্য নিরাপত্তা ও ভারতীয়দের গোপনীয়তা রক্ষা করতে হোয়াটসঅ্যাপের কাছে আর্জি জানিয়েছে সরকার। একই সঙ্গে ১৪টি প্রশ্ন করা হয়েছে সংস্থার কাছ থেকে। এর মধ্যে রয়েছে ঠিক কী তথ্য জোগাড় করা হচ্ছে, কী কী অ্যাপের বিষয় অনুমতি নেওয়া হচ্ছে ইউজারদের থেকে ও সেগুলি দিয়ে কী করা হচ্ছে সেই নিয়ে। অন্যান্য দেশের সঙ্গে ভারতের ক্ষেত্রে হোয়াটসঅ্যাপের প্রাইভেসি পলিসির কী ফারাক আছে, সেই নিয়েও প্রশ্ন করেছে সরকার। 

এদিন মন্ত্রকের লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে যে নয়া পলিসি অনুযায়ী যেভাবে বিজনেস অ্যাকাউন্টের সঙ্গে হওয়া তথ্য ফেসবুক কোম্পানিদের দেওয়ার কথা চলছে তাহলে কার্যত হোয়াটসঅ্যাপ ও ফেসবুকের মধ্যে কোনও ফারাক থাকবে না। এই দুটি জনপ্রিয় অ্যাপ যত সংখ্যক ভারতীয় ব্যবহার করেন, সেগুলি এক জায়গায় হলে নিরাপত্তা সংক্রান্ত ঝুঁকি আরও বাড়বে। কোনও ভাবে পলিসি না মানার যে বিকল্প নেই, সেটারও সমালোচনা করা হয়েছে। এর ফলে হোয়াটসঅ্যাপ যারা ব্যবহার করেন, তাদের কাছে কোনও বিকল্প থাকবে না বলে জানায় মন্ত্রক। যেভাবে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও ভারতে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকর্তাদের জন্য আলাদা পলিসি আছে, সেই নিয়েও অসন্তুষ্ট মন্ত্রক। ভারতীয়দের গোপনীয়তার অধিকার সম্বন্ধে কী হোয়াটসঅ্যাপ সচেতন নয়, সেই প্রশ্নও করেছে মোদী সরকার। 

বন্ধ করুন