বাড়ি > ঘরে বাইরে > মুদ্রাস্ফীতিতে লাগাম দেওয়াই বাজেটে মোদী সরকারের কঠিন চ্যালেঞ্জ
মুদ্রাস্ফীতিতে লাগাম দেওয়াই বড় চ্যালেঞ্জ নরেন্দ্র মোদী সরকারের।
মুদ্রাস্ফীতিতে লাগাম দেওয়াই বড় চ্যালেঞ্জ নরেন্দ্র মোদী সরকারের।

মুদ্রাস্ফীতিতে লাগাম দেওয়াই বাজেটে মোদী সরকারের কঠিন চ্যালেঞ্জ

  • ২০১৩ সালের পরে সবচেয়ে শ্লথ অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার নিয়ে হিমশিম নরেন্দ্র মোদী সরকার। সেই সঙ্গে রয়েিক আমেরিকা-ইরান দ্বৈরথের জেরে লাগামছাড়া জ্বালানির দাম, যা ভারতের যাবতীয় অর্থনৈতিক হিসেব গুলিয়ে দিতে পারে।

কেন্দ্রীয় বাজেটে মুদ্রাস্ফীতিতে লাগাম দেওয়াই বড় চ্যালেঞ্জ নরেন্দ্র মোদী সরকারের। ফেব্রুয়ারি মাসে আর্থিক কমিটির বৈঠকে তার সমাধান খুঁজতে হবে রিজার্ভ ব্যাঙ্ককে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এর জেরে সম্পূর্ণ অপ্রচলিত ক্ষুদ্র অর্থনৈতিক প্রেক্ষিতে বাজেট পেশ করতে হতে পারে কেন্দ্রকে। রাজনৈতিক স্তরে যা আদৌ স্বস্তি দিচ্ছে না সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী প্রতিবাদ মোকাবিলায় ব্যস্ত কেন্দ্রীয় প্রশাসনকে।

তার উপরে, ২০১৩ সালের পরে সবচেয়ে শ্লথ অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার নিয়েও হিমশিম নরেন্দ্র মোদী সরকার। সেই সঙ্গে রয়েছে সাম্প্রতিক আমেরিকা-ইরান দ্বৈরথের জেরে লাগামছাড়া জ্বালানির দাম, যা ভারতের যাবতীয় অর্থনৈতিক হিসেব-নিকেশ গুলিয়ে দিতে পারে।

২০১৪ সালের পরে খুচরো মুদ্রাস্ফীতির হার বর্তমানে উর্ধ্বগামী। সামনেই দিল্লি বিধানসভা নির্বাচন। নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহদের অবশ্যই স্মরণে রয়েছে, একদা পেঁয়াজের দাম চড়ার দরুণ দিল্লি হাতছাড়া হয়েছিল কংগ্রেসেরও।

এমন পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতি চাঙ্গা করতে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের আর্থিক নীতি প্রকরণ কমিটি কী পদক্ষেপ করে, তার অপেক্ষায় রয়েছে অর্থনৈতিক মহল। ২০১৯ সালে ১৩৫ বেসিস পয়েন্ট কমানোর পরে গত ডিসেম্বর মাসে সুদের হার কমিয়ে সাময়িক স্বস্তি দিয়েছিল শীর্ষ ব্যাঙ্ক। তবে বৃদ্ধির হাল ফেরাতে সুদের হার আরও কমানোর চাপ রয়েছে আরবিআই-এর উপরে।

বর্তমানে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের স্বস্তির মাত্রা ছাপিয়ে গিয়েছে মুদ্রাস্ফীতির হার। জানা গিয়েছে, মুদ্রাস্ফীতির পিছনে প্রধান ভূমিকা রয়েছে খাদ্যদ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি এবং টেলিকম যোগাযোগ ব্যবস্থায় পরিষেবা সরবরাহকারী সংস্থাগুলির রেট বাড়ানোর সিদ্ধান্ত। পাশাপাশি, পেঁয়াজ, রসুন, টম্যাটো ও ডালের লাগাতার দাম বাড়াও মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে মোদী সরকারের। দাম বেড়েছে পশুখাদ্য, মাংস ও ডিমেরও।জানুয়ারি মাসের হিসেব পর্যবেক্ষণ করার পরে মুদ্রাস্ফীতি রুখতে কী টোটকা দেন কেন্দ্রের অর্থনৈতিক উপদেষ্টামণ্ডলী, তার উপরেই অনেকটা নির্ভর করছে আগামী বাজেটের খসড়া।

বন্ধ করুন