বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'দাঙ্গায় উসকানি', বিজেপি সাংসদ ও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর পুত্রের বিরুদ্ধে অভিযোগ
গত মঙ্গলবার এভাবেই অশান্তি ছড়িয়েছিল এলাকায়. (Twitter/ChhattisgarhBJP) (HT_PRINT)
গত মঙ্গলবার এভাবেই অশান্তি ছড়িয়েছিল এলাকায়. (Twitter/ChhattisgarhBJP) (HT_PRINT)

'দাঙ্গায় উসকানি', বিজেপি সাংসদ ও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর পুত্রের বিরুদ্ধে অভিযোগ

  • পুলিশ জানিয়েছে এখনও পর্যন্ত দাঙ্গা বাঁধানোর অভিযোগে ৯৫জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ছত্তিশগড়ে দাঙ্গা বাঁধানোর চেষ্টার অভিযোগ বিজেপি সাংসদ সন্তোষ পান্ডে ও প্রাক্তন বিজেপি সাংসদ অভিষেক সিংয়ের বিরুদ্ধে উঠেছে। গত বুধবার কাওর্ধাতে অশান্তির পাশাপাশি সম্পত্তি ভাঙচুরের অভিযোগও উঠেছিল। এসপি মোহিত গর্গ হিন্দুস্তান টাইমসকে জানিয়েছেন, প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে,  মঙ্গলবারের অশান্তির নেপথ্যে একাধিক হিন্দু সংগঠনের সঙ্গেই পান্ডে ও সিংয়েরও হাত থাকতে পারে। তদন্ত চলছে। তবে এই ঘটনার সংবেদনশীলতার জন্য় এফআইআরকে প্রকাশ্য়ে আনা হচ্ছে না। পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে দক্ষিণপন্থী ওই সংগঠনের প্রতিবাদ কর্মসূচিতে পাণ্ডে ও সিং উভয়ই হাজির ছিলেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গিয়েছে। এদিকে পুলিশ জানিয়েছে এখনও পর্যন্ত দাঙ্গা বাঁধানোর অভিযোগে ৯৫জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

ঠিক কী হয়েছিল মঙ্গলবার? স্থানীয় সূত্রে খবর,  একটি ধর্মীয় সংগঠনের পতাকা জোর করে খুলে ফেলার অভিযোগকে কেন্দ্র করে দুটি গোষ্ঠীর মধ্যে ঝামেলা বেঁধে যায়। এই অশান্তির জেরে তিনজন পুলিশকর্মী সহ কয়েকজন জখম হয়েছিলেন। আসলে রবিবার থেকেই অশান্তির সূত্রপাত। লাহোরা চক এলাকা থেকে ধর্মীয় পতাকা সরিয়ে দেওয়াকে কেন্দ্র করেই দুই গোষ্ঠীর মধ্যে অশান্তি বেঁধে যায়। এদিকে মঙ্গলবার একটি দক্ষিণপন্থী সংগঠনের তরফে প্রতিবাদ কর্মসূচির আহ্বান করা হয়েছিল। ওই মিছিলটি যখন অপর গোষ্ঠীর এলাকায় ঢুকে পড়ে তখনই অশান্তি বেঁধে যায়। এরপরই বাইক জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। একাধিক বাড়িতেও ভাঙচুর করা হয়। সব মিলিয়ে অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছিল এলাকা। এরপরই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংয়ের পুত্র অভিষেক সিং ও সন্তোষ পাণ্ডের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে। 

 

ছত্তিশগড়ে দাঙ্গা বাঁধানোর অভিযোগ উঠেছে বিজেপি সাংসদ সন্তোষ পান্ডে ও প্রাক্তন বিজেপি সাংসদ অভিষেক সিংয়ের বিরুদ্ধে উঠেছে। গত বুধবার কাওর্ধাতে অশান্তির পাশাপাশি সম্পত্তি ভাঙচুরের অভিযোগও উঠেছিল। এসপি মোহিত গর্গ হিন্দুস্তান টাইমসকে জানিয়েছেন, প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে,  মঙ্গলবারের অশান্তির নেপথ্যে একাধিক হিন্দু সংগঠনের সঙ্গেই পান্ডে ও সিংয়েরও হাত থাকতে পারে। তদন্ত চলছে। তবে এই ঘটনার সংবেদনশীলতার জন্য় এফআইআরকে প্রকাশ্য়ে আনা হচ্ছে না। পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে দক্ষিণপন্থী ওই সংগঠনের প্রতিবাদ কর্মসূচিতে পাণ্ডে ও সিং উভয়ই হাজির ছিলেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গিয়েছে। এদিকে পুলিশ জানিয়েছে এখনও পর্যন্ত দাঙ্গা বাঁধানোর অভিযোগে ৯৫জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

একটি ধর্মীয় সংগঠনের পতাকা জোর করে খুলে ফেলার অভিযোগকে কেন্দ্র করে দুটি গোষ্ঠীর মধ্যে ঝামেলা বেঁধে যায়। এই অশান্তির জেরে তিনজন পুলিশকর্মী সহ কয়েকজন জখম হয়েছিলেন। আসলে রবিবার থেকেই অশান্তির সূত্রপাত। লাহোরা চক এলাকা থেকে ধর্মীয় পতাকা সরিয়ে দেওয়াকে কেন্দ্র করেই দুই গোষ্ঠীর মধ্যে অশান্তি বেঁধে যায়। এদিকে মঙ্গলবার একটি দক্ষিণপন্থী সংগঠনের তরফে প্রতিবাদ কর্মসূচির আহ্বান করা হয়েছিল। তখনই ওই মিছিলটি যখন অপর গোষ্ঠীর এলাকায় ঢুকে পড়ে তখনই অশান্তি বেঁধে যায়। এরপরই বাইক জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। একাধিক বাড়িতেও ভাঙচুর করা হয়। সব মিলিয়ে অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছিল এলাকা। এরপরই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংয়ের পুত্র অভিষেক সিং ও সন্তোষ পাণ্ডের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে। 

|#+|

 

 

 

 

 

বন্ধ করুন