বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > অনুমতি ছাড়া ভারতীয় জলসীমায় চিনা ভেসেল, হঠিয়ে দিল নৌবাহিনী
ছবিটি প্রতীকী (টুইটার @indiannavy)
ছবিটি প্রতীকী (টুইটার @indiannavy)

অনুমতি ছাড়া ভারতীয় জলসীমায় চিনা ভেসেল, হঠিয়ে দিল নৌবাহিনী

  • সমুদ্রের আইন সংক্রান্ত রাষ্ট্রপুঞ্জের সনদ অনুযায়ী, যে কোনও দেশেবিশেষ অর্থনৈতিক এলাকা (এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোন বা ইইজেড) উপকূল থেকে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত বিস্তৃত।

NAVY DAY : বিনা অনুমতিতে ভারতের জলসীমায় প্রবেশ করেছিল একটি চিনা গবেষণামূলক ভেসেল। সেটিকে হঠিয়ে দিয়েছে ভারতীয় নৌবাহিনী। আজ একথা জানান নৌপ্রধান অ্যাডমিরাল করমবীর সিং।

নৌবাহিনী দিবসের আগে সাংবাদিক বৈঠকে নৌ-প্রধান বলেন, "আমাদের নীতি হল, আমাদের বিশেষ অর্থনৈতিক এলাকায় (এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোন বা ইইজেড) কোনও কাজ করার আগে আমাদের জানাতে হবে ও অনুমতি নিতে হবে।"

গত সেপ্টেম্বরে পোর্ট ব্লেয়ারের কছে শি ইয়ান ১ নামের ভেসেলটি কিছু কাজ করছিল। সেই সময় সেটিকে হঠিয়ে দেওয়া হয়। নৌ-প্রধান জানান, ভারতীয় মহাসাগরীয় অঞ্চলে চিনা উপস্থিতির উপর নজরদারি চালানো হয়। তাঁর কথায়, "ওদের গভীর সমুদ্রে খননের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সেখানে চিনের সমুদ্রবিজ্ঞান গবেষণার ভেসেল রয়েছে। যে কোনও সময় সেখানে সাত-আটটি চিনা ভেসেল থাকে। এছাড়া নিরাপত্তার দেখভালের জন্যও ভেসেল থাকে।"

সমুদ্রের আইন সংক্রান্ত রাষ্ট্রপুঞ্জের সনদ অনুযায়ী, যে কোনও দেশের বিশেষ অর্থনৈতিক এলাকা (এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোন বা ইইজেড) উপকূল থেকে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত বিস্তৃত। সেই এলাকার মধ্যে গবেষণা চালানো, নতুন কিছু অন্বেষণের যাবতীয় ক্ষমতা রয়েছে সংশ্লিষ্ট দেশের।

এদিকে, আগামী বছর পূর্ব উপকূলে বহুদেশের সঙ্গে নৌমহড়া চালাবে ভারতীয় নৌবাহিনী। সেজন্য ৪১টি দেশকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও তালিকায় নেই চিন। নৌপ্রধান জানান, ভারতের মতো চিন্তাধারা সম্পন্ন দেশকেই শুধুমাত্র আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। তিনি বলেন, "চিনের নৌবাহিনীর সঙ্গে আমরা দ্বি-পাক্ষিক মহড়াও করিনি।"

নৌপ্রধান জানান, আধুনিকীকরণের জন্য বাহিনীর আরও অর্থ লাগবে। কারণ গত পাঁচ বছরে দেশের প্রতিরজ্ঞা বাজেটে নৌবাহিনীর বরাদ্দ ১৮ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৩ শতাংশ করা হয়েছে। অতিরিক্ত অর্থের বিষয়টি ইতিমধ্যে কেন্দ্রের কানে তোলা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বন্ধ করুন