বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ৫,৫০০ টাকার গিফট আনুন, নাহলে বিয়েবাড়িতে ঢোকা যাবে না, নেমতন্ন বর-কনের!
ফাইল ছবি : অবিশ্বাস্য মনে হলেও এমনটাই করেছেন এক মার্কিন দম্পতি। সেই ই-মেলই ভাইরাল হয়েছে টুইটারে।  ছবি : ইনস্টাগ্রাম (Instagram )
ফাইল ছবি : অবিশ্বাস্য মনে হলেও এমনটাই করেছেন এক মার্কিন দম্পতি। সেই ই-মেলই ভাইরাল হয়েছে টুইটারে।  ছবি : ইনস্টাগ্রাম (Instagram )

৫,৫০০ টাকার গিফট আনুন, নাহলে বিয়েবাড়িতে ঢোকা যাবে না, নেমতন্ন বর-কনের!

তবে শুধু উপহার আনাই নয়। রয়েছে আরও নিয়মাবলী।

ধরুন আপনাকে কেউ তাঁদের বিয়েতে নিমন্ত্রণ করলেন। এদিকে বলে দিলেন, 'আসতে হলে অন্তত সাড়ে ৫ হাজার টাকার গিফট আনবেন।' কেমন লাগবে? অবিশ্বাস্য মনে হলেও এমনটাই করেছেন এক মার্কিন দম্পতি। সেই ই-মেলই ভাইরাল হয়েছে টুইটারে।

ই-মেল অবশ্য তাঁরা নিজেরা করেননি। তাঁদের ওয়েডিং প্ল্যানার করেছেন। তবে, তিনি যে হবু দম্পতির অজান্তে এমনটা করবেন না, তা বলাই যায়।

ই-মেলের স্ক্রিনশট। ছবি : টুইটার 
ই-মেলের স্ক্রিনশট। ছবি : টুইটার  (Twitter)

তবে শুধু উপহার আনাই নয়। রয়েছে আরও নিয়মাবলী। যেমন ড্রেস কোড। এখনকার কিছু কিছু বিয়েতে এদেশেও অবশ্য ড্রেস কোড থাকে। ডেকরেশন বা থিমের সঙ্গে ম্যাচ করে কোনও রঙ পরে আসতে অনুরোধ করা হয় অতিথিদের। এতে ছবিও ভালো ওঠে। এক্ষেত্রেও বলে দেওয়া হয়েছে যে সাদা, ক্রিম বা আইভরি রঙ যাতে কেউ পরে না আসেন।

কিন্তু আরও এক ধাপ এগিয়ে বলা হয়েছে যে, শুধুমাত্র পনিটেল বা সাধারণ বব হেয়ারস্টাইল করা যাবে। আবার বিয়েতে এক মুখ মেকআপ করে আসা যাবে না। বিয়ের অনুষ্ঠান শুরুর অন্তত ১৫-৩০ মিনিট আগে আসার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু বিয়েবাড়িতে পৌঁছেই ছবি তুলে পোস্ট করা বা ফেসবুকে চেক-ইন করা যাবে না। অনুমতি মিললে তখনই নির্দিষ্ট হ্যাশট্যাগ দিয়ে পোস্ট করতে হবে বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

সবচেয়ে অদ্ভুত বিষয় হল, কনের সঙ্গে একেবারেই কথা বলতে বারণ করা হয়েছে এই মেইল-এ। সব শেষে কোনও প্রশ্ন থাকলে সরাসরি ফোন করতেও বলা হয়েছে এই ই-মেলে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে এই আজব গাইডলাইন। অনেকেই বলছেন, 'এমন বিয়েবাড়ি যাওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই, অত্যন্ত অপমানজনক।' আবার অনেকে বলছেন, 'হুটহাট করে ছবি তুলে পোস্ট করা সত্যিই অনুচিত।' আপনি এমন নেমন্তন্ন পেলে কী করতেন? যেতেন এমন বিয়েবাড়িতে?

বন্ধ করুন