বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'শিশুরা মারা যাচ্ছিল, ডিনার চলতে থাকল', হাসপাতলে আগুন নিয়ে দাবি কংগ্রেসের
সন্তানদের সুরক্ষিত জায়গায় নিয়ে যাচ্ছেন অভিভাবকরা। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
সন্তানদের সুরক্ষিত জায়গায় নিয়ে যাচ্ছেন অভিভাবকরা। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

'শিশুরা মারা যাচ্ছিল, ডিনার চলতে থাকল', হাসপাতলে আগুন নিয়ে দাবি কংগ্রেসের

  • ভোপালের কমলা নেহরু হাসপাতালের শিশু বিভাগে অগ্নিকাণ্ডে চারজনের মৃত্যু হয়েছে।

রাত ন'টা নাগাদ আগুন লেগেছিল। আটটা থেকে সব মন্ত্রীরা মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনে জয়ের জন্য একে অপরকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছিলেন। ঘটনাস্থলে না গিয়ে খাবার খাচ্ছিলেন। ভোপালের কমলা নেহরু হাসপাতালের শিশু বিভাগে অগ্নিকাণ্ডের পর এমনই দাবি করলেন কংগ্রেস নেতা নরেন্দ্র সালুজা।

টুইটারে প্রদেশ কংগ্রেসের মুখপাত্র লেখেন, 'মধ্যপ্রদেশের রাজধানী ভোপালের কমলা নেহরু হাসপাতালের শিশু বিভাগে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তিন নিষ্পাপ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। কয়েকজন আহত হয়েছে। রাত ন'টার আশপাশে ঘটনাটি হয়েছে। রাত আটটা থেকে মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনে সব মন্ত্রীরা একে অপরকে শুভোচ্ছা জানাচ্ছিলেন।' সঙ্গে বলেন, 'মোদীজির ভোপাল সফলের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করছিলেন। তারপর ডিনার নিয়ে চর্চা করছিলেন। আর কিছূটা দূরেই এই দুঃখজনক ঘটনা ঘটল। শুধুমাত্র মন্ত্রী বিশ্বাস সারঙ্গ ঘটনাস্থলে পৌঁছেছিলেন। এই দুঃখজনক ঘটনায় তাঁদের মনে যদি প্রভাব পড়ত এবং ডিনার না করেই বা তার পরে সেখানে পৌঁছে যেতেন।' তাঁর অভিযোগ, 'ঘটনার দিন মন্ত্রীরা ঘটনাস্থলে যাওয়ার পরিবর্তে খাচ্ছিলেন।'

সোমবার রাতের দিকে ভোপালের হাসপাতালের তৃতীয় তলের শিশু বিভাগে আগুন লেগে যায়। দ্রুত ঘটনাস্থলে আসে দমকলের ১২ টি ইঞ্জিন। কিছুক্ষণের মধ্যে নিয়ন্ত্রণে আসে আগুন।অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন শিশুদের পরিজনরা। তাঁরা হাসপাতালের ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করেন। তাঁদের নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। প্রাথমিকভাবে একাধিক টুইটবার্তায় মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান বলেন, ‘ভোপালের কমলা নেহরু হাসপাতালের শিশু বিভাগে আগুনের ঘটনা দুঃখজনক। দ্রুত উদ্ধারকাজ শুরু করা হয়। ঘটনায় উচ্চপর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত করবেন এসিএস (পাবলিক হেলথ অ্যান্ড মেডিকেল এডুকেশন) মহম্মদ সুলেমান)।’ সেইসঙ্গে তিনি যোগ বলেন, ‘আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা গিয়েছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত তিন শিশুর মৃত্যু হয়েছে। যারা গুরুতর অসুস্থ ছিল।’ আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনাও করেছেন তিনি। পরে অবশ্য সরকারের তরফে জানানো হয়, চার শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের পরিবারপিছু চার লাখ আর্থিক সাহায্যের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

বন্ধ করুন