চিনের কারাগারে করোনাভাইরাস হানায় সংক্রামিত হয়েছেন ২২০ জন।
চিনের কারাগারে করোনাভাইরাস হানায় সংক্রামিত হয়েছেন ২২০ জন।

এবার চিনের কারাগারে করোনার হানা, আক্রান্ত ২২০ জন

  • দু’টি কারাগারে বর্তমানে ২২০ জন বন্দি এবং পুলিশকর্মী ভয়াবহ সংক্রমণের শিকার হয়েছেন। বৃহস্পতিবার মাঝরাত পর্যন্ত পাওয়া হিসেব অনুযায়ী, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চিনে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে মোট ২,২৩৯ জনের।

নোভেল করোনাভাইরাসের হানা এবার চিনের কারাগারেও। দু’টি কারাগারে বর্তমানে ২২০ জন বন্দি এবং পুলিশকর্মী ভয়াবহ সংক্রমণের শিকার হয়েছেন। এ দিকে, বৃহস্পতিবার মাঝরাত পর্যন্ত পাওয়া হিসেব অনুযায়ী, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চিনে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে মোট ২,২৩৯ জনের।

দু’টি কারাগারে করোনাভাইরাস (covid-19) সংক্রমণের খবরে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে দেশের অন্যান্য বন্দিশালাগুলিতেও, যার মধ্যে অন্যতম শিংজিয়াং উইঘুর অঞ্চলের জেলও।

চিনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের রিপোর্ট বলছে, বর্তমানে মারণভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৭৫,৫০০। বৃহস্পতিবার রাতারাতি ১২০টির বেশি মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। চব্বিশ ঘণ্টা আগে covid-19 সংক্রমণের নতুন খবর মিলেছে ৪৯৫টি।

গত ডিসেম্বর থেকে মহামারীর রূপ ধারণ করা করোনাভাইরাস সংক্রমণে পূর্ব চিনের শ্যানডং প্রদেশের জিনিং শহরের রেনচেং কারাগারে কমপক্ষে ২০৭ জন বন্দি ও পুলিশকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। ঘটনার জেরে বরখাস্ত করা হয়েছে ওই প্রদেশের বিচার বিভাগের শীর্ষ আধিকারিক তথা চিনা কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষস্থানীয় নেতা জি ওয়েইজুন।

এ ছাড়া, পূর্ব চিনের ঝেইজিয়াং প্রদেশের কারাগার থেকে অন্তত ২৭টি সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে।

গত ১৩ ফেব্রুয়ারি রেনচেং জেলের এক পুলিশ আধিকারিকের শরীরে প্রথম পাওয়া যায় করকোনাভাইরাসের উপস্থিতি। কিছু দিনের মধ্যেই আরও দুই আধিকারিক এই ভাইরাসে সংক্রামিত হন। এরপর কাকরাগারের ভিতরে দ্রুত হারে ছড়িয়ে পড়ে জীবাণু।

ঘটনার জেরে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে করোনাভাইরাস আক্রান্ত পুলিশ আধিকারিকদের একটি হোটেলে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রাখা হয়। সংক্রমণ রুখতে বন্দিদের আলাদা সেলে রাখার ব্যবস্থাও হয়েছে।

বন্ধ করুন