বাড়ি > ঘরে বাইরে > Kerala Coronavirus update: কোয়ারেন্টাইন পর্বের পরেও দেখা যাচ্ছে উপসর্গ
লকডাউন কবলিত কোচি শহরে পথচারীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছেন মাস্ক পরিহিত পুলিশকর্মীরা। ছবি: পিটিআই। (PTI)
লকডাউন কবলিত কোচি শহরে পথচারীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছেন মাস্ক পরিহিত পুলিশকর্মীরা। ছবি: পিটিআই। (PTI)

Kerala Coronavirus update: কোয়ারেন্টাইন পর্বের পরেও দেখা যাচ্ছে উপসর্গ

দুবাই থেকে ফেরা কান্নুরের এক বাসিন্দার দেহে ২৬ দিন পরে করোনা উপসর্গ দেখা দিয়েছে। সংক্রামিত হওয়ার ২২ দিন পরে Covid-19 উপসর্গ দেখা দিয়েছে পাঠনমথিট্টাবাসী এক ছাত্রীর।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের নিদান দিলেও তা বাড়িয়ে ২৮ দিন পর্যন্ত করায় আখেরে লাভ হয়েছে কেরালার, বলছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। আর তারই জেরে রাজ্যে নতুন সংক্রমণের হার উল্লেখযোগ্য ভাবে হ্রাস পেয়েছে, দেখা গিয়েছে সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানে।

কেরালা সরকার কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ দ্বিগুণ করায় অনেকেই সে সময় প্রশ্ন তুলেছিলেন। জবাবে রাজ্য স্বাস্থ্য মন্ত্রক যুক্তি দিয়েছিল, সংক্রামিত ও সম্ভাব্য সংক্রামিত ব্যক্তিরা যাতে সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত হন, সেই কারণেই নিষেধাজ্ঞা বিধির মেয়াদ প্রলম্বিত করা হয়েছে। রাজ্য প্রশাসন যে সঠিক পদক্ষেপ করেছে তার প্রমাণ মিলেছে সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানে। দেখা গিয়েছে, ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার ১৮ থেকে ২৬ দিন পরে সংক্রামিতের দেহে Covid-19 এর উপসর্গ দেখা দিতে শুরু করেছে।

দুবাই থেকে ফেরা কান্নুরের এক বাসিন্দার দেহে ২৬ দিন পরে করোনা উপসর্গ দেখা দিয়েছে। আবার দিল্লির নিজামুদ্দিনে ধর্মীয় সমাবেশে অংশগ্রহণকারী তবলিঘি জামাত সদস্যদের সঙ্গে একই রেল কামরায় সফর করার সুবাদে সংক্রামিত হওয়ার ২২ দিন পরে Covid-19 উপসর্গ দেখা দিয়েছে পাঠনমথিট্টাবাসী এক ছাত্রীর। কোয়ারেন্টাইন পর্বের শেষ দিকে তাঁর শরীরে সংক্রমণের প্রভাব ধরা পড়ে।

ভাইরাসের খামখেয়ালি আচরণে উদ্বিগ্ন কেরালার স্বাস্থকর্মীরা নিরলস পরিশ্রম করেও রাজ্যের সংক্রমণের হার শূন্যে টেনে নামাতে ব্যর্থ হয়েছেন। মঙ্গলবারও কেরালায় ৮ জন করোনা পজিটিভ রোগীর সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। পাশাপাশি ১৩ জনকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের মোট ৩৮৬ পজিটিভ রোগীর মধ্যে ২১১ জনই জীবাণুমুক্ত হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের দাবি, ৯০% রোগীর ক্ষেত্রে কোয়ারেন্টাইন পর্বের মেয়াদ যথাযথ প্রমাণিত হলেও ১০% রোগীর ক্ষেত্রে রোগের বহিঃপ্রকাশ ঘটছে তার পরে। তবে যে হেতু সব রোগীকেই কড়া নজরদারিতে রাখা হয়েছে, সেই কারণে স্থানীয় সংক্রমণের সম্ভাবনা নেই।

বিদেশ থেকে আসা রাজ্যবাসীকে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে বাড়িতে থাকতে বলা হচ্ছে এবং কোনও উপসর্গ দেখা দিলে অবিলম্বে নমুনা পরীক্ষার পরে রিপোর্ট পজিটিভ হলে তাঁদের সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে পাঠাতে বলা হচ্ছে। গত ৬ এপ্রিল এ ভাবেই রোগ ধরা পড়ে পাঠনমথিট্টার ছাত্রীর, জানিয়েছেন জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক এন শীজা।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অজানা করোনাভাইরাসের প্রভাব জানতে কোনও নির্দিষ্ট প্রতীক্ষা পর্ব মেনে চলা সম্ভব নয়। চিনের উহান শহরে ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার ৩২ দিন পরেও রোগের লক্ষণ জেখা গিয়েছে। এই কারণেই চূড়ান্ত সাবধানতা মেনে চলা অত্যন্ত জরুরি।

বন্ধ করুন