বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > উহানের ল্যাব থেকে সম্ভবত ছড়ায়নি করোনা, বাদুড় থেকে সংক্রমণের সম্ভাবনা কম, মত WHO-এর দলের
উহানের ল্যাব থেকে করোনা ছড়ানোর সম্ভাবনা অত্যন্ত কম, মত WHO-এর দলের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)
উহানের ল্যাব থেকে করোনা ছড়ানোর সম্ভাবনা অত্যন্ত কম, মত WHO-এর দলের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)

উহানের ল্যাব থেকে সম্ভবত ছড়ায়নি করোনা, বাদুড় থেকে সংক্রমণের সম্ভাবনা কম, মত WHO-এর দলের

  • উহানের গবেষণাগার থেকে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার অভিযোগ তুলেছিলেন প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

উহানের গবেষণাগার থেকে সম্ভবত ছড়ায়নি করোনাভাইরাস। একইসঙ্গে বাদুড়ের শরীর থেকে মানবদেহে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছিল বলে প্রাথমিকভাবে যে অনুমান করা হয়েছিল, সেই সম্ভাবনাও কম বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) এবং চিনা বিশেষজ্ঞদের একটি যৌথ দল। 

করোনাভাইরাস কেন্দ্রস্থল উহান-সফরের পর সেই যৌথ দল জানিয়েছে, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের আগে যে মানুষের দেহে করোনা ছড়িয়ে পড়েছিল, তেমন কোনও প্রমাণ মেলেনি। যে দলে ছিলেন ১৭ জন আন্তর্তাজিক আন্তর্জাতিক এবং ১৭ জন চিনা বিশেষজ্ঞ। যাঁরা গত দু'সপ্তাহে উহানের হাসপাতাল, সামুদ্রিক খাবারের বাজার এবং উহানের গবেষণাগারে গিয়েছিলেন। তার ভিত্তিতে মঙ্গলবার সাংবাদিক বৈঠকে বিশেষজ্ঞ দলের নেতৃত্ব প্রদানকারী বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিজ্ঞানী পিটার বেন এমবারেক জানিয়েছেন, মানুষের দেহে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের চারটি সম্ভাব্য দিক খতিয়ে দেখা হয়েছে। তার মধ্যে দুটি বিষয় চিহ্নিত করেছে বিশেষজ্ঞ দল। যা সম্ভাব্য কারণ হতে পারে। সেগুলির মধ্যে আবার একটি হল মধ্যবর্তী কোনও ধারক প্রজাতির (ইন্টারমেডিয়ারি হোস্ট স্পেসিস)। এমবারেক বলেন, ‘আমাদের প্রাথমিক রিপোর্ট অনুযায়ী, সংক্রমণের মাধ্যম হওয়ার সম্ভাবনা সবথেকে বেশি মধ্যবর্তী কোনও ধারক প্রজাতির। ’

প্রাথমিকভাবে অবশ্য একাধিক গবেষণায় অনুমান করা হয়েছিল, বাদুড়ের দেহ থেকে ছড়িয়েছে করোনাভাইরাস। কারণ বাদুড়ের শরীরে এমন একটি জিনের হদিশ মিলেছিল, যার সঙ্গে সার্স-কোভ-২-এর ৯৬ শতাংশ মিল আছে। কিন্তু বাদুড়ের শরীরে যে করোনাভাইরাস থাকে, তা মানুষের ফুসফুসের কোষের রিসেপটরে কার্যকারী হতে পারে না। এমবারেক বলেন, ‘উহান শহর বা সেখানের পরিবেশ যেহেতু বাদুড়ের বাসস্থানের কাছাকাছি নয়, তাই উহান শহরের বাদুড়ের শরীরে সংক্রমণের বিষয়টি খুব একটা সম্ভব নয়।’ 

তিনি জানান, বাদুড়ের পরিবর্তে কোন প্রাণীর মাধ্যমে করোনা ছড়িয়ে পড়েছিল, তা খুঁজে বের করা চেষ্টা করা হয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত মধ্যবর্তী কোনও ধারক প্রজাতিকে চিহ্নিত করা যায়নি। উহান বাজারের কয়েকটি প্রাণীর নমুনা চিহ্নিত করা হযেছে। যেগুলির শরীরে করোনা থাকতে পারে। পাশাপাশি চিনের বিভিন্ন অংশ বা বিভিন্ন ফার্মের কয়েকটি প্রাণীর নমুনাও চিহ্নিত করা হয়েছে। যেখানে বাদুড়ের শরীরের করোনাভাইরাস পাওয়া যায়। বিশেষজ্ঞ দলের প্রধান বলেন, ‘এই ধরনের পণ্য নিয়ে যাঁরা ব্যবসা করেন, যাঁরা সরবরাহ করেন এবং যে ফার্ম থেকে ওই পণ্যগুলি আসে, সেগুলির বিক্রেতাদের চিহ্নিত করেছে যৌথ দল।’

একইসঙ্গে উহানের গবেষণাগার থেকে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার যে অভিযোগ তুলেছিলেন প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, সেই সম্ভাবনা খুব একটা দেখেনি বিশেষজ্ঞ দল। বরং এমবারেক জানিয়েছেন, সেটার সম্ভাবনা সবথেকে কম। তিনি বলেন, ‘তথ্য অনুযায়ী, মানবদেহে সংক্রমণ ব্যাখ্যার ক্ষেত্রে গবেষণাগারের সম্ভাবনা অত্যন্ত কম।’

বন্ধ করুন