দূরপাল্লার ট্রেনে শুরু বুকিং, তুঙ্গে চাহিদা (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য ব্লুমবার্গ)
দূরপাল্লার ট্রেনে শুরু বুকিং, তুঙ্গে চাহিদা (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য ব্লুমবার্গ)

Coronavirus Update: পনেরো এপ্রিল থেকে চলছে দূরপাল্লার ট্রেনের বুকিং

  • হাওড়া ও শিয়ালদহ থেকে ছাড়া একাধিক দূরপাল্লার ট্রেনে ইতিমধ্যে সংরক্ষিত আসন ভরতি হয়ে গিয়েছে।

কবে থেকে ফের ট্রেনের টিকিট কাটা যাবে? তা নিয়ে ধন্দ ছিল। তবে ভারতীয় রেল জানিয়েছে, আগামী ১৫ এপ্রিল থেকে টিকিট বুকিং আগে থেকেই চালু হল। লকডাউনের মধ্যেও তা চালু ছিল।

আরও পড়ুন : Covid-19: রান্নাঘরে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে গিয়ে বিপত্তি, ঝলসে গেল মুখ, হাত

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে গত ২২ মার্চ মধ্যরাত থেকে ৩১ মার্চ মধ্যরাত পর্যন্ত যাত্রীবাহী ট্রেন পরিষেবা বন্ধের ঘোষণা করেছিল রেল। এরপর সন্ধ্যায় দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউনের ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। স্বাভাবিকভাবেই ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বাতিল হয়ে যায় সব যাত্রীবাহী ট্রেন। এরইমধ্যে বিভিন্ন উড়ান সংস্থাগুলি জানায়, আগামী ১৫ এপ্রিল থেকে পরিষেবা দেবে তারা।

আরও পড়ুন Tax Return, Investment Proof, GST- কী কী ক্ষেত্রে সময়সীমা বৃদ্ধি ৩০ জুন অবধি?

সেইমতো রেলেও আগামী ১৫ এপ্রিল থেকে ট্রেনযাত্রার বুকিং চলছে। তবে রেলের কাউন্টারে গিয়ে টিকিট কাটা যাবে না, অনলাইনে টিকিট কাটতে হবে। ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কেটারিং অ্যান্ড ট্যুরিজম কর্পোরেশনের (আইআরসিটিসি) অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে টিকিট বুকিং করা যাচ্ছে।

আরও পড়ুন : New Income Tax structure- কী কী নিয়ম বদলাচ্ছে পয়লা এপ্রিল থেকে, জেনে নিন

আর তুঙ্গে রয়েছে চাহিদা। হাওড়া ও শিয়ালদহ থেকে ছাড়া একাধিক দূরপাল্লার ট্রেনে ইতিমধ্যে সংরক্ষিত আসন ভরতি হয়ে গিয়েছে। টিকিট কাটলে ওয়েটিং লিস্ট বা আরএসি হবে। কিছু ট্রেনে টিকিট পড়ে থাকলেও তা গুটিকয়েক মাত্র। যেমন, হাওড়া-নয়াদিল্লি পূর্বা এক্সপ্রেসে ১৫ এপ্রিল স্লিপারে কোনও টিকিট পড়ে নেই। আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত পূর্বা এক্সপ্রেসে স্লিপারের সব আসন রিজার্ভড। এসি ফার্স্ট ক্লাসেও ১৫, ১৬ ও ১৭ এপ্রিল কোনও টিকিট পড়ে নেই। এসি টু টিয়ার ও থ্রি টিয়ারের ছবিটাও এক।

আরও পড়ুন : COVID-19 Update: করোনা আক্রান্তদের শুশ্রূষার জন্য বিয়ে পিছিয়ে দিলেন চিকিৎসক

একইভাবে হাওড়া-নয়াদিল্লি রাজধানী এক্সপ্রেসের ফার্স্ট ক্লাসে এখন টিকিট কাটলে ওয়েটিং লিস্ট পাবেন। এসি টু টিয়ার ও থ্রি টিয়ারে অবশ্য আসন আছে। শিয়ালদহ-নয়াদিল্লি রাজধানী এক্সপ্রেসেও একই ছবি ধরা পড়েছে।

আরও পড়ুন : COVID-19 Update: সোয়াব রিপোর্ট নেগেটিভ, করোনা মিলল থুতু-মলে, গবেষণায় উঠে এল তথ্য

এদিকে, দক্ষিণ-পূর্ব রেলের করমণ্ডল এক্সপ্রেসেও একই অবস্থা। এখন ১৫ এপ্রিলের টিকিট কাটলে আরএসি হবে । এসি ফার্স্ট ক্লাসে একটি মাত্র আসন ফাঁকা পড়ে আছে। তুলনায় চেন্নাই মেলের অবস্থা ভালো। তাতে আপাতত আসন ফাঁকা আছে। তবে টিকিটের যা চাহিদা, তাতে কতদিন থাকবে সেটা বড় প্রশ্ন। আরও একটি দক্ষিণগামী ট্রেন হাওড়া-যশবন্তপুরে এক্সপ্রেসে ১৫ এপ্রিল শুধুমাত্র এসি থ্রি টিয়ারে কয়েকটি আসন ফাঁকা রয়েছে। বাকি টিকিট সব ফুরিয়ে গিয়েছে।

আরও পড়ুন : PM-CARES fund: ত্রাণ তহবিলে টাকা দিয়ে পান ১০০ শতাংশ করছাড়, জানুন বিশদে

হাওড়া-সেকেন্দ্রাবাদ এক্সপ্রেসে এমনিতেই টিকিটের চাহিদা তুঙ্গে থাকে। তবে ১৫,১৬,১৭ ও ১৮ এপ্রিল স্লিপারে কয়েকটি আসন এখনও ফাঁকা রয়েছে। কিন্তু এসিতে টিকিট নিঃশেষ। ইস্টকোস্ট এক্সপ্রেসে অবশ্য এখনও আসন পুরো ভরতি হয়নি। তবে তা কতদিন থাকবে, সেটাই দেখার বিষয়।

আরও পড়ুন : EPS নিয়মে বদল, এপ্রিল থেকে বেশি পেনশন পাবেন ছয় লাখ EPFO গ্রাহক-শর্ত জেনে নিন


বন্ধ করুন