বাড়ি > ঘরে বাইরে > Coronil ও Swasari-র জন্য করোনার ওষুধের লাইসেন্স নেয়নি পতঞ্জলি, দাবি উত্তরাখণ্ডের
রামদেবের পতঞ্জলির বিরুদ্ধে লাইসেন্স-এর আবেদনে তথ্য গোপন করার অভিযোগ উঠেছে। সত্যি প্রমাণিত হলে বাতিল হতে পারে করোনিল ও শ্বাসারি-র লাইসেন্স। 
রামদেবের পতঞ্জলির বিরুদ্ধে লাইসেন্স-এর আবেদনে তথ্য গোপন করার অভিযোগ উঠেছে। সত্যি প্রমাণিত হলে বাতিল হতে পারে করোনিল ও শ্বাসারি-র লাইসেন্স। 

Coronil ও Swasari-র জন্য করোনার ওষুধের লাইসেন্স নেয়নি পতঞ্জলি, দাবি উত্তরাখণ্ডের

  • Covid-19 এর ওষুধ বানাতে চলেছে বলে কোথাও উল্লেখ করেনি রামদেবের পতঞ্জলি আয়ুর্বেদিক লিমিটেড।

লাইসেন্সের জন্য আবেদনে Covid-19 এর ওষুধ বানাতে চলেছে বলে কোথাও উল্লেখ করেনি রামদেবের পতঞ্জলি আয়ুর্বেদিক লিমিটেড। বুধবার এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানিয়েছেন উত্তরাখণ্ড সরকারের এক আধিকারিক, দাবি সংবাদসংস্থা এএনআই-এর।

মঙ্গলবার সকালে হরিদ্বারে পতঞ্জলির দাবি করা কোভিড সারানোর ওষুধের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন রামদেব, আর তার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ওষুধের দাবি স্বীকৃতি না পাওয়া পর্যন্ত তার প্রচার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় আয়ুষ মন্ত্রক। পাশাপাশি, করোনিল ও শ্বাসারি নামে পতঞ্জলির তৈরি দুই ওষুধের লাইসেন্স সম্পর্কে উত্তরাখণ্ড সরকারকে সবিস্তারে জানানোর নির্দেশ দেয় মন্ত্রক।

আরও পড়ুন: রিপোর্ট যাচাইয়ের পর রামদেবের করোনা দাওয়াইকে অনুমোদন দিতে পারে আয়ুষ মন্ত্রক

এ দিন উত্তরাখণ্ড সরকারের আয়ুর্বেদিক ওষুধের লাইসেন্স প্রদান দফতরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘পতঞ্জলির আবেদনের ভিত্তিতে আমরা একটি লাইসেন্স মঞ্জুর করি। ওরা করোনাভাইরাসের ওষুধের উল্লেখ করেনি। আমরা শুধুমাত্র কাশি ও জ্বর উপশম এবং রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বর্ধক ওষুধের লাইসেন্স দিয়েছি।’

তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘কী ভাবে তারা করোনার ওষুধের লাইসেন্স পেয়েছে, তা জানতে চেয়ে আমরা পতঞ্জলিকে নোটিশ পাঠাব।’ 

জানা গিয়েছে, একই বিষয় নিয়ে পতঞ্জলি আয়ুর্বেদিককে ফের নোটিশ পাঠানোর পরিকল্পনা করেছে উত্তরাখণ্ডে আয়ুষ মন্ত্রকের শাখাও। শাখা অধিকর্তা আনন্দ স্বরূপ জানিয়েছেন, ‘১৯৪০ সালের ওষুধ ও প্রশাধন আইন এবং ১৯৫৪ সালের ওষুধ ও ঐন্দ্রজালিক রোগ উপশম আইনের ভিত্তিতে কী কী নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়েছে, তা আমরা খতিয়ে দেখছি। আমরা দেখছি কী ধরণের বেআইনি পদক্ষেপ করা হয়েছে এবং তার ভিত্তিতে নোটিশ পাঠাব। যদি অভিযোগ সত্যি প্রমাণিত হয়, সে ক্ষেত্রে ওই ওষুধের লাইসেন্স বাতিল করা হবে।’

আরও পড়ুন: রামদেবের দাবিতে বাধা, কোভিড ওষুধের তথ্য তলবের সঙ্গে প্রচারে 'না' আয়ুষ মন্ত্রকের

এর আগে পতঞ্জলির তরফে দাবি করা হয় যে, জয়পুরের বেসরকারি সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেস-এর (NIMS) সহযোগিতায় কোভিডের ওষুধ তৈরি করা হয়েছে। আরও দাবি করা হয় যে, দিল্লি, আমদাবাদ ও মীরাটে করোনা আক্রান্ত রোগীদের উপরে পরীক্ষামূলক প্রয়োগে ওষুধের নিরাময় ক্ষমতা সম্পর্কে নিঃসন্দেহ হয়েই তা বাজারজাত করা হয়েছে। 

এ দিন সকালে কেন্দ্রী আয়ুষ মন্ত্রী শ্রীপদ নায়েক জানিয়েছেন, পতঞ্জলির জমা দেওয়া রিপোর্ট যাচাই করার পরেই ণনুমোদন দেওয়া হতে পারে তাদের তৈরি করোনার ওষুধকে।

বন্ধ করুন