ঘরে ফেরার পথে ভিনরাজ্যে কর্মরত শ্রমিকরা। শুক্রবার মথুরার রাস্তায় এএনআই-এর ছবি।
ঘরে ফেরার পথে ভিনরাজ্যে কর্মরত শ্রমিকরা। শুক্রবার মথুরার রাস্তায় এএনআই-এর ছবি।

Covid-19 update: ভিনরাজ্যের ঘরছাড়া শ্রমিকদের খাদ্য-আশ্রয় দেবে প্রশাসন

ঘরছাড়া শ্রমিকদের সাহায্যে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বিকল্প পরিবহণের ব্যবস্থা করতে চলেছে সরকার, অন্যথায় তাঁদের জন্য অস্থায়ী কোয়ারেন্টাইন শিবিরের ব্যবস্থা করে খাদ্য ও পানীয় জলের ব্যবস্থা করার সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে প্রশাসন।

দেশের বিভিন্ন রাজ্যে কর্মসূত্রে আটকে পড়া শ্রমিকদের নিজেদের গ্রামে ফেরার ব্যাপারে সাহায্য করতে লকডাউনে ছাড় দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্র।

কেন্দ্রীয় প্রশাসনের কয়েকজন আধিকারিক হিন্দুস্তান টাইমসকে জানিয়েছেন, ঘরছাড়া শ্রমিকদের সাহায্যে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বিকল্প পরিবহণের ব্যবস্থা করতে চলেছে সরকার, অন্যথায় তাঁদের জন্য অস্থায়ী কোয়ারেন্টাইন শিবিরের ব্যবস্থা করে খাদ্য ও পানীয় জলের ব্যবস্থা করার সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে প্রশাসন। শুক্রবার প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, প্রয়োজনে এনজিও-দের সাহায্যে ঘরছাড়া শ্রমিকদের সহায়তা করা হবে।

কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবি শংকর প্রসাদ জানিয়েছেন, ‘সরকার তাঁদের পরিস্থিতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। নাগরিক সমাজের সদস্যদের কাছে আবেদন করছি, এমন মানুষের জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন।’

ঘরছাড়া বিপন্ন শ্রমিকদের ভবিষ্যৎ নির্ধারণে ইতিমধ্যে প্রশাসনিক স্তরে উচ্চ পর্যায়ের আলোচনা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এর মধ্যে এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী অজয় ভাল্লা এবং উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সঙ্গে কথা হয়েছে আইনমন্ত্রীর।

শুক্রবার রবি শংকর প্রসাদ যোগী আদিত্যনাথের সঙ্গে বৈঠক সম্পর্কে বলেন, ‘আমি খুশি যে তিনি কথা দিয়েছেন, বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজ নেবেন। তিনি জানিয়েঠছেন, ভিনরাজ্যের শ্রমিকদের জন্য রাতের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করবে উত্তর প্রদেশ সরকার।’

আইনমন্ত্রী হিন্দুস্তান টাইমসকে আরও জানিয়েছেন যে, বিহারের জেলাশাসকদের সঙ্গেও আটকে পড়া ভিনরাজ্যের শ্রমিকদের পরিস্থিতি নিয়ে তাঁর কথা হয়েছে। যে সমস্ত শ্রমিক পরিবহণের অভাবে নিজের রাজ্যে ফিরতে পারছেন না, তাঁদের জন্য খাদ্যের সংস্থান করবে বলে জানিয়েছে বিহার প্রশাসন।

বিপন্ন শ্রমিকদের জন্য কী করা যায়, প্রত্যেক দফতরের প্রধান সচিবদের থেকে সে সম্পর্কে মতামত তলব করেছে কেন্দ্র। প্রতি রাজ্যের পরিবহণ দফতরের মতামতও জানতে চাওয়া হয়েছে।

গত বুধবার দেশজুড়ে লকডাউন জারি হওয়ার পরে বিভিন্ন রাজ্যে আটকে পড়া শ্রমিকরা ঘরে ফিরতে পরিবহণের অভাবে দীর্ঘ পথ হেঁটে পাড়ি দিচ্ছেন। মহিলা ও শিশু-সহ শ্রমিকদের ছোট ছোট দল সারা দিন অথবা রাত হেঁটে চলেছেন। খাদ্য, ওষুধ ও আশ্রয়ের অভাবে তাঁদের পরিস্থিতি করুণ হয়ে উঠেছে। তারই মাঝে লকডাউন বিধি ভেঙে সড়কে নামার জন্য পুলিশের কাছে হেনস্থা হচ্ছেন বহু শ্রমিক। সংবাদমাধ্যমে এই খবর প্রকাশিত হওয়ার পরে টনক নড়েছে প্রশাসনের।

বন্ধ করুন