তবলিগি জামাতের জমায়েতে যোগদানকারীদের কোয়ারেন্টাইন কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)
তবলিগি জামাতের জমায়েতে যোগদানকারীদের কোয়ারেন্টাইন কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)

COVID-19 Updates: 'অপরিচ্ছন্ন' জামাত সদস্যরা নোংরা করে খাওয়ায় করোনা ছড়িয়েছে : অন্ধ্রের উপ-মুখ্যমন্ত্রী

  • যদিও দিনকয়েক আগেই মুখ্যমন্ত্রী ওয়াই এস জগনমোহন রেড্ডি জামাতের জমায়েতের প্রতি কিছুটা নরম অবস্থান নিয়েছিলেন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ছড়ানোর জন্য তবলিগি জামাত সদস্যদের দুষলেন অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কে নারায়ণ স্বামী। তাঁর অভিযোগ, জামাত সদস্যরা সর্বত্র ঘুরে বেড়িয়ে সংক্রমণ ছড়িয়েছেন। পাশাপাশি, চিকিৎসদের সঙ্গেও তাঁরা সহযোগিতা করছেন না বলে অভিযোগ নারায়ণের।

আরও পড়ুন : COVID-19 Updates: লকডাউনের ভবিষ্যৎ কী? আগামিকাল জাতির উদ্দেশে ভাষণে ঘোষণার সম্ভাবনা প্রধানমন্ত্রীর

তিরুপতিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় অন্ধ্রপ্রদেশের উপ-মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন, রাজ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ২৫-২৬ জনের বেশি হত না। কিন্তু যাঁরা দিল্লির নিজামুদ্দিনে তবলিগি জামাতের জমায়েত থেকে ফিরেছেন, তাঁদের জন্য রাজ্যে করোনা ছড়িয়েছে। জামাত সদস্যদের খাদ্যাভ্যাস নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। বলেন, 'মুসলিমদের প্রতি আমার কোনও বৈরতা নেই। তাঁরা নিজেদের ভগবানের কাছে প্রার্থনা করুন। আল্লাহ পরম করুণাময়। কিন্তু ওঁরা (জামাত সদস্য) সবরকমের নোংরা কাজ করেন। খাওয়ার সময় হাইজিন মেনে চলেন না। পরিচ্ছন্নতাও বজায় রাখেন না। নিজেদের অভ্যেসের জন্য করোনাভাইরাসকে এই পর্যায়ে নিয়ে এসেছেন ওঁরা।'

আরও পড়ুন : COVID-19 Update: করোনা আক্রান্তদের শুশ্রূষার জন্য বিয়ে পিছিয়ে দিলেন চিকিৎসক

সপ্তাহখানেক মুখ্যমন্ত্রী ওয়াই এস জগনমোহন রেড্ডি অবশ্য জামাতের জমায়েতের প্রতি নরম সুরে কথা বলেছিলেন। তাঁর কথায়, 'ভারতের করোনা সংক্রমণের জন্য কোনো নির্দিষ্ট ধর্মের জমায়েতকে দোষারোপ করা উচিত নয়, কারণ এরকম ঘটনা রবিশংকর বা জাগ্গি বাসুদেব বা মাতা অমৃতানন্দাময়ীর ধর্মীয় জমায়েতেও হতে পারত।'

আরও পড়ুন : সুস্থ হয়ে ফেরা ২ রোগীর রিপোর্টে ফের করোনা সংক্রমণের প্রমাণ, উদ্বিগ্ন প্রশাসন

যদিও মুখ্যমন্ত্রীর একেবারে ভিন্ন সুরে কথা বলেন নারায়ণ। তাঁর অভিযোগ, 'ওঁরা (জামাত সদস্যরা) দোকান, রাস্তায় ঘুরে বেড়িয়েছেন ও রোগ ছড়িয়েছেন। ওঁদের কাছে আমার আর্জি, দয়া করে চিকিৎসকদের সঙ্গে সহযোগিতা করুন। সুস্থ হয়ে উঠুন। যাতে তা অন্যদের সংক্রামিত না করে।'

বন্ধ করুন