বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > বায়োমেট্রিক মেশিন থেকেই ছড়াচ্ছে করোনা, অভিযোগ রেশন ডিলারদের
বায়োমেট্রিক মেশিন থেকেই ছড়াচ্ছে করোনা, অভিযোগ রেশন ডিলারদের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)
বায়োমেট্রিক মেশিন থেকেই ছড়াচ্ছে করোনা, অভিযোগ রেশন ডিলারদের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)

বায়োমেট্রিক মেশিন থেকেই ছড়াচ্ছে করোনা, অভিযোগ রেশন ডিলারদের

  • বন্ধ না করলে আগামী ৫ মে থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য অনশনে বসবেন তাঁরা।

রেশন দোকানের বায়োমেট্রিক যন্ত্র থেকেই করোনা ছড়াচ্ছে।এমনটাই অভিযোগ করলেন বিহারের ফেয়ার প্রাইস ডিলার অ্যাসোসিয়েশনের কর্তারা।তাঁদের দাবি, এখনই এই বায়োমেট্রিক যন্ত্রের ব্যবহার বন্ধ করতে হবে।বন্ধ না করলে আগামী ৫ মে থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য অনশনে বসবেন তাঁরা। যদিও সরকারের তরফে অবশ্য তাঁদের এই দাবি নস্যাৎ করে দেওয়া হয়েছে।

বিহারে ৫৫,০০০ ফেয়ার প্রাইস শপ রয়েছে, যেখান থেকে রেশনের বিভিন্ন পণ্য সামগ্রী দেওয়া হয়। এই প্রত্যেকটি ফেয়ার প্রাইস শপে আধার কার্ডের সঙ্গে যুক্ত বায়োমেট্রিক অথেনটিকেশন সিস্টেম রয়েছে। রেশনের পণ্য সামগ্রী যাতে প্রত্যেকে ঠিকভাবে পায়, তা নিশ্চিত করার জন্যই এই বিশেষ ধরনের যন্ত্র লাগানো হয়েছে। অ্যাসেসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট বরুণ কুমার সিং বলেন, ‘‌একটি রেশন দোকানে প্রতিদিন প্রায় ৫০০ জন যান। কিন্তু ডিলারদের জন্য কোনও স্যানিটাইজার নেই, পিপিই কিট নেই। নেই কোনও সাবানও। যেভাবে করোনা সংক্রমণের মাত্রা বাড়ছে, তাতে বায়োমেট্রিক মেশিন ব্যবহার করাও খুব ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাচ্ছে।’‌ একইসঙ্গে তিনি জানান, গত দু'সপ্তাহে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সারা রাজ্যে ১১ জন ডিলারের মৃত্যু হয়েছে। ডিলারদের পরিবারের অনেকেই করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। অ্যাসোসিয়েশনের তরফে ডিলারদের জন্য ৫০ লাখ টাকার বিমার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট আরও জানিয়েছেন, সরকার সহজেই বায়োমেট্রিক মেশিন বন্ধ করতে পারে। তাহলে আর মেশিনে হাত দেওয়ার ব্যাপার থাকবে না। আর সংক্রমণও ছড়াতে পারবে না। তিনি জানান, অ্যাসেসিয়েশনের পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রী, মুখ্যসচিব ও খাদ্য দফতরের সচিবের কাছে চিঠি লেখা হয়েছে, যাতে অবিলম্বে মেশিন বন্ধ করা হয়। তবে বিহারের খাদ্য সচিব বিনয় কুমার জানিয়েছেন, সরকারের বায়োমেট্রিক যন্ত্র বন্ধের কোনও পরিকল্পনা নেই।

বন্ধ করুন