বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সরকারি সংখ্যা থেকে অনেক বেশি মানুষ মারা গিয়েছে কোভিডে, ইঙ্গিত HMIS পরিসংখ্যানের
ভারতে কোভিড মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে রিপোর্ট প্রকাশ নিউইয়র্কে (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)
ভারতে কোভিড মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে রিপোর্ট প্রকাশ নিউইয়র্কে (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)

সরকারি সংখ্যা থেকে অনেক বেশি মানুষ মারা গিয়েছে কোভিডে, ইঙ্গিত HMIS পরিসংখ্যানের

  • ২০২১ সালের এপ্রিল-মে মাসে ভারতে মোট মৃত্যু হয়েছে ৮ লক্ষ ২৭ হাজার ৫৯৭ জনের। যেখানে ২০২০ সালে এই সংখ্যাটা ছিল ৩ লক্ষ ৫০ হাজার ৩৩৩।

৯ জুলাই একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের 'হেলথ ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেম'। তাতেই দেখা যাচ্ছে যে ২০২১ সালের এপ্রিল-মে মাসে ভারতে মোট মৃত্যু হয়েছে ৮ লক্ষ ২৭ হাজার ৫৯৭ জনের। এই একই সময়কালে গত তিন বছরের তুলনায় তা দ্বিগুণেরও বেশি। ২০১৮ সালের এপ্রিল-মে মাসে ভারতে মোট মৃত্যু হয়েছিল ৩ লক্ষ ৫৫ হাজার ৯০৫ জনের। ২০১৯ সালের এপ্রিল-মে মাসে ভারতে মোট মৃত্যু হয়েছিল ৩ লক্ষ ৯১ হাজার ৫৯৩ জনের। ২০২০ সালের এপ্রিল-মে মাসে ভারতে মোট মৃত্যু হয়েছিল ৩ লক্ষ ৫০ হাজার ৩৩৩ জনের। আর এই তুলনাই চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে বিশেষজ্ঞদের কপালে। প্রশ্ন উঠেছে, ২০২০ সালেও কোভিড ছিল। তবে এভাবে একবছরের ব্যবধানে দ্বিগুণের বেশি মৃত্যু কি আদতে করোনার জেরে। তবে সরকারি হিসেব তো তা বলছে না!

'হেলথ ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেম' আদতে একটি ওয়েব ভিত্তিক তথ্য সংগ্রহ এবং নজরদারির ব্যবস্থাপনা। সরকারের সাহায্যার্থে এটি চালু করেছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। ২০০৮ সালে এটি চালু হয়। প্রায় ২ লক্ষ স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে এটি তথ্য পায়। দেশে সিভিল রেজিস্ট্রেশন সিস্টেমের তথ্য অনেক দেরিতে প্রকাশিত হয়। ২০১৯-২০ সালের পরিসংখ্যান প্রকাশিত হয়েছিল ২০২১ সালে। তাই 'হেলথ ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেম'-এর এই সংখ্যা সরকারি হিসেব হিসেবে ধরে নেওয়া যেতে পারে। তবে সাধারণত সব জায়গা থেকে তথ্য না পাওয়ায় হেলথ ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেমের পরিসংখ্যান অসম্পূর্ণ। যেমন ২০১৯-২০ সালে দেশে মোট ৭৬ লক্ষ মানুষ মারা গেলেও 'হেলথ ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেম'-এর তথ্য অনুযায়ী মৃতের সংখ্যা ছিল মাত্র ২৬ লক্ষ।

দেশে করোনা সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছায় ৯ মে। তবে মৃত্যুর ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ স্তর আসে ২৩ মে। তবে এপ্রিল জুড়ে করোনার সংখ্যা ঊর্ধ্বমুখী ছিল। এই আবহে গত তিন বছরের গড়ের তুলনায় এবছর এপ্রিম মাসে প্রায় সাড়ে চার লক্ষ বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। যেখানে গত তিনবছরে এপ্রিল মাসে একবারও মৃতের সংখ্যা চার লক্ষের গণ্ডি পার করেনি। সেখানে এই বছর সেই সংখ্যাটা ৮.২৮ লক্ষ। এবং এই সংখ্যা হয়ত আসলের থেকে অনেকটাই কম।

এই অতিরিক্ত মৃত্যু কী কোভিডের কারণে? এর সম্ভাবনা প্রবল। এই সময়ে ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালে প্রাপ্ত বয়স্কদের মৃত্যউ ১৫৩ শতাংশ বেড়েছে। এই পরিসংখ্যান গর্ভবতী মৃত্যু বাদে। ২০২১ সালে গর্ভবতী মৃত্যুও বেড়েছে। এর করণ হয়ত স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়া। এদিকে শিশুদের মৃত্য়ু ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালে বেড়েছে ১৪ শতাংশ। জ্বরের কারণে মৃত্যু বেড়েছে ৫০০ শতাংশ। প্রসঙ্গত, এটি কোভিডের সবথেকে বড় উপসর্গ।

বন্ধ করুন