বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Prayagraj Killings: প্রয়াগরাজকাণ্ডে CBI তদন্তের দাবি, জাতীয় মাবাধিকার কমিশনে তৃণমূলের প্রতিনিধি দল
জাতীয় মাবাধিকার কমিশনে তৃণমূলের প্রতিনিধি দল (ছবি - এএনআই)
জাতীয় মাবাধিকার কমিশনে তৃণমূলের প্রতিনিধি দল (ছবি - এএনআই)

Prayagraj Killings: প্রয়াগরাজকাণ্ডে CBI তদন্তের দাবি, জাতীয় মাবাধিকার কমিশনে তৃণমূলের প্রতিনিধি দল

  • Prayagraj Killings: প্রয়াগরাজ জেলার কেবরাজপুর গ্রামে একই পরিবারের মহিলা, শিশুসহ পাঁচ সদস্যকে নৃশংসভাবে খুন করা হয়েছিল। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটির প্রতিনিধিরা ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন।

উত্তরপ্রদেশের প্রয়াগরাজে একই পরিবারের পাঁচজনকে খুনের ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি তুলে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দ্বারস্থ হল তৃণমূল কংগ্রেস। এদিন তৃণমূল কংগ্রেসের একটি প্রতিনিধি দল জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যানের সঙ্গে গিয়ে দেখা করেন। তৃণমূলের প্রতিনিধি দলে ছিলেন দোলা সেন, ললিতেশ ত্রিপাঠি ও সাকেত গোখলে। মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যানের কাছে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিনিধি দল দাবি করেন যাতে অবিলম্বে এই মামলার তদন্তের গতিপ্রকৃতি সম্পর্কে জানতে রিপোর্ট তলব করা হয় উত্তরপ্রদেশ পুলিশ ও প্রশাসনের কাছে। পাশাপাশি তৃণমূলের দাবি যাতে এই মামলাটি অবিলম্বে সিবিআইয়ের হাতে হস্তান্তর করা হয়।

এর আগে প্রয়াগরাজ জেলার কেবরাজপুর গ্রামে একই পরিবারের মহিলা, শিশুসহ পাঁচ সদস্যকে নৃশংসভাবে খুন করা হয়েছিল। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটির প্রতিনিধিরা ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন। পরিবারের একমাত্র জীবিত সদস্য সুনীল যাদবের সঙ্গে কথা বলেন তাঁরা। সেদিনই তৃণমূলের জাতীয় মুখপাত্র সাকেত গোখলে দাবি জানিয়েছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের ঘটনাস্থলে যাওয়া উচিত।

এদিকে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে, সম্ভবত লোহার রড জাতীয় ভোঁতা অস্ত্র দিয়ে মারধর করা হয় মৃতদের। ফরেনসিক টিম, ডগ স্কোয়াডও ঘটনাস্থলে আসে। কিন্ত কী কারণে এই ঘটনা তা এখনও পরিষ্কার নয়। লুঠপাটের জন্য নাকি এর পেছনে পুরানো কোনও শত্রুতা আছে তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে। এদিকে তৃণমূলের দাবি, পরিবারের একমাত্র জীবিত সদস্য সুনীল যাদবের সঙ্গে কথা বলে তারা জানতে পারে যে তাঁর স্ত্রী ও বোনকে ধর্ষণ করা হয়েছিল। পাশাপাশি আরও অভিযোগ, সন্দেহভাজন এক ব্যক্তির নামে অভিযোগ নিতে চাইছে না পুলিশ। এই আবহে সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছে ঘাসফুল শিবির।

বন্ধ করুন