বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > দিল্লিতে খুলছে স্কুল, কোভিড বিধি মেনে প্রস্তুত হতে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ
ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই
ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই

দিল্লিতে খুলছে স্কুল, কোভিড বিধি মেনে প্রস্তুত হতে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ

  • ফের স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে চাইছে রাজধানী দিল্লি। আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকেই খুলে যাবে স্কুল।

তৃতীয় ঢেউয়ের চোখরাঙানি সত্ত্বেও বর্তমানে অনেকটাই সংক্রমণ কমেছে কোভিড ভাইরাসের। আর তাই ফের স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে চাইছে রাজধানী দিল্লি। আর তাই ঘোষণা করা হয়েছে যে আগামী মাসেই সব স্কুল খুলবে দিল্লিতে। শুক্রবার দিল্লি বিপর্যয় মোকাবিলা কর্তৃপক্ষের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকেই খুলে যাবে স্কুল। তবে তার আগে স্কুলে স্কুলে কোভিড বিধি মেনে ডেস্ক সাজাতে এবং আরও বেশ কিছু নিয়ম মেনে আয়োজন করতে হাতে সময় মাত্র কয়েকদিন। এই পরিস্থিতিতে স্কুল কর্তৃপক্ষ হিমশিম খাচ্ছে।

দিল্লি প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে দফায় দফায় চালু করা হবে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির পঠনপাঠন। এর এক সপ্তাহ পর, অর্থাৎ ৮ সেপ্টেম্বর থেকে ক্লাস শুরু হবে ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণিতেও। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ভারতে আছড়ে পড়ার পরই দিল্লির অবস্থা খারাপ হয় বাকি দেশের মতো। সেই সময় সংক্রমণ ঠেকাতে বন্ধ রাখা হয় স্কুল, কলেজ-সহ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু এখন পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসেছে। আর তাই, পুরো দমে স্কুল চালু করা নিয়ে নানা মহলে আলাপ, আলোচনা শুরু হয়েছে। সেই মতো পড়ুয়াদের ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী তথা শিক্ষামন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়া জানান, যে পড়ুয়ারা বাড়িতে থেকে অনলাইনে ক্লাস করতে ইচ্ছুক হবে, তাদের সেভাবে ক্লাস করতে দেওয়ার অনুমতি দিতে হবে স্কুলগুলিকে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের মার্চ মাসে ভারতে কোভিড ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব হয়। তারপর লকডাউনে ঘরবন্দি হয়ে যায় গোটা দেশ। এরপর ভাইরাসের প্রকোপ কিছুটা কমায় চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে নবম থেকে একাদশ শ্রেণিতে পঠনপাঠন শুরু করা হয়। কিন্তু কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় আবারও বন্ধ করে দিতে হয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি। এদিকে, বৃহস্পতিবার দিল্লিতে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মাত্র ৪৫ জন। করোনায় মৃত্যুর কোনও ঘটনা ঘটেনি গত ২৪ ঘণ্টায়। এই আবহে স্কুল খোলা যায় বলেই মনে করছে প্রশাসন। তবে স্কুল খোলার প্রস্তুতির জন্য এত কম সময় দেওয়ায় হিমশিম খাচ্ছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

 

বন্ধ করুন