বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > কৃষকদের বনধ: অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের সরবরাহ বন্ধ, জরুরি পরিষেবায় মিলবে ছাড়
সিংঘু সীমাান্তে বিশ্রাম কৃষকদের। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
সিংঘু সীমাান্তে বিশ্রাম কৃষকদের। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

কৃষকদের বনধ: অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের সরবরাহ বন্ধ, জরুরি পরিষেবায় মিলবে ছাড়

  • যোগেন্দ্র জানান, তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে অনড় আছেন কৃষকরা এবং অবস্থার কোনওরকম পরিবর্তন হয়নি।

ছাড় দেওয়া হচ্ছে জরুরি পরিষেবা এবং বিয়ের অনুষ্ঠানে। তবে আগামী মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) কৃষক সংগঠনগুলির ডাকে ভারত বনধে দুধ, সবজির মতো অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের সরবরাহ বন্ধ থাকবে। দুপুর তিনটে পর্যন্ত চলবে চাকা জ্যাম। রবিবার একথা জানালেন স্বরাজ ইন্ডিয়া পার্টির সভাপতি যোগেন্দ্র যাদব।

ইতিমধ্যে কৃষক সংগঠনদের সেই বনধে সমর্থন জানিয়েছে ডিএমকে, তেলাঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতি, সমাজবাদী পার্টি, কংগ্রেস, এনসিপি, সিপিআই(এম), ন্যাশনাল কনফারেন্স-সহ দেশের একাধিক রাজনৈতিক দল। বনধে নৈতিক সমর্থন জানিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসও। এছাড়াও বিজেপির জোটসঙ্গী রাষ্ট্রীয় লোকতান্ত্রিক পার্টিও (আরএলপি) বনধের সমর্থনে এগিয়ে এসেছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলির সমর্থনকে স্বাগত জানিয়েছে কৃষক সংগঠনগুলি।

রবিবার সাংবাদিক বৈঠকে কৃষক নেতা বলদেব সিং যাদব বলেন, ‘শুধু পঞ্জাবের কৃষকদের নয়, এই বিক্ষোভ সারাদেশের। আমরা আমাদের প্রতিবাদ আরও জোরালো করব। যা ইতিমধ্যে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। যেহেতু সরকার আমাদের উপযুক্তভাবে সামলাতে পারেনি, তাই আমরা ভারত বনধের ডাক দিয়েছি। গতকালের (শনিবার) বৈঠকে মন্ত্রীরাও ভারত বনধে হতাশা প্রকাশ করেছেন।’

শান্তিপূর্ণভাবে বনধ পালনের জন্য সকলকে এগিয়ে আসার আর্জি জানিয়েছেন তিনি। কৃষক নেতার কথায়, ‘কেউ যেন বনধকে হিংসায় পরিণত করতে না পারে, তা নিশ্চিত করব আমরা। তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেব। আমরা সবাইকে বনধে যোগদানের আর্জি জানাচ্ছি।’ তিনি জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সকাল থেকে বনধ শুরু হবে। তা চলবে সন্ধ্যা পর্যন্ত। অ্যাম্বুলেন্স এবং জরুরি পরিষেবাকে বনধের আওতার বাইরে রাখা হচ্ছে।

পরে যোগেন্দ্র জানান, তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে অনড় আছেন কৃষকরা এবং অবস্থার কোনওরকম পরিবর্তন হয়নি। তিনি বলেন, ‘মহারাষ্ট্র এবং অন্যান্য রাজ্যের অনেক প্রতিষ্ঠানই বনধের সমর্থন করছে। হরিয়ানা, পঞ্জাব এবং রাজস্থানের সব মান্ডি বন্ধ থাকবে।’

বন্ধ করুন