বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > নকল গবেষণার অভিযোগে পিএইচডি ডিগ্রি হারালেন বাংলাদেশের অধ্যাপক
পিএইচডি গবেষণায় নকল করে ডিগ্রি হারালেন ঢাবি শিক্ষক। ছবি ডয়চে ভেল

নকল গবেষণার অভিযোগে পিএইচডি ডিগ্রি হারালেন বাংলাদেশের অধ্যাপক

  • পিএইচডি থিসিস জালিয়াতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সিন্ডিকেট সভায় লুৎফুল কবীরের ডিগ্রি বাতিল ও পদাবনতির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানান সিন্ডিকেট সদস্য এবং ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওষুধ প্রযুক্তি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবুল কালাম লুৎফুল কবীর পিএইচডি থিসিসে ৯৮ শতাংশ হুবহু নকল করায় তার ‘ডক্টরেট' ডিগ্রি বাতিল করা হয়েছে৷ দৈনিক সমকালের খবর অনুযায়ী, একই সঙ্গে তাকে সহযোগী অধ্যাপক থেকে সহকারী অধ্যাপকে পদাবনতির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম (সিন্ডিকেট)৷ তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন৷ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সিন্ডিকেটের এক সভায় তার ‘ডক্টরেট' ডিগ্রি বাতিলের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷ সভায় সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান৷ সমকালকে বিষয়টি একাধিক সিন্ডিকেট সদস্য নিশ্চিত করেছেন৷

আবুল কালাম লুৎফুল কবীর ২০১৪ সালের ‘টিউবারকিউলোসিস অ্যান্ড এইচআইভি কো-রিলেশন অ্যান্ড কো-ইনফেকশন ইন বাংলাদেশ: অ্যান এক্সপ্লোরেশন অব দেয়ার ইমপ্যাক্টস অন পাবলিক হেলথ' শীর্ষক এক নিবন্ধের কাজ শুরু করেন৷ তার এই গবেষণার তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন ওষুধ প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক আবু সারা শামসুর রউফ এবং সহ-তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন একই বিভাগের জ্যেষ্ঠ শিক্ষক অধ্যাপক আ ব ম ফারুক৷

কালাম লুৎফুল কবীরকে একাধিকবার অনুরোধ করলেও তিনি সহ-তত্ত্ববধায়কদের কাছে অভিসন্দর্ভের কোনও কপি সরবরাহ করেননি বলে কালামের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল৷ ঢাবির ওই শিক্ষকের গবেষণায় চৌর্যবৃত্তি নিয়ে গণমাধ্যমে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় ২০২০ সালের ২৫ জানুয়ারি৷ এবং ফেব্রুয়ারি মাসে সিন্ডিকেট সভায় তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও শিক্ষা কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়৷ পাশাপাশি অভিযোগ তদন্তে কমিটি করে দেয় সিন্ডিকেট৷ এবং পরে ২০২১ সালের ২৮ অক্টোবর শাস্তি দিতে একটি ট্র্যাইবুনাল গঠন করে৷

পিএইচডি থিসিস জালিয়াতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সিন্ডিকেট সভায় লুৎফুল কবীরের ডিগ্রি বাতিল ও পদাবনতির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানান সিন্ডিকেট সদস্য এবং ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির৷

(বিশেষ দ্রষ্টব্য : প্রতিবেদনটি ডয়চে ভেলে থেকে নেওয়া হয়েছে। সেই প্রতিবেদনই তুলে ধরা হয়েছে। হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার কোনও প্রতিনিধি এই প্রতিবেদন লেখেননি।)

বন্ধ করুন