২০২০ সালের কেন্দ্রীয় বাজেটে প্রথম এই বিল পাশ করানোর বিষয়ে উল্লেখ করেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।
২০২০ সালের কেন্দ্রীয় বাজেটে প্রথম এই বিল পাশ করানোর বিষয়ে উল্লেখ করেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।

জমে থাকা প্রত্যক্ষ কর সংক্রান্ত মামলার সমাধানে পাশ হল ‘বিবাদ সে বিশ্বাস’ বিল

  • নতুন আইনের মাধ্যমে চলতি বছরে প্রত্যক্ষ কর সংক্রান্ত বিতর্কের অবসান করতে অনাদায়ী করের উপরে চাপানো সুদ ও জরিমানা মকুব করে কর শোধ করার সুবর্ণ সুযোগ পাবেন করদাতারা।

প্রত্যক্ষ কর সংক্রান্ত সমস্যার মীমাংসায় শুক্রবার সংসদে প্রত্যক্ষ কর বিবাদ থেকে বিশ্বাস (বিবাদ সে বিশ্বাস) বিল ২০২০ পাশ করাল কেন্দ্র।

নতুন আইনের মাধ্যমে চলতি বছরে প্রত্যক্ষ কর সংক্রান্ত বিতর্কের অবসান করতে অনাদায়ী করের উপরে চাপানো সুদ ও জরিমানা মকুব করে কর শোধ করার সুবর্ণ সুযোগ পাবেন করদাতারা। বিলটি এ দিন ধ্বনিভোটের মাধ্যমে পাশ হওয়ার পরে অর্থ বিল হওয়ার কারণে ফেরত পাঠায় রাজ্য সভা।

গত ৪ মার্চ বিবাদ থেকে বিশ্বাস বিলটি কিছু সংশোধন সমেত পাশ করে লোক সভা। বিলটি সংসদে পেশ করার সময় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন জানান, বিভিন্ন পর্যায়ে কর সংক্রান্ত অজস্র বিতর্কের সমাধান বকেয়া থাকার ফলে করদাতাদের উপরে চাপ তৈরি হচ্ছে। সেই সমস্ত সমস্যার সঠিক সমাধানের উদ্দেশেই বিলটি পাশ করার জন্য জমা দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

বিলের বিরোধিতা করে কংগ্রেস সাংসদ এম ভি রাজীব গৌড়া বলেন, তাড়াহুড়ো করে এই বিল আনা হয়েছে এবং তাতে এককালীন কর মিটিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। তাঁর অভিযোগ, কর সমস্যার মূল বিষয় নিয়ে আলোচনায় আগ্রহী নয় সরকার। তাঁর দাবি, অবাস্তব কর সংগ্রহ ব্যবস্থা করদাতাদের উপরে অনর্থক চাপ তৈরি করছে।

বিরোধীদের অভিযোগ খারিজ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, নতুন আইন করদাতাদের জমে থাকা বিভিন্ন বিতর্কের সুষ্ঠু সমাধানের সুযোগ দেবে। তিনি জানান, বিল সংক্রান্ত সবিস্তার তথ্য একাধিক ভাষায় অনুবাদ করে রাজ্য প্রশাসনগুলিকে পাঠানো হবে।

২০২০ সালের কেন্দ্রীয় বাজেটে প্রথম এই বিল পাশ করানোর বিষয়ে উল্লেখ করা হয়। এরপর গত ১২ ফেব্রুয়ারি বিলটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। বিবাদ থেকে বিশ্বাস বিল ২০২০ ৪.৮৩ লাখ প্রত্যক্ষ কর সংক্রান্ত মামলার নিষ্পত্তি ঘটিয়ে বকেয়া ৯.৩২ লাখ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করার পথ দেখাবে বলে দাবি কেন্দ্রীয় সরকারের।

বন্ধ করুন