বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > পুণের কারখানায় অগ্নিকাণ্ড: শনাক্ত করা যাচ্ছে না দেহ, ভরসা DNA টেস্ট
পুণের রাসায়নিক কারখানায় অগ্নিকাণ্ড।  (ছবি সৌজন্য, প্রথম গোখলে/হিন্দুস্তান টাইমস)
পুণের রাসায়নিক কারখানায় অগ্নিকাণ্ড।  (ছবি সৌজন্য, প্রথম গোখলে/হিন্দুস্তান টাইমস)

পুণের কারখানায় অগ্নিকাণ্ড: শনাক্ত করা যাচ্ছে না দেহ, ভরসা DNA টেস্ট

এখনও পর্যন্ত অবশ্য মৃতদেহ মৃতের পরিবারের লোকজনদের হস্তান্তর করে দেওয়া সম্ভব হয়নি। 

মহারাষ্ট্রের পুরানগাটের উরাওয়াদেতে রাসায়নিক কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দগ্ধ দেহগুলি শনাক্তকরণে অসুবিধা হচ্ছে। সেইকারণে দেহ শনাক্তকরণের জন্য ডিএনএ পরীক্ষা করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে পুণে গ্রামীণের পুলিশ সুপার অভিনব দেশমুখ জানান,‘‌ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের জন্য সবকটি দেহ পুড়ে গিয়েছে।দেহ চিহ্নিতকরণের জন্য ডিএনএ পরীক্ষা করা প্রয়োজন।সেই কারণে মৃতের পরিবারের লোকেদের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে।’‌ হাসপাতালের তরফে জানানো হয়েছে, চিকিৎসকরাই একমাত্র লিঙ্গ নির্ধারণ করতে সক্ষম।কিন্তু ডিএনএ পরীক্ষা ছাড়া এই বিষয়ে কিছু বলা মুশকিল।ইতিমধ্যে একদল চিকিৎসক মৃতদেহের ময়নাতদন্তের কাজ করেছে।কিন্তু এখনও পর্যন্ত অবশ্য মৃতদেহ মৃতের পরিবারের লোকজনদের হস্তান্তর করে দেওয়া সম্ভব হয়নি।প্রশাসনের তরফে নিখোঁজ পরিবারের সদস্যদের ডেকে পাঠানো হচ্ছে।তাদের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে তা পুণের ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হবে।

জানা গিয়েছে, যেহেতু কারখানার মধ্যে এই বিস্ফোরণের ঘটনাটি ঘটেছে, তাই অনেক দেহই ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে।প্রথমে মনে করা হয়েছিল, রাসায়নিক কারখানার ভিতরে ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।কিন্তু জানা যাচ্ছে, ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।এদিকে এই ঘটনার পর মৃতের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যান মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দিলীপ ওয়ালসে পাতিল।গোটা ঘটনায় মৃতের পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান তিনি।

বন্ধ করুন