বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মুঙ্গেরের জেলাশাসক–পুলিশ সুপারকে সরাল নির্বাচন কমিশন, গুলিতে মৃত্যুর তদন্ত চলছে
জনতার রোষের গাড়ি (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
জনতার রোষের গাড়ি (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

মুঙ্গেরের জেলাশাসক–পুলিশ সুপারকে সরাল নির্বাচন কমিশন, গুলিতে মৃত্যুর তদন্ত চলছে

  • চরম পদক্ষেপ করল নির্বাচন কমিশন। 

চরম পদক্ষেপ করল নির্বাচন কমিশন। দুর্গা প্রতিমা বিসর্জনকে ঘিরে রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছিল মুঙ্গের। পুলিশের গুলিতে প্রাণ গিয়েছিল এক যুবকের। সোমবার রাতের সেই ঘটনায় মুঙ্গেরের জেলাশাসক রাজেশ মিনা এবং পুলিশ সুপার লিপি সিংকে সরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিল নির্বাচন কমিশন। বৃহস্পতিবারই মহকুমা শাসক ও পুলিশ সুপারের অফিসে চড়াও হয় উত্তেজিত জনতা। ভাঙচুরের পর দুই অফিসে আগুন ধরিয়ে দেয় তারা। এলাকায় শান্তি ফেরাতে টহল দিচ্ছে পুলিশ।

বিহারের চিফ ইলেক্টোরাল অফিসার জানান, মুঙ্গেরের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট এলাকার জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারকে দ্রুত সরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, মগধের ডিভিশনাল কমিশনার আসঙ্গা চৌবের নেতৃত্বে গোটা ঘটনার তদন্তের নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। সাতদিনের মধ্যে তদন্ত শেষ করে রিপোর্ট জমা করতে হবে।

উল্লেখ্য, বিহারে বিধানসভা নির্বাচন চলছে। তাই আপাতত সে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে রয়েছে নির্বাচন কমিশন। পুলিশের গুলিতে ১৮ বছরের যুবক অনুরাগ কুমার পোদ্দার মারা যান। আর ন'জন গুরুতর আহত হয়েছিলেন। এছাড়া পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে ২৭ জন আহত হয়েছিলেন। বিহারের এডিজি জিতেন্দ্র কুমার জানিয়েছেন, ঘটনার তদন্ত চলছে।

দশমীর দিন দুর্গা প্রতিমা বিসর্জনের সময় রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় মুঙ্গের। অভিযোগ, পুলিশ শোভাযাত্রার উপর এলোপাথাড়ি লাঠি চালায় ও পরে গুলি ছোড়ে। তাতে একজনের মৃত্যু হয়। পুলিশের দাবি, দ্রুত শোভাযাত্রা শেষ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তারপরই শোভাযাত্রার মধ্যে থাকা দুষ্কৃতীরা গুলি চালায়। যদিও ভাইরাল হওয়া ভিডিয়োতে পুলিশকেই লাঠিপেটা করতে ও গুলি চালাতে দেখা গিয়েছে।

বন্ধ করুন