বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মূল্যবৃদ্ধি রুখতে RIL, টাটা, আদানির মতো পাঁচ সংস্থাকে ভেঙে দেওয়ার সওয়াল প্রাক্তন RBI কর্তার

মূল্যবৃদ্ধি রুখতে RIL, টাটা, আদানির মতো পাঁচ সংস্থাকে ভেঙে দেওয়ার সওয়াল প্রাক্তন RBI কর্তার

ফাইল ছবি: মিন্ট (Mint)

বর্তমানে নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি স্টার্ন স্কুলের অর্থনীতির অধ্যাপক ভিরাল। তাঁর মতে, দেশের জন্য 'চ্যাম্পিয়ন সংস্থা' তৈরি করাকেই অনেকে 'নতুন ভারতের' শিল্প নীতি হিসাবে বিবেচনা করছে। কিন্তু সম্ভবত, ঠিক এই কারণেই দাম এতটা উচ্চ স্তরে পৌঁছে গিয়েছে।

একচেটিয়া পাঁচটি সংস্থা ব্যবসা করছে। সেটি সঠিক পরিস্থিতি নয়। ঠিক এই কারণেই এহেন মুদ্রাস্ফীতি। এটি বন্ধ করা উচিত্। এমনই বললেন RBI-এর প্রাক্তন কর্তা ভিরাল আচার্য। ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার ডেপুটি গভর্নর ছিলেন তিনি। তাঁর মতে, এই 'বিগ ফাইভ' সংস্থা হল রিলায়েন্স গ্রুপ, টাটা গ্রুপ, আদিত্য বিড়লা গ্রুপ, আদানি গ্রুপ এবং ভারতী টেলিকম।

প্রাক্তন কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কারের মতে, এই বড় সংস্থাগুলির কারণে ছোট স্থানীয় ব্যবসাগুলি চাপে পড়ে গিয়েছে। সেই সঙ্গে উচ্চ শুল্কের কারণে বিদেশ থেকে এসেও কোনও সংস্থা সেভাবে সুবিধা করতে পারছে না। আরও পড়ুন: SBI-এর প্রয়োজন যাচাই না করেই ৮,৮০০ কোটি টাকা দিয়ে দিয়েছে কেন্দ্র!

বর্তমানে নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি স্টার্ন স্কুলের অর্থনীতির অধ্যাপক ভিরাল। তাঁর মতে, দেশের জন্য 'চ্যাম্পিয়ন সংস্থা' তৈরি করাকেই অনেকে 'নতুন ভারতের' শিল্প নীতি হিসাবে বিবেচনা করছে। কিন্তু সম্ভবত, ঠিক এই কারণেই দাম এতটা উচ্চ স্তরে পৌঁছে গিয়েছে।

তাঁর সুপারিশ, প্রতিযোগিতা বাড়াতে এবং সংস্থাগুলির দাম নির্ধারণের ক্ষমতা কমাতে এই ধরণের বড় সংগঠনগুলি ভেঙে দেওয়া উচিত। বিশ্বের উদীয়মান বাজারগুলির উপর ব্রুকিংস ইনস্টিটিউট প্যানেলে প্রকাশিত এক গবেষণাপত্রে তিনি এমনটাই লিখেছেন।

তিনি আরও ব্যাখা করে বলেন, দেশে কাঁচমালের দাম অনেক কমানো হয়েছে। কিন্তু তাতে দেশের সাধারণ ক্রেতাদের খুব একটা লাভ হয়নি। কারণ এই বিগ 5 কোম্পানিই ধাতু, কোক, বাণিজ্য ও টেলিযোগাযোগ, পরিশোধিত পেট্রোলিয়াম পণ্যের পাশাপাশি খুচরা বিক্রির সমস্ত দাম নিয়ন্ত্রণ করে।

ভিরাল আচার্য বরাবরই একটু 'ঠোঁট কাটা' হিসাবে পরিচিত। এমনটা নয় যে তিনি এখন পদে নেই বলে এহেন সমালোচনার পথে হাঁটছেন। এর আগেও বারবার নির্ভয়ে বিভিন্ন কেন্দ্রীয় নীতির বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন এই নির্ভীক অর্থনীতিবিদ। আরবিআই গভর্নর শক্তিকান্ত দাসের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেও গিয়েছেন। তাঁর মতে, ভারতের সামগ্রিক অর্থনৈতিক ভারসাম্য পুনরুদ্ধার করতে হবে।

জুন ২০১৯-এ পদত্যাগ করার আগে আচার্যকে RBI-এর সবচেয়ে স্পষ্টবাদী কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কারদের একজন হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছিল - তার মেয়াদ শেষ হওয়ার ছয় মাস আগে। তিনি কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের স্বাধীনতার একজন কট্টর রক্ষক ছিলেন যা 2018 সালে একটি কঠোর আঘাতমূলক বক্তৃতায় পরিণত হয়েছিল এবং সেই সময়ে সরকার এবং মুদ্রা হার নির্ধারণকারীদের মধ্যে উত্তেজনা প্রকাশ করেছিল। আরও পড়ুন: Fixed Deposit Rate: আরও বাড়তে পারে FD-র সুদের হার! ইঙ্গিত রিজার্ভ ব্যাঙ্কের

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বন্ধ করুন