বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ওমিক্রন আবহে উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনের জন্য কীভাবে প্রস্তুত হচ্ছে কমিশন?
ওমিক্রন আবহেই উত্তরপ্রদেশে নির্বাচন চায় সব দল (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
ওমিক্রন আবহেই উত্তরপ্রদেশে নির্বাচন চায় সব দল (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

ওমিক্রন আবহে উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনের জন্য কীভাবে প্রস্তুত হচ্ছে কমিশন?

  • প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা বাড়ানো হবে এবং ভোটের সময় এক ঘণ্টা বাড়ানো হবে।

কোভিড বিধি মেনেই উত্তরপ্রদেশে অবাধ ও সুষ্ঠু বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠানের বার্তা দিল ভারতের নির্বাচন কমিশন। দেশের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুশীল চন্দ্র বৃহস্পতিবার এই বিষয়ে বলেন, ‘রাজ্যের সমস্ত রাজনৈতিক দল সূচি অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠানে আগ্রহী। আর তাই কঠোর ভাবে কোভিড প্রটোকল প্রয়োগের মাধ্যমে উত্তরপ্রদেশে অবাধ ও সুষ্ঠু বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ আমরা।’

প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুশীল চন্দ্র বলেন, ‘উত্তরপ্রদেশ বিধানসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে ১৪ মে। এই প্রেক্ষিতে সমস্ত রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরা আমাদের সাথে দেখা করে বলেছিলেন যে সমস্ত কোভিড প্রোটোকল অনুসরণ করে সময়মতো নির্বাচন করা উচিত। আমরা সমস্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, জেলার পুলিশ সুপার এবং অন্যান্য সিনিয়র অফিসারদের সাথেও এই বিষয়ে আলোচনা করেছি।’

কোভিড-১৯ মহামারীর উল্লেখ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা বাড়ানো হবে এবং ভোটের সময় এক ঘণ্টা বাড়ানো হবে। তিনি আরও বলেন, বুথে শুধুমাত্র সম্পূর্ণ টিকাপ্রাপ্ত ভোটকর্মীদেরই মোতায়েন করা হবে। চন্দ্র বলেন, ‘এর আগে দেড় হাজার ভোটারের জন্য একটি বুথ তৈরি করা হত। কিন্তু কোভিড-১৯ মহামারীর কথা মাথায় রেখে প্রতিটি বুথে ভোটার সংখ্যা কমিয়ে ১,২৫০ করা হয়েছে। এই কারণে ১১ হাজার ভোটকেন্দ্র বাড়ানো হবে। সুতরাং, মোট ১ লক্ষ ৭৪ হাজার ৩৫১টি ভোট কেন্দ্র স্থাপন করা হবে উত্তরপ্রদেশে।’

চন্দ্রা বলেন যে বিধানসভা নির্বাচনের সূচি ঘোষণা করার আগে প্যানেল পাঁচ নির্বাচনী রাজ্যে কোভিড পরিস্থিতি বিবেচনা করবে। তিনি আরও বলেন, ‘কোভিড গ্রাফ অনুয়াযী বড় রাজনৈতিক সমাবেশগুলি কমিয়ে ভার্চুয়াল সমাবেশ করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ এর আগে ওমিক্রন আতঙ্কের মাঝেই এলাহাবাদ হাই কোর্ট উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার এবং জনসভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করার অনুরোধ জানিয়েছিল নির্বাচন কমিশন ও প্রধানমন্ত্রীকে। এই অনুরোধের বিষয়ে নজর দেওয়া হবে বলেও জানান সুশীল চন্দ্র।

বন্ধ করুন