বাঁ দিকে তৌসিফের আঁকা শিব ঠাকুরের ছবি
বাঁ দিকে তৌসিফের আঁকা শিব ঠাকুরের ছবি

একটা পোস্টে আপত্তি হলে গোটা প্রোফাইল ডিঅ্যাকটিভেট করা হয় না: ফেসবুক আধিকারিক

  • তিনি জানিয়েছেন, ‘কোনও ব্যক্তির বিরুদ্ধে বারবার একাধিক পোস্টে ফেসবুকের কমিউনিটি নীতিমালা ভঙ্গ করার অভিযোগ উঠলে তবেই তার প্রোফাইল বা পেইজ আনপাবলিশ করার ব্যাপারে ভাবে ফেসবুক।

তৌসিফ হকের শিব ঠাকুরের ছবি নিয়ে বিতর্ক ও তার পর ফেসবুক থেকে তাঁর প্রোফাইল গায়েব হয়ে যাওয়া নিয়ে দোষারোপ ও পালটা দোষারোপের মধ্যে এল ফেসবুকের প্রতিক্রিয়া। ফেসবুকের তরফে জানানো হয়েছে, একটি পোস্ট নিয়ে আপত্তিতে সারবত্তা থাকলে সেই পোস্টটি মুছে দিতে পারে ফেসবুক। কিন্তু সেজন্য গোটা প্রোফাইল ডিঅ্যাকটিভেট করে দেওয়া ফেসবুকের নীতি বিরুদ্ধ।

ফেসবুকের এক বাঙালি আধিকারিক নাম না প্রকাশের শর্তে হিন্দুস্তান টাইমস বাংলাকে বলেন, ‘কোনও নির্দিষ্ট ব্যক্তির সঙ্গে কী ঘটেছে তা বলা সম্ভব নয়। তবে ফেসবুকের বিরুদ্ধে এক্ষেত্রে যে ধরণের অভিযোগ উঠছে তা সম্ভবত সঠিক নয়।‘ বলে রাখি তৌসিফের প্রোফাইল গায়েব হওয়ার পর ফেসবুকেই সিপিএমের প্রাক্তন সাংসদ শমীক লাহিড়ি লিখেছিলেন, ‘ফ্যাসিবাদকে মদত করছে ফেসবুক’।

এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে ফেসবুকের সেই আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘ফেসবুকে কোনও পোস্টে যে কেউ আপত্তি জানাতে পারেন। তার সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি রয়েছে। প্রতিটি নালিশ খতিয়ে দেখার জন্য আমাদের কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। তারা পোস্টটির বিরুদ্ধে ওঠা আপত্তির সঙ্গে ফেসবুকের কমিউনিটি নীতিমালা পুঙ্খাণুপুঙ্খ তুলনা করে সিদ্ধান্ত নেন। নীতিমালার বাইরে কোনও পদক্ষেপ করার অধিকার কারও নেই। ফেসবুকের নীতিমালা একটি সার্বজনীন নথি। ফেসবুকে যে কোনও সময় সেটি পড়া যেতে পারে। ফলে এক্ষেত্রে ব্যবহারকারীকে অন্ধকারে রেখে কিছু করাও সম্ভব নয়।’

তিনি জানিয়েছেন, ‘কোনও ব্যক্তির বিরুদ্ধে বারবার একাধিক পোস্টে ফেসবুকের কমিউনিটি নীতিমালা ভঙ্গ করার অভিযোগ উঠলে তবেই তার প্রোফাইল বা পেইজ আনপাবলিশ করার ব্যাপারে ভাবে ফেসবুক। কিন্তু একটিমাত্র পোস্টে অভিযোগ উঠলে শুধুমাত্র সেটিকে আনপাবলিশ করে সংস্থা।’

একই সঙ্গে তাঁর দাবি, ‘ফেসবুকে কোনও পোস্ট, পেইজ বা প্রোফাইলের বিরুদ্ধে নীতিভঙ্গের অভিযোগ উঠলে সেই অভিযোগ কতজন করেছেন তার কোনও প্রভাব ফেসবুকের সিদ্ধান্তের ওপর পড়ে না। কেউ নীতিভঙ্গ করে থাকলে তা একজন নালিশ করলেই ফেসবুক তাতে পদক্ষেপ করে। আবার কেউ নীতিভঙ্গ না করলে ১ লক্ষ লোক অভিযোগ করলেও কোনও পদক্ষেপ করা হয় না।’

বলে রাখি, শিবরাত্রিতে শিবের একটি ছবি এঁকে ফেসবুকে পোস্ট করেন শিল্পী তৌসিফ হক। সঙ্গে শিব নিয়ে তাঁর ভাবনা লেখেন তিনি। সেখানে ‘মস্তান’ শব্দের উল্লেখ ঘিরে অনেকে আপত্তি জানান। এমনকী ‘আরবি নামধারী’ একজনের হিন্দু দেবতা শিব নিয়ে মন্তব্য করার অধিকার রয়েছে কি না তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন অনেকে। ঘটনাক্রমে তিনি ব্যথিত বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন শিল্পী তৌসিফ হক।



বন্ধ করুন