বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > কৃষক আন্দোলনের বর্ষপূর্তির আগেই মোদীর ঐতিহাসিক ঘোষণা, একনজরে ঘটনাপ্রবাহ
টিকরি সীমান্তে কৃষকদের উচ্ছ্বাস (ছবির সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)
টিকরি সীমান্তে কৃষকদের উচ্ছ্বাস (ছবির সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)

কৃষক আন্দোলনের বর্ষপূর্তির আগেই মোদীর ঐতিহাসিক ঘোষণা, একনজরে ঘটনাপ্রবাহ

  • এদিন গুরু নানক জয়ন্তীর দিন প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের 'উপহার' দেন। এই আবহে বিগত একবছরে এই বিতর্কের ঘটনাপ্রবাহের উপর নজর রাখুন:

দীর্ঘ প্রায় এক বছর ধরে কৃষকদের আন্দোলন, সরকার-বিরোধীর তরজার মাঝে শেষ পর্যন্ত কৃষি আইন বিতর্কে জল ঢাললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিন গুরু নানক জয়ন্তীর দিন প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের 'উপহার' দেন। এই আবহে বিগত একবছরে এই বিতর্কের ঘটনাপ্রবাহের উপর নজর রাখুন:

৫ জুন, ২০২০: প্রথমবারের জন্য তিনটি কৃষি আইনের প্রস্তাব পেশ করে কেন্দ্রীয় সরকার।

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০: রাজ্যসভায় কেন্দ্রের প্রস্তাবিত কৃষি বিল পাশ হয় ধ্বনি ভোটেই।

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০: দেশজুড়ে কৃষকরা কেন্দ্রের আনা কৃষি বিলের বিরোধিতায় রাস্তায় নামেন।

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০: সংসদে পাশ হওয়া কৃষি বিল রাষ্ট্রপতির সইয়ে আইনে পরিণত হয়।

২৫ নভেম্বর, ২০২০: কৃষি আইনের বিরোধিতায় 'দিল্লি চলো'র ডাক দিয়েছিলেন বিক্ষোভকারী কৃষকরা।

২৬ নভেম্বর, ২০২০: দিল্লিতে ঢুকতে না পেরে রাজধানীর তিনটি সীমানায় অবস্থান-বিক্ষোভ শুরু করেন তাঁরা। সেই আন্দোলন এখনও চলছে।

৩ ডিসেম্বর, ২০২০: সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে প্রথমবার কেন্দ্রের মুখোমুখি হয়ে আন্দোলনকারী কৃষক সংগঠনগুলি।

৯ ডিসেম্বর, ২০২০: আন্দোলন থামাতে কৃষি আইন প্রত্যাহারের প্রস্তাব রেখেছিল কেন্দ্র। কেন্দ্রের সেই প্রস্তাব খারিজ করে কৃষক সংগঠনগুলি।

১১ ডিসেম্বর, ২০২০: কৃষি আইনকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় কৃষক সংগঠনগুলি।

৪ জানুয়ারি, ২০২১: সরকারের সঙ্গে কৃষকদের সপ্তম দফার বৈঠকও ভেস্তে যায়।

১২ জানুয়ারি, ২০২১: কেন্দ্রের তিন কৃষি আইন লাগু করার উপর স্থগিতাদেশ জারি করে দেশের সর্বোচ্চ আদালত।

২৬ জানুয়ারি, ২০২১: প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন লালকেল্লায় উঠে পতাকা উত্তোলন করেন আন্দোলকারীদের একাংশ।

২৭ মে, ২০২১: আন্দোলনের মাস পূর্তি উপলক্ষে কালা দিবস পালন করেন কৃষকরা। কৃষক নেতা রাকেশ তিকাইত ঘোষণা করেন, প্রয়োজনে এই আন্দোলন ২০২৪ সাল পর্যন্ত চলবে।

জুলাই, ২০২১: সংসদে বাদল অধিবেশ চলাকালীন সংসদ ভবনের বাইরে ২০০ কৃষক আন্দোলকারী 'কিষাণ সংসদ' বসান। সংসদে গান্ধী মূর্তির সামনে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেন বিরোধী সাংসদরাও।

২৮ অগস্ট, ২০২১: হরিয়ানায় পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে বিজেপির বৈঠক ঘিরে চরম উত্তেজনা ছড়ায় কার্নালে। সেখানে কৃষকদের উপর লাঠিচার্জ করা হয়। ঘটনার প্রতিবাদে লাঠিচার্জের নির্দেশ দেওয়া আইএএস কর্তা আয়ূষ সিংহের পদত্যাগ দাবি করা হয়।

১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১: কার্নালে কৃষকদের চাপের মুখে পিছু হঠে হরিয়ানা সরকার।

৩ অক্টোবর, ২০২১: উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রের ছেলে আশিস মিশ্রের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে কৃষকদের উপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে দেওয়ার। সহিংসতার ঘটনায় মোট ৮ জনের মৃত্যু হয়।

১০ অক্টোবর, ২০২১: লখিমপুরের ঘটনায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রের ছেলে আশিস মিশ্রকে বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠায় আদালত।

১৯ নভেম্বর, ২০২১: জাতির উদ্দেশে এক ভাষণে এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেন যে কেন্দ্র তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহার করবে। মোদী এদিন বলেন, 'এই তিনটি আইনের লক্ষ্য ছিল কৃষকদের, বিশেষ করে ছোট কৃষকদের ক্ষমতা বাড়ানো। কৃষকদের স্বার্থে আইনগুলি আমরা প্রয়োগের পরিকল্পনা করেছিলাম কিন্তু এক শ্রেণির কৃষকদের বোঝাতে পারিনি। আমি দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাইছি। হায়ত আমাদের তপস্যাতেই খামতি ছিল। কাউকে দোষ দেওয়ার সময় এটা নয়। আমরা তিন কৃষি আইন প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামী সাংসদ অধিবেশনে তিন কৃষি আইন বাতিল করার ব্যবস্থা করা হবে। সকল আন্দোলনকারী কৃষককে আমি তাঁদের বাড়ি ফিরে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।'

বন্ধ করুন