বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Farmers protest: দেশের টানে ভারতে ফিরে ‘শহিদ’ হলেন নবরীত, থমথমে ডিবডিবা
দিল্লির গাজিপুর সীমান্তে বিক্ষুব্ধ কৃষকদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটায় পুলিশ। এই বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করেই ট্র্যাক্টর উলটে প্রাণ হারান তরুণ কৃষক নবরীত সিং। 
দিল্লির গাজিপুর সীমান্তে বিক্ষুব্ধ কৃষকদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটায় পুলিশ। এই বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করেই ট্র্যাক্টর উলটে প্রাণ হারান তরুণ কৃষক নবরীত সিং। 

Farmers protest: দেশের টানে ভারতে ফিরে ‘শহিদ’ হলেন নবরীত, থমথমে ডিবডিবা

  • মাত্র কিছু দিন আগে স্ত্রী মনসুইটকে মেলবোর্নে রেখে গ্রামে ফিরেছিলেন সদ্য বিবাহিত নবরীত সিং। গ্রামবাসীদের হৃদয়ে তিনি ইতিমধ্যে শহিদের মর্যাদায় প্রতিষ্ঠা পেয়েছেন।

গত ২৩ জানুয়ারি দিল্লিতে কৃষক আন্দোলনে যুক্ত তরুণ নবরীত সিংয়ের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ উত্তর প্রদেশের রামপুর জেলার ডিবডিবা গ্রাম। কড়া পুলিশি নজরদারিতে থাকা গ্রামবাসীদের হৃদয়ে তিনি ইতিমধ্যে শহিদের মর্যাদায় প্রতিষ্ঠা পেয়েছেন।

মাত্র কিছু দিন আগে অস্ট্রেলিয়া থেকে ফিরেছিলেন সদ্য বিবাহিত নবরীত সিং (২৪)। দেশে ফিরে কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের বিরুদ্ধে পঞ্জাব, হরিয়ানা ও উত্তর প্রদেশের কৃষকদের বিক্ষোভে তিনি স্বেচ্ছায় অংশগ্রহণ করেন। প্রতিবাদে শামিল হয়ে অন্যান্য বিক্ষুব্ধ কৃষকদের সঙ্গে পৌঁছে গিয়েছিলেন দিল্লির গাজিপুর সীমান্তে। 

গত মঙ্গলবার সহ-প্রতিবাদীদের সঙ্গে ট্র্যাক্টরে দিল্লির কেন্দ্রস্থলের উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন নবরীত। কিন্তু লক্ষ্যে পৌঁছনোর আগেই উলটে যায় তাঁর ট্র্যাক্টরটি। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয় নবরীতের নিথর দেহ। মৃত্যুর কারণ নিয়ে নানান জল্পনার মাঝেই বুধবার নবরীতের শেষকৃত্য সম্পন্ন করে পরিবার। 

নবরীতের অকালমৃত্যুর আকস্মিকতায় থমথমে হয়ে গিয়েছে ৮,০০০ বাসিন্দার গ্রাম ডিবডিবা। পুলিশি পাহারাদারির মাঝে গোটা গ্রামে যেন অঘোষিত কারফিউয়ের পরিবেশ দেখা দিয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ায় বসে স্বামীর মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়া মারফৎ দুঃসংবাদ পান নবরীতের স্ত্রী মনসুইট (২১)। তার পর থেকে ক্ষণে ক্ষণে সংজ্ঞা হারাচ্ছেন তরুণী। আর ডিবডিবায় নাতির শেষকৃত্যের পরে নবরীতের ঠাকুরদা শুধু বলতে পেরেছেন, ‘ও শহিদের মৃত্যু বরণ করেছে।’

বরাবরই বর্ধিষ্ণু নবরীতের পরিবারের ১২ একর কৃষিজমি রয়েছে ডিবডিবায়। তাঁর ঠাকুরদা শিখ ধর্ম সম্পর্কে এবং সন্ত্রাসবাদের বিরোধিতায় পঞ্জাবি ভাষায় ইতিমধ্যে পাঁচটি বই রচনা করেছেন। বুধবার তিনি বলেন, ‘আমি এই আন্দোলন সম্পর্কে লিখব। সবাইকে সত্যিটা জানাব।’

অন্য দিকে রামপুরের অতিরিক্ত এসপি সংসার সিং জানিয়েছেন, পুলিশ ডিবডিবা গ্রামে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সজাগ রয়েছে।

পাঁচ বছর আগে উচ্চশিক্ষার জন্য অস্ট্রেলিয়া পাড়ি দিয়েছিলেন নবরীত, আর তাঁর বোন বেছে নিয়েছিলেন কানাডা। বাণিজ্যে স্নাতক কোর্সে পড়ার সময় মেলবোর্নে নবরীতের সঙ্গে মনসুইটের পরিচয় হয়। ক্রমে আলাপ পরিণত হয় ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে এবং ২০২০ সালে তাঁরা বিয়ে করেন। 

তিন-চার মাস আগে বিয়ে উপলক্ষে পারিবারিক অনুষ্ঠান সারতে তিনি বাড়ি ফিরেছিলেন। সে সব মিটে গেলেও পরিবারের কৃষি কাজে সাহায্য করতে তিনি ভারতে পাকিপাকি বসবাসের সিদ্ধান্ত নেন। ও দিকে, স্নাতক স্তরের পড়া শেষ করতে মনসুইট মেলবোর্নে থেকে যান।

কেন্দ্রের তিন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে দিল্লিতে বিক্ষোভ শুরু হলে তাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন নবরীত। আশপাশের গ্রামের নবীন কৃষকদের সঙ্গে তিনিও দফায় দফায় গাজিপুর সীমান্তে গিয়ে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ অবস্থানে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। ২৩ জানুয়ারি সেই আন্দোলনে যোগ দিয়েই তাঁর মৃত্যু হয়।

বন্ধ করুন