বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > হোয়াটস অ্য়াপ স্ট্যাটাসের জন্য কাশ্মীরের সাংবাদিকের বিরুদ্ধে পুলিশের এফআইআর
কাশ্মীরে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে এফআইআর (প্রতীকী ছবি)
কাশ্মীরে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে এফআইআর (প্রতীকী ছবি)

হোয়াটস অ্য়াপ স্ট্যাটাসের জন্য কাশ্মীরের সাংবাদিকের বিরুদ্ধে পুলিশের এফআইআর

  • কিছুক্ষণের মধ্যে সেই স্ট্যাটাস মুছেও দেন তিনি

নর্থকাশ্মীরের বান্দিপোরা জেলায় স্থানীয় একটি নিউজ এজেন্সিতে সাংবাদিক হিসাবে কর্মরত সাজিদ রানা। ২৪ বছর বয়সী ওই সাংবাদিক গত ৩০শে মে তাঁর হোয়াটস অ্যাপ স্ট্যাটাসে কয়েকটি বাচ্চার ছবি দিয়েছিলেন। তাতে লেখা ছিল 'Wular Martyred'। আর সেই হোয়াটস অ্যাপ স্ট্যাটাসের জেরেই জম্মু- কাশ্মীর পুলিশ তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর করেছে। সূত্রের খবর, ২০০৬ সালের ৩০শে মে নর্থ কাশ্মীরের উলার লেকে নেভি বোটে জয় রাইড করার সময় একজন শিক্ষক ও ২১জন স্কুল ছাত্রের নৌকাডুবিতে মৃত্যু হয়েছিল। ওই স্কুলছাত্রদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিল ১০ বছরের নীচে। দীর্ঘ বছর আগের সেই  দুর্ঘটনার কথাই নিজের হোয়াটস অ্যাপ স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেছিলেন ওই সাংবাদিক। এরপরই তাঁর বিরুদ্ধে পুলিশের এফআইআর। তবে যেদিন ওই স্ট্যাটাস তিনি দিয়েছিলেন সেদিনই তিনি তা মুছে দেন।

সাজিদ রায়না হিন্দুস্তান টাইমসকে জানিয়েছেন,' নৌকাডুবির ঘটনাকে উল্লেখ করেই আমি বাচ্চাদের ছবি সহ একটি ব্যানার হোয়াটস অ্য়াপ স্ট্যাটাসে দিয়েছিলাম। এটা একেবারেই সাধারণ একটি স্ট্যাটাস। ওই দিন যে শিশুদের মৃত্যু হয়েছিল তাদের স্মরণ করেই এই স্ট্যাটাস। এর মধ্যে কোনও অসৎ অভিপ্রায় ছিল না। এর মধ্যে কোনও রাজনীতিও নেই।' তিনি জানিয়েছেন,'স্ট্যাটাস আপলোড করার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই  সিকিউরিটি এজেন্সি থেকে ফোন করা হয়। ফোন করে বলা হয় স্ট্যাটাস দেখে তাঁরা হতাশ। শহিদ শব্দটি নিয়েই তাঁদের সমস্য়া রয়েছে। আমি বলেছি এই স্ট্য়াটাস নিয়ে ভুলের কিছু নেই। কিন্তু যদি আপনারা বলেন এটা ঠিক নয়, তবে মুছেও দিতে পারি। মাত্র ২০জন এই স্ট্য়াটাস দেখেছেন।' এমনটাই তিনি সিকিউরিটি এজেন্সিকে জানিয়েছিলেন। তাঁর দাবি, ক্ষমা চাওয়া সত্ত্বেও  ১লা জুন তিনি জানতে পারেন ৩১শে মে তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে। সিনিয়র সুপারিন্টেডেন্ট অফ পুলিশ মহম্মদ জাইদ বলেন, 'কারোর পেশার বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। '

 

বন্ধ করুন