বাড়ি > ঘরে বাইরে > জামশেদপুরে ৫ বছরের শিশুকন্যার মাথা থেঁতলে ও হাত কেটে খুন, গ্রেফতার সৎবাবা
জামশেদপুরে নৃসংশ অত্যাচার করে খুন করা হল ৫ বছরের শিশুকন্যাকে। তদন্তে নেমেছে পুলিশ।
জামশেদপুরে নৃসংশ অত্যাচার করে খুন করা হল ৫ বছরের শিশুকন্যাকে। তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

জামশেদপুরে ৫ বছরের শিশুকন্যার মাথা থেঁতলে ও হাত কেটে খুন, গ্রেফতার সৎবাবা

  • মাথা থেঁতলে, হাত কেটে এবং সারাগায়ে সিগারেটের ছ্যাঁকা দিয়ে খুন করা হয় শিশুটিকে। সুবর্ণরেখার তীর থেকে উদ্ধার বিকৃত দেহ।

পাঁচ বছরের বালিকার মাথা থেঁতলে, হাত কেটে এবং সারাগায়ে সিগারেটের ছ্যাঁকা দিয়ে খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে শিশুর সৎবাবা-সহ চার জনকে গ্রেফতার করল ঝাড়খণ্ড পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার ময়না তদন্তের রিপোর্টে মেয়েটির গলা টিপে শ্বাসরোধজনিত চিহ্নের উল্লেখ রয়েছে। পাথর দিয়ে তার মাথা থেঁতলানো হয় এবং জ্বলন্ত সিগারেট দিয়ে সারা গায়ে ছ্যাঁকার দাগ পাওয়া গিয়েছে। তার বাঁ হাতটি কেটে বাদ দেওয়া হয়েছে বলেও রিপোর্টে বলা হয়েছে। 

জামশেদপুরের এসএসপি এম তামিল ভানান জানিয়েছেন, ময়না তদন্তের চূড়ান্ত রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করা হচ্ছে। তাতে শিশুকন্যাকে ধর্ষণ করা হয়েছিল কি না, সে সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

বুধবার সকালে জামশেদপুরের সোনারি অঞ্চলে সুবর্ণরেখা নদীর তীর থেকে বালিকার বিকৃত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সোমবার থেকে সে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয় বলে জানা গিয়েছে। 

ভানান জানিয়েছেন, ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহত শিশুটির সৎবাবা সুপির্য় ঘোষ ও তাঁর তিন বম্ধুকে আটক করা হয়েছে। এ ছাড়া, আরও ১০-১২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃতদের জেরা করা হচ্ছে।

তিনি জানিয়েছেন, সোমবার সন্ধ্যায় সুপ্রিয় মেয়েটিকে সোনারি বাজারে ঘুরিয়ে আনার পরে কপালি বস্তির বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছিলেন বলে দাবি করেছেন। 

এ দিকে, কংগ্রেস নেত্রী ঊষা যাদবের নেতৃত্বে কপালি বস্তির কয়েক জন বাসিন্দা সোনারি পুলিশ থানায় এসে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন ও পরে রাস্তা অবরোধ করেন। তাঁদের দাবি, দোষীদের জনতার হাতে গণবিচারের জন্য ছেড়ে দেওয়া হোক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে এলাকায় কুইক রেসপন্স টিম মোতায়েন করেছে ঝাড়খণ্ড পুলিশ।

বন্ধ করুন