বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > অক্টোবরের মধ্যে টিকা না নিলে পড়বে ট্যাঁকে টান, দিতে হবে অর্থ
অক্টোবরের মধ্যে টিকা না নিলে পড়বে ট্যাঁকে টান, দিতে হবে অর্থ। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)
অক্টোবরের মধ্যে টিকা না নিলে পড়বে ট্যাঁকে টান, দিতে হবে অর্থ। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)

অক্টোবরের মধ্যে টিকা না নিলে পড়বে ট্যাঁকে টান, দিতে হবে অর্থ

  • দিতে হবে অর্থ।

অক্টোবরের মধ্যে করোনাভাইরাস টিকার প্রয়োজনীয় ডোজ না নিলে জার্মানির প্রায় সব মানুষকে করোনা টেস্টের জন্য মাসুল দিতে হবে৷ এমন কিছু পদক্ষেপের মাধ্যমে মহামারীর চতুর্থ ঢেউ মোকাবিলা করতে চায় সরকার৷

আর মাত্র দুই মাস৷ তারপর জার্মানিতে করোনা টেস্ট করাতে হলে সুযোগ সত্ত্বেও টিকা নিতে অনিচ্ছুক মানুষদের নিজের পকেট থেকেই টাকা খরচ করতে হবে৷ সংক্রমণের গড় হার ৩৫ পেরিয়ে গেলেই ২৩ অগস্টের পর দোকান-বাজার, হোটেল-রেস্তোরাঁ, সেলুন, জিম ইত্যাদি বদ্ধ জায়গায় প্রবেশ করতে হলে টিকার দুটি ডোজ, করোনা নিরাময় অথবা নেগেটিভ করোনা পরীক্ষার প্রমাণ দেখানো বাধ্যতামূলক করা হবে৷

মঙ্গলবার চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মের্কেল ও বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷ ফলে ১১ অক্টোবর থেকে শুধু যাঁরা স্বাস্থ্যগত কারণে টিকা নিতে অক্ষম ও যাঁদের বয়স ১৮ বছরের চেয়ে কম তাঁরাই বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষা করাতে পারবেন৷ ২৪ ঘণ্টা মেয়াদের অ্যান্টিজেন টেস্ট অথবা ৪৮ ঘণ্টা মেয়াদের পিসিআর টেস্ট করতে হলে বাকিদের জন্য আর সরকারি ভর্তুকির সুযোগ থাকবে না৷ বদ্ধ জায়গায় মাস্ক পরা ও দূরত্ব বজায় রাখার নিয়মও চালু থাকছে৷ এভাবেই শীতের মাসগুলিতে করোনা মহামারীর চতুর্থ ঢেউয়ের মোকাবিলা করতে চায় জার্মান সরকার৷

এখনও পর্যন্ত জার্মানিতে শুধু সংক্রমণের গড় হার নির্দিষ্ট মাত্রা পেরোলে টিকাপ্রাপ্ত, করোনাজয়ী অথবা নেগেটিভ করোনা টেস্টের প্রমাণ দেখিয়ে বদ্ধ জায়গায় প্রবেশ করার নিয়ম রয়েছে৷ মের্কেল বলেন, সবার জন্য করোনা টিকার ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ স্বাস্থ্য ও বয়সের কারণে যাঁদের পক্ষে টিকা নেওয়া সম্ভব নয়, তাঁদের জন্য বিনামূল্যে টেস্টের ব্যবস্থাও থাকছে৷ অর্থাৎ জনসাধারণের সুরক্ষার সব ব্যবস্থা দিচ্ছে সরকার৷' মের্কেল আরও বলেন, ‘লকডাউনের প্রয়োজন হলেও করোনা টিকাপ্রাপ্তরা সম্ভবত তার আওতার বাইরে থাকবেন৷ তিনি কমপক্ষে ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ মানুষকে করোনা টিকা দেবার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করতে চান৷’ উল্লেখ্য, বর্তমানে মোট জনসংখ্যার প্রায় ৫৫ শতাংশ টিকার সব প্রয়োজনীয় ডোজ পেয়ে গিয়েছেন৷ কিন্তু টিকাদান কর্মসূচির গতি অনেক কমে গছে৷ গ্রীষ্মের ছুটির পর সেই গতি আবার বাড়বে বলে মের্কেল আশাপ্রকাশ করেন৷

জার্মানিতে প্রতি এক লাখ মানুষের মধ্যে সাপ্তাহিক গড় সংক্রমণের হার বুধবার ২৫ পেরিয়ে গেছে৷ এক মাস আগে সেই হার ছিল পাঁচেরও কম৷ সরকার এখনও এই ইনসিডেন্সের হিসেবকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে চায়৷ কবে সেইসঙ্গে হাসপাতালের উপর চাপের মতো সূচকও গুরুত্ব দেওয়া হবে৷ করোনা সংকটের কারণে অর্থনীতির ক্ষতি সামলাতে জার্মানির সরকার যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে, সেগুলির মেয়াদ আরও বাড়ানো হচ্ছে৷ ফলে সেপ্টেম্বর মাসের পরেও অনেক কর্মীর বেতনের বড় অংশ সরকারি ভর্তুকির মাধ্যমে মেটানো হবে৷ ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প-বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানও সরকারি সাহায্য পাবে৷

বন্ধ করুন