৪০০ রেল স্টেশনে বিনামূল্যে ওয়াই-ফাই পরষেবা দেওয়ার কাজ সম্পূর্ণ করেছে গুগল।
৪০০ রেল স্টেশনে বিনামূল্যে ওয়াই-ফাই পরষেবা দেওয়ার কাজ সম্পূর্ণ করেছে গুগল।

রেল স্টেশনে বিনামূল্যে ওয়াইফাই পাওয়ার দিন শেষ, জানাল গুগল

গত ৫ বছরে মোবাইল ডেটার দাম ৯৫% কমেছে। মোবাইল ডেটা প্ল্যান এখন অনেক পকেটদুরস্ত এবং সংযোগ ব্যবস্থা অনেক উন্নত হয়েছে। এই কারণে বিনামূল্যে ওয়াইফাই পরিষেবার প্রয়োজন এখন ফুরিয়েছে।

গুগল স্টেশন প্রকল্পে রেলস্টেশনে বিনামূল্যে ওয়াইফাই পরিষেবা দেওয়ার মেয়াদ শেষ হল, জানিয়েছে গুগল। সোমবার সংস্থার তরফে এই ঘোষণা করা হয়েছে।

এ দিন গুগল জানিয়েছে, মোবাইল ডেটা প্ল্যান এখন অনেক পকেটদুরস্ত এবং সংযোগ ব্যবস্থা অনেক উন্নত হয়েছে। এই কারণে বিনামূল্তযে ওয়াইফাই পরিষেবার প্রয়োজন এখন ফুরিয়েছে। পাশাপাশি, মোবাইল ডেটার ব্যবহার বেড়ে যাওয়ার ফলে গুগল স্টেশনের পক্ষে পরিষেবা উন্নয়নের পথ অনেক বেশি কঠিন হয়ে পড়েছে।

সংস্থার সাম্প্রতিক ব্লগ পোস্টে বলা হয়েছে, ‘সাফল্যের পরবর্তী ধাপে ওঠার সময় এটা স্পষ্ট যে, পাঁচ বছর আগের তুলনায় অনলাইন হওয়া এখন অনেক সহজ ও সস্তা। মোবাইল ডেটা প্ল্যান আগের চেয়ে সস্তা হয়েছে এবং সারা বিশ্বে মোবাইল যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হয়েছে। সারা বিশ্বে ভারতে এখন প্রতি জিবি-তে অন্যতম সস্তা মোবাইল ডেটা পাওয়া যায়।২০১৯ সালে ট্রাই-এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ৫ বছরে মোবাইল ডেটার দাম ৯৫% কমেছে। বর্তমানে ভারতীয় ইউজাররা প্রতি মাসে গড়ে মাথাপিছু প্রায় ১০ জিবি ডেটা খরচ করেন। ভারত সরকারের মতোই বহু দেশের সরকার ও স্থানীয় প্রশাসন সকলের জন্য সহজ ও কম খরচে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ করে দিয়েছে।’

২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে গুগল স্টেশন প্রকল্প ঘোষণা করে গুগল। এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য ছিল ভারতের ৪০০ রেল স্টেশনে বিমানূল্যে ওয়াইফাই পরিষেবা চালু করা। ২০১৮ সালের জুন মাসে প্রকল্পের কাজ সম্পূর্ণ করে গুগল। কানেক্টিভিটির জন্য ভারতীয় রেলের রেলটেল নেটওয়ার্ক কাজে লাগানো হয়েছে।ভারতে গুগল স্টেশনের সাফল্যে ইন্দোনেশিয়া ও মেক্সিকোতেও এই প্রকল্প চালু করার পরিকল্পনা করেছে গুগল।

২০১৮ সালে গুগল-এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ৪০০ স্টেশনে গড়ে মাসে ৮০ লাখ অ্যাক্টিভ ইউজার রয়েছেন। পরিসংখ্যান বলছে, টায়ার টু শহরগুলিতে কিছু বেশি হলেও গড় দৈনিক ডেটা ব্যবহারের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৫০ এমবি।

বন্ধ করুন