বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > রাজ্য–রাজ্যপাল চরম সংঘাত!‌ পত্রযুদ্ধে উঠে এল হিন্দুত্ব প্রসঙ্গ
উদ্ধব ঠাকরে (PTI)
উদ্ধব ঠাকরে (PTI)

রাজ্য–রাজ্যপাল চরম সংঘাত!‌ পত্রযুদ্ধে উঠে এল হিন্দুত্ব প্রসঙ্গ

  • আবার রাজ্য–রাজ্যপাল সংঘাত। তবে রাজ্যটা হল মহারাষ্ট্র। যার মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। আর রাজ্যপাল হলেন, ভগৎ সিং কোশিয়ারি।

আবার রাজ্য–রাজ্যপাল সংঘাত। তবে রাজ্যটা হল মহারাষ্ট্র। যার মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। আর রাজ্যপাল হলেন, ভগৎ সিং কোশিয়ারি। তাদের মধ্যে লেগেছে সংঘাত। এখানেও খানিকটা ধর্মীয় ভাবাবেগ রয়েছে। দেশে করোনা সংক্রমণের শীর্ষে মহারাষ্ট্র। তার মধ্যেই রাজ্যের মন্দির খোলা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে কড়া চিঠি দিলেন মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল ভগত সিং কোশিয়ারি। রাজ্যপালকেও পাল্টা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। রাজ্যপালের কাছ থেকে যে তাঁর হিন্দুত্বের শংসাপত্র নেওয়ার প্রয়োজন নেই তা পত্রবোমা নিক্ষেপ করেই বুঝিয়ে দিলেন উদ্ধব ঠাকরে।

ঠিক কী লিখেছিলেন রাজ্যপাল? গত ১২ অক্টোবর কোশিয়ারী লেখেন, ‘‌আপনি বরাবরই হিন্দুত্বের প্রবল সমর্থক। শ্রীরামের প্রতি প্রকাশ্যে আপনি আপনার ভক্তি প্রকাশ করেছেন। আপনি কি কোনও দৈব আদেশ পেয়ে বারবার মন্দির খোলার বিষয়টি পিছিয়ে দিচ্ছেন? নাকি হঠাৎ ধর্মনিরপেক্ষ হয়ে গেলেন? রাজ্য সরকার বার–রেস্টুরেন্ট খুলে দিয়েছে কিন্তু দেবদেবীদের তালাবন্ধই রেখে দিয়েছে। দিল্লিতে অনেক আগেই ধর্মীয় স্থান খুলে গিয়েছে। সেখানে তো করোনা সংক্রমণ বাড়েনি।’‌

রাজ্যপালের ওই চিঠি পেয়ে তেলেবেগুনে জ্বলে উঠেছেন উদ্ধব ঠাকরে। পাল্টা রাজ্যপালকে ঠুকে তিনি লিখেছেন, ‘‌আমার হিন্দুত্ব এমন ব্যক্তিকে স্বাগত জানায় না যিনি মুম্বইকে পাক অধিকৃত কাশ্মীর বলেন। আপনার কাছ থেকে হিন্দুত্বের কোনও শংসাপত্র চাই না। মহারাষ্ট্র সরকার সক্রিয়ভাবে মন্দির–সহ ধর্মীয় স্থানগুলি খোলার কথা ভাবছে। তবে তার আগে এই পরিস্থিতিতে মানুষের সুরক্ষার দিকটা দেখতে হবে।’‌

এমনকী চিঠিতে তিনি রাজ্যপালের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন তুলে দিয়ে লিখেছেন, ‘‌আপনি কী মনে করেন ধর্মীয় স্থান খুলে দেওয়াটা হিন্দুত্ব, আর না খোলা হলে সেটা ধর্মনিরপেক্ষ?‌ আর ধর্মনিরপেক্ষতা হল একটা গুরুত্বপূর্ণ ভিত্তি। যা আপনি রাজ্যপাল হিসাবে শপথ নিয়েছিলেন। আপনি কী সেটা বিশ্বাস করেন না?‌’‌

বন্ধ করুন