বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সাইবার হানার শিকার হলদিরাম, ৭.৫ লাখ টাকা মুক্তিপণের দাবি
বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও নথি ইলোপ করে ৭.৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করল সাইবার দস্যুরা।
বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও নথি ইলোপ করে ৭.৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করল সাইবার দস্যুরা।

সাইবার হানার শিকার হলদিরাম, ৭.৫ লাখ টাকা মুক্তিপণের দাবি

  • হ্যাকাররা সার্ভারে থাকা নথির সমস্ত ব্যাকআপও হাতিয়ে নিয়েছে, যার ফলে জটিলতর সমস্যার সম্মুখীন হলদিরাম।

হলদিরাম স্ন্যাক্স প্রাইভেট লিমিটেড সংস্থার নয়ডার অফিসের সার্ভারে হানা দিল অজ্ঞাতপরিচয় হ্যাকাররা। বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও নথি ইলোপ করে ৭.৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করল সাইবার দস্যুরা।

গত ১২ ও ১৩ জুলাইয়ের মধ্যবর্তী রাতে সংস্থার সার্ভার এই বিষয়ে সতর্কতা জারি করে বলে জানা গিয়েছে। ঘটনার জেরে গত বুধবার নয়ডা সেক্টর ৫৮ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে হলদিরাম স্ন্যাক্স। 

সংস্থার ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার তাঁর দায়ের করা অভিযোগপত্রে জানিয়েছেন, সার্ভারের সতর্কবার্তা পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে তথ্য প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের তলব করা হয় এবং নয়ডার সেক্টর ৬২-তে অবস্থিত দফতরে খবর পাঠানো হয়। 

হলদিরাম নয়ডার ডিজিএম আজিজ খান জানিয়েছেন, ‘দেখা গিয়েছে, সাইবার হানায় নথি চুরির খবর পেয়ে সংস্থার অন্যান্য শাখার সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়, যদিও তার আগেই বেশ কিছু তথ্যচুরি হয়ে যায়। রাতচ তিনটের মধ্যে সমগ্র কর্পোরেট নেটওয়ার্কে ছড়িয়ে পড়ে সাইবার চুরিতে ব্যবহৃত র‌্যানসমওয়্যার। ঘটনার কথা উল্লেখ করে একটি সাইবার নিরাপত্তা সংস্থায় অভিযোগ দায়ের করা হয়, কিন্তু তত ক্ষণে সমস্ত সংবেদনশীল তথ্য পাচার হয়ে গিয়েছিল।’

হলদিরাম কর্তারা জানিয়েছেন, চুরি যাওয়া নথির মধ্যে রয়েছে সংস্থার আর্থিক ও কর্মী সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, বেতন সংক্রান্ত পরিসংখ্যান, খুচরো বিক্রি, ক্রয় এবং সংস্থার পরিকাঠানোজনিত গোপন বেশ কিছু নথিপত্র। তাঁদের মতে, তথ্যচুরির জেরে ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে সংস্থা এবং ব্যাহত হয়েছে দৈনন্দিন কাজকর্ম। হ্যাকাররা সার্ভারে থাকা নথির সমস্ত ব্যাকআপও হাতিয়ে নিয়েছে, যার ফলে জটিলতর সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে হলদিরাম।

ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজারের অভিযোগের ভিত্তিতে নয়ডা সেক্ট ৫৮ থানায় ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২০ (প্রতারণা), ৩৮৪ (পণ আদায়)এবং তথ্য প্রযুক্তি আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বন্ধ করুন