বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'কী হতে চাও, মা'কে গিয়ে কী বলব? হিমন্ত বলেছিল, অসমের মুখ্যমন্ত্রী',বললেন স্ত্রী
শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে স্ত্রী রিনিকির সঙ্গে হিমন্ত বিশ্বশর্মা। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে স্ত্রী রিনিকির সঙ্গে হিমন্ত বিশ্বশর্মা। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

'কী হতে চাও, মা'কে গিয়ে কী বলব? হিমন্ত বলেছিল, অসমের মুখ্যমন্ত্রী',বললেন স্ত্রী

অসমের নতুন মুখ্যমন্ত্রী আইনের ছাত্র ছিলেন। এছাড়াও গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাঁর রাষ্ট্রবিজ্ঞানে পিএইচডি ডিগ্রি রয়েছে। অন্যদিকে তাঁর স্ত্রী রিনিকি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে যুক্ত।

কলেজ জীবন থেকেই জানত্ন যে হিমন্ত বিশ্বশর্মা একদিন অসমের মুখ্যমন্ত্রী হবেন। স্বপ্নপূরণের পর সোমবার একথাই জানালেন অসমের নব-নির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রী রিনিকি শর্মা।

সোমবার অসমের ১৫ তম মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন হিমন্ত বিশ্বশর্মা। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার পর স্ত্রী রিনিকি বলেন, ‘‌ওর বয়স ছিল ২২ আর আমার বয়স ছিল ১৭, যখন আমাদের দু'জনের মধ্যে পরিচয় হয়।আমি তখন হিমন্তকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, মা'কে গিয়ে কী বলব, তুমি কী হতে চাও। তখন হিমন্ত বলেছিল, মাকে বল, আমি অসমের মুখ্যমন্ত্রী হব।’‌ পরক্ষণেই রিনিকি বলেন, ‘‌কথাটা শুনে আমি স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু পরে বুঝেছিলাম, এই মানুষটির মধ্যে একটা সংকল্প রয়েছে। যে মানুষটিকে সে বিয়ে করেছে, সে রাজ্যের জন্য স্বপ্ন দেখে। দৃঢ সংকল্প ভাব রয়েছে।’‌ একইসঙ্গে রিনিকির অভিব্যক্তি, ‘‌যখন আমি হিমন্তকে বিয়ে করেছিলাম, তখন তিনি শুধুই বিধায়ক ছিলেন। এরপর মন্ত্রী হলেন।আজ যখন তাঁকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে দেখছি, তখন আমার বিশ্বাসই হচ্ছে না। এমনকী রবিবার রাতেও যখন হিমন্তকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, মুখ্যমন্ত্রী কে হচ্ছেন, তখন আমায় ও বলেছিল, আমি হচ্ছি।এখনও আমি ঠিক বিশ্বাস করে উঠতে পারছি না।’‌

একইসঙ্গে হিমন্তের স্ত্রী বলেন, ‘‌অসমকে সুন্দর করে গড়ে তুলতে হিমন্তের একটা চিন্তাভাবনা রয়েছে।যেহেতু হিমন্ত কঠোর পরিশ্রম করতে পারে, তাই যতই বাধা তাঁর সামনে আসুক না কেন, ও সব চ্যালেঞ্জ জয় করতে পারবে।’‌ উল্লেখ্য, অসমের নতুন মুখ্যমন্ত্রী আইনের ছাত্র ছিলেন।এছাড়াও গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাঁর রাষ্ট্রবিজ্ঞানে পিএইচডি ডিগ্রি রয়েছে।অন্যদিকে তাঁর স্ত্রী রিনিকি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে যুক্ত।

বন্ধ করুন