বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সুপ্রিম কোর্টে পিছিয়ে গেল কয়লা পাচার মামলার শুনানি

সুপ্রিম কোর্টে পিছিয়ে গেল কয়লা পাচার মামলার শুনানি

সুপ্রিম কোর্টে পিছিয়ে গেল কয়লা পাচার মামলার শুনানি। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)

২৫ অগস্টে মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছে দেশের শীর্ষ আদালত।

কয়লা দুর্নীতি মামলায় সিবিআইয়ের তদন্তের বিরোধীতা ও গ্রেফতারি এড়াতে সুপ্রিম কোর্টের দারস্থ হয়েছিল মূল অভিযুক্ত অনুপ মাঝি উরফে লালা। মঙ্গলবার সেই আবেদনের শুনানি পিছিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট। ২৫ অগস্টে মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছে দেশের শীর্ষ আদালত। এদিন বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় ও বিচারপতি এমআর শাহের ডিভিশন বেঞ্চ এই নির্দেশ দিয়েছে। মামলা চলাকালীন ডিভিশন বেঞ্চ নিজের পর্যবেক্ষণে জানিয়েছে, ২০২০ সালের নভেম্বরে পশ্চিমবঙ্গের ইসিএলের এলাকা থেকে কয়লা পাচার ছাড়াও দুর্নীতি ও অবৈধ খনির ক্ষেত্রে বিশ্বাসভঙ্গের মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছিল অনুপ মাঝিকে।

গত ১০ মার্চ অনুপ মাঝিকে সিবিআইয়ের পাল্টা হলফনামায় পুনর্বিবেচনা করা ছাড়াও কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাকে তদন্তে সহযোগিতা করার নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। একইসঙ্গে তার গ্রেফতারির বিরুদ্ধে অন্তর্বর্তীকালীন স্থগিতাদেশ দেয় শীর্ষ আদালত।

ওই হলফনামায় সিবিআই কেন্দ্রের সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতার মাধ্যমে ঘোষণা করে যে, কয়লা কেলেঙ্কারির তদন্তের জন্য রাজ্য সরকারের সম্মতির প্রয়োজন নেই। কারণ, কলকাতা হাইকোর্ট এফআইআর বাতিল করতে অস্বীকার করে তদন্ত চালানোর নির্দেশ দিয়েছিল। তাছাড়া সিবিআই তদন্তের নোটিশ দিয়েছিল। সেকারণে রাজ্যের সম্মতি অর্থহীন হয়ে পড়ে। তখনই সিবিআই অনুপের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করার বিষয়টি ঘোষণা করেছিল। শুধু তাই নয়, ইসিএলের অভিযোগের ভিত্তিতে মামলার তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই। সেক্ষেত্রে তদন্ত প্রক্রিয়া বন্ধ করার জন্য কেন্দ্রীয় ভিজিলেন্স কমিশনের নির্দেশ প্রয়োজন সিবিআইয়ের।

পাল্টা মামলাকারী দাবি করে, ২০১৮ সালের নভেম্বরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন রাজ্য সরকার তদন্ত চালানোর সিবিআইয়ের সম্মতি প্রত্যাহার করে নিয়েছিল। কিন্তু পরবর্তী ক্ষেত্রে কলকাতা হাইকোর্ট সিবিআইকে তদন্ত চালানোর অনুমতি দেয়।

 

বন্ধ করুন