বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Hijab Controversy: ‘হিজাব পরতে হলে বাড়ির ভিতরে পরা উচিত’, বিতর্কে ঘি ঢেলে মন্তব্য প্রজ্ঞা ঠাকুরের
ভোপালের সাংসদ প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর (ছবি সৌজন্যে পিটিআই) (HT_PRINT)

Hijab Controversy: ‘হিজাব পরতে হলে বাড়ির ভিতরে পরা উচিত’, বিতর্কে ঘি ঢেলে মন্তব্য প্রজ্ঞা ঠাকুরের

  • ‘হিন্দু সমাজে’ হিজাব পরা উচিত নয়, ভোপালের বারখেদা পাঠানি এলাকার একটি মন্দিরে এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে প্রজ্ঞা ঠাকুর এই মন্তব্য করেন।

হিজাব বাড়িতে পরা উচিত। বাড়ির বাইরে ‘হিন্দু সমাজে’ হিজাব পরা উচিত নয়। এমনই মন্তব্য করে হিজাব বিতর্কের আগুনে ঘি ঢাললেন বিজেপি সাংসদ প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর। ভোপালের লোকসভার সদস্য প্রজ্ঞা ঠাকুর তাঁর বক্তব্যের সমর্থনে বলেন, ‘গুরুকুল’ (ঐতিহ্যশালী হিন্দু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান) এর শিষ্যরা গেরুয়া পোশাক পরেন, কিন্তু যখন এই ধরনের ছাত্ররা অন্য স্কুলে যায়, তখন তারা স্কুল ইউনিফর্ম পরেন এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলা মেনে চলেন। ভোপালের বারখেদা পাঠানি এলাকার একটি মন্দিরে এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে প্রজ্ঞা ঠাকুর এই মন্তব্য করেন।

প্রজ্ঞা বলেন, ‘দেশের স্কুল-কলেজের জ্ঞান ও শৃঙ্খলাকে বিকৃত করে হিজাব পরা ও খিজাব লাগানো শুরু করলে তা বরদাস্ত করা হবে না। হিজাব একটি পরদা। যারা আপনাকে খারাপ চোখে দেখে তাদের বিরুদ্ধে পরদা (ব্যবহার) করা উচিত। তবে এটা নিশ্চিত ভাবে বলতে পারি যে হিন্দুরা তাদের খারাপ চোখে দেখে না কারণ তারা নারীদের পুজো করে।’

উল্লেখ্য, হিজাব পরিহিত কিছু মুসলিম মেয়েকে উদুপির একটি সরকারি কলেজে প্রবেশে বাধা দেওয়া হয়েছিল গত ডিসেম্বরে। এরপর থেকে পরপর কলেজে নিষিদ্ধ হয়েছে হিজাব। এই আবহে বিতর্কে জল ঢালতে নির্দেশিকা জারি করে কর্ণাটক সরকার। সরকারের তরফে জানানো হয়েছিল, প্রি ইউনির্ভাসিটির আওতায় যে সরকারি কলেজগুলি রয়েছে সেখানে কলেজ ডেভেলপমেন্ট বোর্ড যে পোশাক নির্দিষ্ট করেছে সেটাই থাকবে। আর যেখানে এই পোশাক বিধি বলে কিছু নেই, সেখানে পড়ুয়ারা এমন পোশাক পরতে পারেন যাতে করে সম্প্রীতি, সমতা ও আইন শৃঙ্খলা বজায় থাকে। তবে এই নির্দেশের পরও বিতর্ক থামেনি। মামলা গড়ায় আদালতে। শান্তি বজায় রাখতে স্কুল, কলেজ বন্ধ রাখা হয়। এই ইস্যুটিতে রাজনৈতিক রঙ লেগেছে। বিজেপি নেতারা একাধিক বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন এই বিষয়ে। বিরোধীরাও পাল্টা তোপ দেগেছে শাসকদলকে। এই আবহে সবার নজর আদালতের দিকে।

 

বন্ধ করুন