মার্কিন প্রেসিডেন্টের সফরের সময়েই দিল্লিতে উত্তেজনা ছড়ানোয় ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।
মার্কিন প্রেসিডেন্টের সফরের সময়েই দিল্লিতে উত্তেজনা ছড়ানোয় ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

ট্রাম্পের সফরের সময়েই দিল্লিতে হিংসার রমরমা, ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছে কেন্দ্র

বেছে বেছে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সফরকালেই দিল্লিতে হিংসা ছড়ানোর ছক সাজানো হয়েছে বলে মনে করছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। তবে তার প্রমাণ পেতে পূর্ণাঙ্গ তদন্তের প্রয়োজন, জানাচ্ছে দিল্লি পুলিশ।

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভারত সফরের সময়েই যাতে দিল্লিতে হিংসাত্মক ঘটনায় আইন-শৃঙ্খলা শিকেয় ওঠে, তা ঠান্ডা মাথায় পরিকল্পনা করা হয়েছে, এমনই মনে করছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

ট্রাম্পের ৩৬ ঘণ্টার সফরের সঙ্গে উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে সিএএ-বিরোধী অবস্থান ঘিরে লাগাতার দুই দিন ধরে হিংসাত্মক ঘটনায় ষড়যন্ত্রের আভাস পাওয়া যাচ্ছে বলে সোমবার জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক ঘনিষ্ঠ আধিকারিকরা।

সিএএ বিরোধী অবস্থান কেন্দ্র করে সোমবার আবার দুই পক্ষের মধ্যে পাথর ছোড়াছুড়ি হয় দিল্লির জাফরাবাদের মৌজপুর ও ভজনপুরা অঞ্চলে। ঘটনার জেরে মৃত্যু হয়েছে দিল্লি পুলিশের হেড কনস্টেবল রতন লালের। আহত হয়েছেন একাধিক পুলিশকর্মী। তবে সন্ধ্যায় দিল্লি পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, পরিস্থিতি আপাতত পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

রবিবারের পরে সোমবারও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল উত্তর-পূর্ব দিল্লির মৌজপুর এলাকা। দুই পক্ষের মধ্যে ফের পাথর ছোড়াকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায়। বেশ কিছু গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়।এর মধ্যেই শোনা যায় 'জয় শ্রীরাম' স্লোগান।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটাতে হয় পুলিশকে।সংঘর্ষের মোকাবিলায় মোতায়েন করা হয় আধাসামরিক বাহিনী।শহর ও লাগোয়া অঞ্চলের দশটি জায়গায় ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। পরিস্থিতির উপরে কড়া নজর রাখা হচ্ছে, জানিয়েছেন দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বৈজল।

এ দিনও ঘটনার জেরে দিল্লি মেট্রোর জাফরাবাদ ও মৌজপুর-বাবরপুর স্টেশনে ঢোকা ও বের হওয়ার গেট বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। টুইটারে এই বিষয়ে বার্তা দেয় দিল্লি মেট্রো রেলওয়ে কর্পোরেশন। এই দুই স্টেশনে এ দিন কোনও ট্রেন থামবে না বলে জানিয়েছে ডিএমআরসি।

প্রসঙ্গত, রবিবার সকালেও মৌজপুরে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে পাথর ছোড়াছুড়ি হলে বেশ কয়েক জন আহত হন। অবস্থা সামলাতে কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটাতে হয় পুলিশকে। বন্ধ করে দেওয়া হয় জাফরাবাদ ও মৌজপুর-বাবরপুর মেট্রোরে স্টেশনের গেট।

পর পর দুই দিনের একই রকম ঘটনার জেরে মেট্রো স্টেশন লাগোয়া বেশ কিছু বাড়ির কাচ ভেঙেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ দিন থমথমে হয়ে রয়েছে গোটা জাফরাবাদ ও সংলগ্ন এলাকা।

এ দিনের ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের উদ্দেশে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখার আবেদন জানিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী তথা আম আদমি পার্টির প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

শনিবার রাত থেকে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) রদ করার দাবিতে জাফরাবাদে বিক্ষোভ অবস্থান শুরু করেছেন প্রায় ৫০০ মহিলা। তার জেরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে জাফরাবাদ ও চাঁদবাদ এলাকার সড়ক।

রবিবার বিকেলে স্থানীয় বিজেপি নেতা কপিল মিশ্র সিএএ-এর সমর্থনে একটি সভা ডাকেন। সভা শেষ হওয়ার পরেই পরস্পরের উপরে হামলা চালায় দুই গোষ্ঠী। পরে টুইট করে কপিল জানিয়েছেন, ‘মৌজপুর এলাকায় পথ অবরোধ তুলতে পুলিশকে তিন দিন সময় দিচ্ছি। কারণ সোমবার ভারত সফরে এসে দিল্লিতে রাত কাটাবেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই সময়সীমা পেরিয়ে গেলে দয়া করে আমাদের বোঝাতে আসবেন না, আমরা আর কোনও কথা শুনব না।’

বন্ধ করুন