বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Imran Khan: ‘বিদেশি ষড়যন্ত্রের কি হল?’ মার্কিন কংগ্রেস সদস্যের সঙ্গে বৈঠকের পর কটাক্ষে বিদ্ধ ইমরান
মার্কিন কংগ্রেস সদস্য ইলহান ওমারের সঙ্গে দেখা করলেন ইমরান খান। (ছবি - টুইটার)

Imran Khan: ‘বিদেশি ষড়যন্ত্রের কি হল?’ মার্কিন কংগ্রেস সদস্যের সঙ্গে বৈঠকের পর কটাক্ষে বিদ্ধ ইমরান

  • Imran Khan: মার্কিন কংগ্রেস সদস্য ইলহান ওমারের সঙ্গে দেখা করলেন ইমরান খান। উল্লেখ্য, কয়েক সপ্তাহ আগেই আস্থা ভোটের আবহে আমেরিকার দিকে আঙুল তুলেছিলেন ইমরান খান। তাঁর অভিযোগ ছিস, মার্কিন মদতেই তাঁর সরকার ফেরতে উদ্যোগী হয়েছে বিরোধীরা। এই আবহে মার্কিন প্রতিনিধির সঙ্গে ইমরানের বৈঠক ঘিরে শুরু হয়েছে তরজা।

পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বুধবার ইসলামাবাদের বানি গালায় মার্কিন কংগ্রেসের সদস্য ইলহান ওমরের সঙ্গে তাঁর বাসভবনে দেখা করেন। এরপরই বিভিন্ন জায়গা থেকে কটাক্ষ হজম করতে হল ইমরান খানকে। উল্লেখ্য, পাকিস্তানে তাঁর সরকারের পতনের পিছনে মার্কিন ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলেছিলেন ইমরান খান। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক ভাবে তোপ দাগার কয়েক সপ্তাহ পরেই অবশ্য এই বৈঠক হল। দুই নেতার সাক্ষাতের ছবি প্রকাশ্যে আসতেই মানুষ প্রতিক্রিয়া শুরু করে। পাক জনগণ ইমরানকে প্রশ্ন করছে মার্কিন ষড়যন্ত্রের তাহলে কি হল?

ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন সরকারের প্রাক্তন মন্ত্রী শিরিন মাজারি দুই নেতার বৈঠকের ছবি শেয়ার করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। শিরিন ছবি প্রসঙ্গে বলেছেন যে উভয় পক্ষ পারস্পরিক স্বার্থের বিষয়ে আলোচনা করেছে। তবে, পাকিস্তান অ্যাসেম্বলিতে মার্কিন প্রতিনিধির সঙ্গে ইমরান খানের সাক্ষাতের ছবিটি প্রকাশ হতেই পাকিস্তানে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোড়ন তৈরি হয়। প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, মার্কিন ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করার পরে মার্কিন কংগ্রেস সদস্যের সঙ্গে বৈঠক কেন? এই আবহে সোশ্যাল মিডিয়ায় পাক জনগণ ইমরানকে নিশানা করে।

উল্লেখযোগ্যভাবে, গত ৩ এপ্রিল জাতির উদ্দেশে নিজের ভাষণে ইমরান খান দাবি করেছিলেন যে তিনি আমেরিকান ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন এবং তাই তাঁর সরকারের পতন হতে পারে। ইমরান অভিযোগ করেছিলেন যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পাকিস্তানের বিরোধী দলগুলির সাথে ষড়যন্ত্র করেছিল তাঁকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য। তাঁর রাশিয়া সফরের জেরেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই ষড়যন্ত্র করেছিল বলেও অভিযোগ করেছিলেন ইমরান খান। পাকিস্তানের এক কূটনীতিকের পাঠানো ‘চিঠি’র বরাত দিয়ে তিনি এই দাবি করেছিলেন। তিনি সরাসরি মার্কিন আধিকারিক ডোনাল্ড লু-এর নাম নিয়েছিলেন। তবে এত কিছু করেও শেষ পর্যন্ত তিনি নিজের সরকার রক্ষা করতে পারেননি। আর গদিচ্যুত হওয়ার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই মার্কিন প্রতিনিধির সঙ্গে তাঁর এই সাক্ষাত অনেকেই ভালো চোখে নিচ্ছেন না।

 

বন্ধ করুন