জনতা কার্ফু-তে স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া দিতে দেশবাসীর প্রতি আবেদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
জনতা কার্ফু-তে স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া দিতে দেশবাসীর প্রতি আবেদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

India fights Covid-19: রবিবার ‘জনতা কার্ফু’, জানুন কী করবেন ও করবেন না

  • দেশজুড়ে নোভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে রবিবার সকাল ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ‘জনতা কার্ফু’-এর ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

বৃহস্পতিবার জাতির উদ্দেশে ভাষণে নমো বলেন, এই ভয়াবহ সংক্রমণ রুখতে হলে সংযম প্রয়োজন। এই কারণে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত নিতান্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বেরোতে জনসাধারণকে নিষেধ করেছেন নমো। বিশেষ করে ষাটোর্ধ্ব নাগরিকদের বাড়ির ভিতরেই এই কয়েক দিন থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। আগামিকাল প্রধানমন্ত্রীর আবেদনে সাড়া দিয়ে স্বেচ্ছা কার্ফুতে অংশগ্রহণের জন্য কিছু বিধি-নিষেধ মেনে চলতে হবে। দেখে নেওয়া যাক জনতা কার্ফু-এর গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলি।

1

রবিবার সকাল ৭টৈ থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত জারি থাকবে জনতা কার্ফু।

2

ভারতে এই মুহূর্তে সংক্রমণের দ্বিতীয় পর্যায় শুরু হয়েছে। দেশ যাতে এরপরের তৃতীয় পর্যায়ে- যখন সামাজিক সংক্রমণ শুরু হয়ে যায়, তাতে না পৌঁছয়, তা নিশ্চিত করতে নিরলস পরিশ্রম করছেন প্রশাসনিক ও স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীরা।

3

জনতা কার্ফু চলাকালীন ওষুধের দোকান ও স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পরিষেবাকেন্দ্রগুলি ছাড়া বন্ধ থাকবে দোকান, বাজার, অফিস, আদালত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান-সহ জনসমাগমের প্রতিটি স্থান।

4

করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কায় ইতিমধ্যে রাজ্যের বাইরে থেকে আসা সমস্ত ট্রেন বন্ধ করার আবেদন রেল বোর্ডের কাছে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার কার্ফু চলাকালীন বন্ধ রাখা হয়েছে সমস্ত দূরপাল্লার ট্রেন। শুধুমাত্র যে ট্রেনগুলি নির্ধারিত সময়ের আগে রওনা দিয়েছে, সেগুলিকে গন্তব্যে পৌঁছতে দেওয়া হবে।

5

জনতা কার্ফু জারি থাকাকালীন শহরতলিতে যাতায়াতকারী লোকাল ট্রেনের সংখ্যা নগণ্য থাকবে বলে জানা গিয়েছে। সীমিত সংখ্যায় চালু থাকবে কলকাতা মেট্রোরেল পরিষেবাও।

6

শনিবার মধ্যরাত থেকে রাজ্য থেকে ছাড়ছে না কোনও দূরপাল্লার বাস। রাজ্যে কোনও দূরপাল্লার বাস ঢুকতেও দেওয়া হবে না এই সময়ে। আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত ভিনরাজ্য থেকে আসা বাসের প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে রাজ্য প্রশাসন।

7

শনিবার থেকেই রাজ্যের সমস্ত পানশালা, রেস্তোরাঁ, ম্যাসাজ পার্লার, মিউজিয়াম, প্রদর্শনশালা, চিড়িয়াখানা, সভাস্থল-সহ প্রকাশ্য সমাগমস্থানগুলি বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশিকা জারি করেছে নবান্ন। জনতা কার্ফু চলাকালীন বাইরে থেকে খাবার আনতেও নিষেধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

8

রবিবার বিকেল ৫.০৫ মিনিটে হাততালি, থালা ও ঘণ্টা বাজিয়ে যাঁরা করোনা সংক্রমণ রুখতে সাহায্য করছেন, সেই সমস্ত কর্মীদের ঝুঁকি মাথায় নিয়েও নিরলস পরিশ্রমের প্রতি সম্মান জানাতে দেশবাসীর প্রতি আবেদন জানিয়েছেন নমো।

বন্ধ করুন