বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মালাবার নৌ-কসরতে আমেরিকা, জাপানের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়াকে আমন্ত্রণ ভারতের
চলছে মালাবার নৌ কসরত (ফাইল ছবি) (MINT_PRINT)
চলছে মালাবার নৌ কসরত (ফাইল ছবি) (MINT_PRINT)

মালাবার নৌ-কসরতে আমেরিকা, জাপানের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়াকে আমন্ত্রণ ভারতের

  • চিনের সঙ্গে অশান্তির মধ্যেই এই সিদ্ধান্ত মোদী সরকারের। 

এক সঙ্গে চলছে চিনের সঙ্গে সীমান্তে অশান্তি। তার মধ্যেই কোয়াড দেশগুলি সামরিক কসরত করবে একসঙ্গে এই প্রথমবারের জন্য। মালাবার এক্সারসাইজে অস্ট্রেলিয়াকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে ভারত। ফলে একই সঙ্গে গা ঘামাবে ভারত, আমেরিকা, জাপান ও অস্ট্রেলিয়ার নৌসেনা। 

দুই সপ্তাহ আগেই কোয়াড দেশের বিদেশমন্ত্রকদের মধ্যে টোকিওতে বৈঠক হয়। সেখানে আলোচনা হয় কিভাবে ইন্দো-প্যাসিফিকে চিনের আগ্রাসনকে রোখা যায়। তার পরেই অস্ট্রেলিয়াকে আমন্ত্রণ দেওয়া বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে ওয়াকিবহাল মহলের অভিমত। 

এদিন প্রতিরক্ষামন্ত্রকের তরফে বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে সামুদ্রিক সুরক্ষায় ভারত অন্য দেশের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধতে চায় ও যেভাবে অজিদের সঙ্গে বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রতিরক্ষাক্ষেত্রে সহায়তা, সেই কারণে মালাবার ২০২০-এ অংশগ্রহণ করবে অস্ট্রেলিয়ার নৌবাহিনী। 

বঙ্গোপসাগর ও ভারত মহাসাগরে হতে চলেছে মালাবার ২০২০ যেখানে নানান কসরত করবে নৌসেনা। হবে ওয়ার গেমস যেখানে আসল যুদ্ধ হলে কি কি করা হবে, সেটার ড্রেস রিহার্সাল করা হবে। 

প্রসঙ্গত গত কয়েক বছর ধরেই এই নৌ বাহিনীর যুদ্ধ প্রশিক্ষণে যুক্ত হতে ইচ্ছাপ্রকাশ করেছে অস্ট্রেলিয়া। অবশেষে এল ভারতের সম্মতি।

প্রতিক্রিয়ায় অস্ট্রেলিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী রেনল্ডস বলেন এটি একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে ও ইন্দো-প্যাসিফিকে চার প্রধান গণতন্ত্রের মধ্যে যে একে অপরের প্রতি গভীর আস্থা আছে, তারই নিদর্শন এই নৌ সেনাদের কসরত। 

১৯৯২ সালে ভারতীয় মহাসাগরে ভারত ও আমেরিকার মধ্যে ড্রিল হিসেবে শুরু হয় মালাবার। এরপর জাপান যুক্ত হয় ২০১৫ থেকে। এবার এল অস্ট্রেলিয়া। চিনের বিরুদ্ধে একজোট হওয়ার দিকে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ বলে মনে করা হচ্ছে। 

 

বন্ধ করুন