বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > উৎসবে চিনা পণ্যের প্রতি আগ্রহ কমেছে ভারতীয়দের, বলছে সাম্প্রতিক সমীক্ষা
চিন-বিরোধী আবেগের জেরে চলতি বছরে উৎসবের মরশুমে মাত্র ২৯% দাঁড়িয়েছে চিনা সামগ্রী বিক্রির হার। 
চিন-বিরোধী আবেগের জেরে চলতি বছরে উৎসবের মরশুমে মাত্র ২৯% দাঁড়িয়েছে চিনা সামগ্রী বিক্রির হার। 

উৎসবে চিনা পণ্যের প্রতি আগ্রহ কমেছে ভারতীয়দের, বলছে সাম্প্রতিক সমীক্ষা

  • একবছরে ৪০ শতাংশের কাছাকাছি কমেছে চিনা পণ্যের প্রতি ভারতবাসীর আগ্রহ।

উৎসবের মরশুমে চিনে তৈরি পণ্যের প্রতি আগ্রহ কমেছে ভারতীয় গ্রাহকদের। এই তথ্য জানা গিয়েছে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘লোকালসার্কেলস’-এর সমীক্ষায়।

সমীক্ষায় জানা গিয়েছে, চলতি বছরে উৎসবের মরশুমে মাত্র ২৯% দাঁড়িয়েছে চিনা সামগ্রী বিক্রির হার। তুলনায় ২০১৯ সালে এই হার ছিল ৪৮ শতাংশ। অর্থাৎ একবছরে ৪০ শতাংশের কাছাকাছি কমেছে চিনা পণ্যের প্রতি ভারতবাসীর আগ্রহ, জানিয়েছেন ‘লোকালসার্কেলস’-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শচীন তাপারিয়া। 

দেশের মোট ২০৪টি জেলায় এই সমীক্ষা চালানো হয়েচিল গত নভেম্বর মাসের ১০-১৫তারিখের মধ্যে। 

সমীক্ষায় আরও জানা গিয়েছে যে, ওই ২৯ শতাংশ গ্রাহক যাঁরা চিনা পণ্য কিনেছেন, তাঁদের ৭১% জানিয়েছেন যে তাঁরা জেনেবুঝে চিনা পণ্য কেনেননি। আর ৬৬% গ্রাহকের দাবি, সস্তায় জিনিস কেপনার বাসনাতেই তাঁরা চিনা সামগ্রীর দিকে ঝুঁকেছেন। 

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ‘গত জুন মাসে পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় চিনা সেনার সঙ্গে সংঘর্ষে কুড়িজনের বেশি ভারতীয় সেনাকর্মীর মৃত্যুর জেরে ভারতে চিন-বিরোধী আবেগ তৈরি হয়েছে। সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের ৮৭% জানিয়েছেন, আগামী একবছর তাঁরা চিনা পণ্য বয়কট করেছেন।’

সমীক্ষায় অংশ নেওয়া অধিকাংশ গ্রাহকের মতে, চিনের তুলনায় ভারতে তৈরি জিনিসের দাম বেশি, যদিও তার গুণগত মান উন্নত হয়। তবে উৎসব সম্পর্কিত বেশ কিছু চিনা পণ্য, যেমন এলইডি আলোকসজ্জা, বৈদ্যুতিক মোমবাতি, প্লাস্টিকের সামগ্রী এবং এককালীন ব্যবহার্য পণ্যই প্রতি বছর বেশি বিক্রি হয়। 

এই কারণে সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ‘সামগ্রিক ভাবে দেখতে গেলে এ বছর চিনা পণ্যের পিছনে কম অর্থ খরচ করেছেন ভারতীয় গ্রাহকরা। তবে সরকারি সমর্থনপুষ্ট ভারতের মাঝারি ও ক্ষুদ্র শিল্পক্ষেত্রে আরও উন্নত ও সস্তা পণ্য তৈরি হওয়ায় জোর দিতে হবে। তা হলেই বাজার থেকে পাকাপাকি চিনা সামগ্রী মুছে ফেলা সম্ভব।’

বন্ধ করুন