বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ট্রেনে ঘুমিয়ে পড়লেও টেনশন নেই! গন্তব্য আসার আগেই বাজবে ওয়েক আপ অ্যালার্ম
 ট্রেনে ঘুমিয়ে পড়লেও টেনশন নেই! গন্তব্য আসার আগেই বাজবে ওয়েক আপ অ্যালার্ম।(ছবিটি প্রতীকী)
 ট্রেনে ঘুমিয়ে পড়লেও টেনশন নেই! গন্তব্য আসার আগেই বাজবে ওয়েক আপ অ্যালার্ম।(ছবিটি প্রতীকী)

ট্রেনে ঘুমিয়ে পড়লেও টেনশন নেই! গন্তব্য আসার আগেই বাজবে ওয়েক আপ অ্যালার্ম

  • ট্রেনে আর গন্তব্যের স্টেশন পেরিয়ে যাওয়ার ভয় নেই। মুশকিল আসান করছে ভারতীয় রেলের ওয়েক আপ অ্যালার্ম।

স্টেশন আর কতদূর! এই ভাবনা নিয়ে দূরপাল্লার ট্রেনে গন্তব্যের স্টেশন আসার আগেই রেলযাত্রীরা বেশ টেনশনে থাকেন। অনেকেই জানলা দিয়ে উঁকি দিয়ে নিমেষে দেখে নিতে চান স্টেশনের নাম। বহু মালপত্র নিয়ে দূরপাল্লার ট্রেন থেকে নামা যেমন এক ঝক্কি, তেমনই আবার স্টেশন আসার আগে ঘুমিয়ে পড়লে আরও বড় বিপদ ঘটে যেতে পারে! এই টেনশন থেকে যাত্রীদের মুক্তি দিচ্ছে ভারতীয় রেলের নয়া পরিষেবা 'ওয়েক আপ অ্যালার্ম'।

'দাদা কোন স্টেশন এল?' এই প্রশ্ন দূরপাল্লার ট্রেনে প্রায়সই সহযাত্রীদের মধ্যে কেউ কাউকে করে থাকেন! অনেকেই বর্তমানে মোবাইল অ্যাপে দেখে নিতে চান ট্রেনের গতিবিধি ও স্টেশনের দূরত্ব। তবে নেটওয়ার্কের সমস্যা হলে, ভরসা সেই সহযাত্রীরা বা মোবাইলের অ্যালার্ম। এর সঙ্গে 'ট্রেন লেট' এর সমস্যা যুক্ত হলে তো কথাই নেই! এই সমস্ত ঝক্কি ঝামেলা থেকে যাত্রীদের রেহাই দিতেই ভারতীয় রেল এনেছে 'ওয়েক আপ অ্যালার্ম'। এই পরিষেবারই আরেক নাম 'ডেস্টিনেশন অ্যালার্ট'। এই পরিষেবায় গন্তব্যের স্টেশন আসার আধ ঘণ্টা আগে রেলই আপনাকে ডেকে দেবে! সচেতন করে দেবে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছানোর সময় নিয়ে।

এই বিশেষ সুবিধা পেতে তিনটি পদ্ধতি অবলম্বন করা যেতে পারে। ১৩৯ নম্বরে ফোন করে আইভিআর পদ্ধতি পেতে পারেন। এছাড়াও কাস্টমার কেয়ার প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলা যেতে পারে। এক্ষেত্রে টিকিটে দেওয়া পিএনআর নম্বর, গন্তব্যের স্টেশনের এসটিডি কোড, আর নাম দিতে হবে। আইভিআর পদ্ধতি অবলম্বন করলে ৭ ডায়াল করতে হবে। জানাতে হবে স্টেশনের নাম। এই পদ্ধতি পছন্দ না হলে, ১৩৯ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে নাম নথিভূক্ত করা যেতে পারে। এরপর রেলের পক্ষ থেকে টিকিটে রেজিস্টার করা নম্বরে যাবে ফোন। গন্তব্যের স্টেশনে পৌঁছানোর ঠিক আধঘণ্টা আগে যাবে ফোন।

বন্ধ করুন