ভারতের ৪১ তম যোগাযোগ উপগ্রহ (কমিউমিকেশন স্যাটেলাইট) জিস্যাট-৩০ (ছবি সৌজন্য টুইটার @ISRO)
ভারতের ৪১ তম যোগাযোগ উপগ্রহ (কমিউমিকেশন স্যাটেলাইট) জিস্যাট-৩০ (ছবি সৌজন্য টুইটার @ISRO)

নতুন বছরের প্রথম উৎক্ষেপণে সফল ISRO, কক্ষপথে প্রতিস্থাপিত GSAT-৩০

  • ইসরো জানিয়েছে, টেলিভিশন সম্প্রচার, উপগ্রহ-নির্ভর সংবাদ সংগ্রহ, ডিটিএইচ পরিষেবা আরও ভালো করবে জিস্যাট- ৩০।

ঘটনাবহুল ২০১৯ সালের পর নতুন বছরের প্রথম উৎক্ষেপণেই সফল হল ইসরো। গতরাত দুটো ৩৫ মিনিটে ভারতের ৪১ তম যোগাযোগ উপগ্রহ (কমিউমিকেশন স্যাটেলাইট) জিস্যাট-৩০ উৎক্ষেপণ করে ইউরোপের বাণিজ্যিক লঞ্চার আরিয়ানস্পেস।

উৎক্ষেপণের ৩৮ মিনিট ২৫ সেকেন্ড পরে উপবৃত্তাকার জিওসিনক্রোনাইজ ট্রান্সফার অরবিটে আরিয়ান ৫-এর উপরের অংশ থেকে পৃথক হয়ে যায় জিস্যাট-৩০।সফলভাবে কক্ষপথে প্রতিস্থাপিত হয়েছে উপগ্রহটি।

কিন্তু কেন এই উপগ্রহটি পাঠানো হয়েছে? ইসরো জানিয়েছে, টেলিভিশন সম্প্রচার, উপগ্রহ-নির্ভর সংবাদ সংগ্রহ, ডিটিএইচ পরিষেবা আরও ভালো করবে জিস্যাট- ৩০। ভারতীয় মহাকাশ সংস্থার চেয়ারম্যানের কথায়, 'দীর্ঘদিনের ইনস্যাট - ৪এ উপগ্রহের পরিবর্তে জিস্যাট- ৩০ কাজ করবে। কু-ব্যান্ডের মাধ্যমে ভারতের মূল-ভূখণ্ড ও দ্বীপগুলি-সহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিতে যোগাযোগ পরিষেবা প্রদান করবে জিস্যাট- ৩০। এছাড়াও সি-ব্যান্ডের মাধ্যমে এশিয়ার অনেক দেশ ও অস্ট্রেলিয়ায় যোগাযোগ পরিষেবা প্রদান করবে উপগ্রহটি।'

আগামী কয়েকদিনে প্রপুলেশন সিস্টেমের মাধ্যমে ক্রমশ কক্ষপথ বদল করবে জিস্যাট-৩০। তারপর তা নির্দিষ্ট কক্ষপথ তথা জিওস্টেশনারি কক্ষপথে প্রতিস্থাথিত হবে। কক্ষপথ বদলের অন্তিম পর্যায়ে দুটি সোলার অ্যারে ও অ্যান্টনা রিফ্লেক্টর কাজ শুরু করবে।


বন্ধ করুন